‘স্যামসাংয়ের বানানো এটাই হবে বিশ্বের সবচেয়ে সেরা ও সুন্দর স্মার্টফোন’


❏ বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০১৬ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

news_picture_35767_samsung-galaxy-note-7_1


প্রযুক্তি ডেস্কঃ

স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি নোট সিরিজ বেশ জনপ্রিয়। তবে এতদিন পর্যন্ত অনেকেই বড় আকারের আইফোনের বিকল্প হিসাবে নিয়েছিলেন নোট সিরিজকে। সম্প্রতি গ্যালাক্সি নোট ৭ এনেছে স্যামসাং। একে আইফোনের বিকল্প বলতে নারাজ অনেকেই। এক বিশেষজ্ঞের মতে, এই মুহূর্তে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর ফোনটি হলো গ্যালাক্সি নোট ৭। আইফোনের সাম্প্রাতিক মডেলগুলোর চেয়ে অনেক ভালো কিছু রয়েছে এতে।

নোট ৭ পানি প্রতিরোধী। আইফোন ৬ প্লাসের চেয়ে বড় পর্দা রয়েছে এতে। এমনকি গুণগত মানের তুলনায় ৮৫০ ডলারও অনেক কম মনে হবে। স্যামসাং এর আগেও ফ্যাবলেট নিয়ে কাজ করেছেন। গ্যালাক্সি নোট ৭-এর মাধ্যমে তার চূড়ান্ত রূপ দেখিয়েছে নির্মাতা। ডিজাইন : গত বছরই অ্যাপলের ডিজাইন নকল করা বিষয়ে বেশ সমস্যায় ছিল স্যামসাং।

সেটা যাই হোক, বর্তমানে স্যামসাং নোট ৭-এর মাধ্যমে নিজের বৈশিষ্ট্য ফুটিয়ে তুলেছে। যখন সবাই অ্যাপলের ডিজাইনকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিয়েছে, তখন স্যামসাং তার নিজের ডিজাইনে উদ্ভাসিত। এখন অনেকের মতে, গ্যালাক্সি নোট ৭ এই মুহূর্তের সবচেয়ে সুন্দর স্মার্টফোন। নোট ৭-এর স্ক্রিন একটু বড়, ৫.৭ ইঞ্চি। কিন্তু পকেটে নিতে বেশ আরাম। এতে আছে কার্ভড পর্দা।

এই বৈশিষ্ট্য নির্মাতার ফ্ল্যাগশিপ ফোনের পরিচয় তুলে ধরে। দুটো বাঁকানো কাচের মাধ্যমে স্ক্রিনটি তৈরি হয়েছে যাকে ধরে রেখেছে ধাতব ব্যান্ড। এর ভারসাম্য অসম্ভব। পছন্দের অ্যাপ আর কন্ট্যাক্টগুলোকে এখানে সুইপ করে আনা যায় অনায়াসে। হার্ডওয়্যার : কয়েক বছর আগেই স্যামসাং টাচ ছাড়া গেশ্চার বা ক্যামেরার নানা মোড দিয়ে তোলপাড় করে দেয়। বর্তমানে এ নির্মাতার হার্ডওয়্যার ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে।

নোট ৭-কে শীর্ষে রাখা যায়। তারবিহীন চার্জের ব্যবস্থা, পানি প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য, সেরা মানের ক্যামেরা এবং বাড়তি স্টোরেজ আর ঝকঝকে গ্লাস ডিজাইন মনের মতো হার্ডওয়্যারের বৈশিষ্ট্য তুলে ধরে। এর এস পেন স্টাইলাসটিও দারুণ। এটিও পানি প্রতিরোধী। লেখা ও আঁকানোর কাজে অনেক বেশি স্পর্শকাতর। কয়েক ফুট পানির নিচে ৩০ মিনিট পর্যন্ত নিরাপদ থাকে নোট ৭। তার মানে এই নয় যে, একে নিয়ে সাঁতার কাটতে যাবেন। এর আইরিশ স্ক্যানার ব্যবহারকারীদের বাড়তি নিরাপত্তা দেবে।

আপনার চোখের ছবি তুলে তা নিরাপদে রেখে দেবে স্টোরেজে। এরপর চোখের ব্যবহারে ফোনের লক খুলতে পারবেন। ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার দিয়ে যেভাবে লক খুলতেন সেভাবেই কাজ করবে। এই অপশনটি যে বাড়তি নিরাপত্তাকে অনেক দূর নিয়ে গেছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। স্যামসাং এ যাবতকালের সেরা ক্যামেরা এনেছে নোট ৭-এ। এর ব্যবহার আরো সহজ করা হয়েছে। কিন্তু বেড়েছে গুণগত মান।

১২ মেগাপিক্সেলের পেছনের ক্যামেরাটি যেকোনো পরিবেশে সেরা ছবি তুলতে সক্ষম। সামনের ক্যামেরাটি ৫ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি বেশ শক্তিশালী, ৩৫০০এমএএইচ। তার ছাড়াই চার্জ করা যাবে। একবার চার্জ দিলে পুরো একদিন অনায়াসে যায়। এক্সিনস ৮৮৯০ অক্টা-কোর প্রসেসর আর ৪ জিবি র‌্যাম দেওয়া হয়েছে। চলবে অ্যান্ড্রয়েড ৬.০.১ মার্শমেলো সংস্করণে। একে নোগাট ৭.০-তে আপডেট করা যাবে। বিশেষ কিছু : অ্যান্ড্রয়েডকে ভিন্ন মাত্রায় নিতে চায় স্যামসাং। তার অভিজ্ঞতা মিলবে নোট ৭-এ। স্যামসাং এর আগে যত ফোন বানিয়েছে তাদের মধ্যে নোট ৭-কে সেরা বলতে রাজি অনেকে।

তবে এখন পর্যন্ত স্যামসাং তাদের নতুন নতুন ফোনে আপডেট দিতে বেশ পিছিয়ে। এটা নোট ৭ ব্যবহারকারীদের কাছে অসহ্য হয়ে উঠবে। ইমেইল, ক্যালেন্ডার ইত্যাদি ক্ষেত্রে নিজেদের অ্যাপই রয়েছে স্যামসাংয়ের। শেষের কথা : বিশেষজ্ঞরা নোট ৭ এর দাম নিয়ে দারুণ সন্তুষ্ট। এটা বলা হচ্ছে না যে ৮৫০ ডলার কোনো ব্যাপার নয়। বেশ ভালো বাজেট। কিন্তু এর বিনিময়ে যে স্মার্টফোনটি হাতে আসবে তা অতুলনীয়। যে কেউ এটি ব্যবহার করে বুঝবেন, অর্থ পানিতে পড়েনি। বাড়তি উপহারও থাকছে এর সঙ্গে।

৬৪ গিগাবাইট স্টোরেজের নোট ৭-এর সঙ্গে একটি ২৫৬ গিগাবাইটের মেমোরি কার্ড থাকছে। এটা দারুণ এক উপহার। আবার অনেকের মতে, নোট ৭-এর সফটওয়্যার মনোমুগ্ধকর কিছু নয়। কিন্তু প্রয়োজনের চেয়ে যথেষ্ট ভালো। আসলে কোনভাবেই এর সম্পর্কে নেতিবাচক কিছু বলার সুযোগ রাখেনি স্যামসাং। বিশেষজ্ঞ বলছেন, এর চেয়ে ভালো ফোন আর বানায়নি স্যামসাং।