• আজ বুধবার, ১৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ১ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

‘বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে তুরস্ক হস্তক্ষেপ করেনি’


❏ বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর – তুরস্ক বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেনি। তুরস্ক যেহেতু নিজের দেশে সর্বোচ্চ শাস্তির বিপক্ষে তাই নিজামীর ফাঁসির বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।

বাংলাদেশে নিয়োজিত তুরস্কের রাষ্টদূত ডেভরিম ওসতুর্ক মঙ্গলবার হোটেল ওয়েস্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন।

যুদ্ধাপরাধের বিচার বাংলাদেশের সম্পূর্ণ অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে মনে করেন তুরস্কের রাষ্ট্রদূত। তিনি বলেন, মৃত্যুদণ্ড নিয়ে প্রতিক্রিয়ায় ভ্রাতৃসুলভ আচরণ করেছে তুরস্ক।

তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থান পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে এ অভ্যুত্থান নিয়ে একটি ভিডিওচিত্র দেখানো হয়।

devrim-turusko

গত ১৫ জুলাই তুরস্কে সেনাবাহিনীর একটি অংশ অভ্যুত্থানের চেষ্টা চালায়। সাধারণ জনগণ সরকার ও সব গণতান্ত্রিক দলের ঐক্যের জন্য অভ্যুত্থান ব্যর্থ হয়ে যায়।

১৫ জুলাই সেনা অভুত্থানের পর তুরস্কের বোধোদয় হয়েছে বলে যুদ্ধাপরাধের বিচার নিয়ে এখন তার অবস্থান বদল করছে কিনা এমন প্রশ্নে রাষ্ট্রদূত বলেন, বিষয়টি এমন নয়। আমরা আমাদের মৃত্যুদণ্ডের বিপক্ষে রাষ্ট্রীয় অবস্থান থেকে একথা বলেছি।

অভ্যত্থান পরবর্তী সময়ে আবারো তুরস্কে মৃত্যুদণ্ড ফিরে আসার দাবি রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে করা হচ্ছে কি? -এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এ বিষয়টি এখনও দূর অস্ত। অভ্যুত্থানের মাত্র এক মাস হয়েছে। এখন জনগণ, সংসদ ও দেশের সকল মহলের সর্বসম্মতির প্রয়োজন পড়বে। তবেই এটি বদল হবে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অভ্যুত্থানে বিষয়ে নিন্দা জানান এবং বাংলাদেশের জনগণ তুরস্কের জনগণের পক্ষে সমর্থন জ্ঞাপন করে। এ জন্য আমি প্র্রধানমন্ত্রী ও জনগণকে ধন্যবাদ জানাই।

তিনি বলেন, শুধু জামায়াতের সঙ্গে আমার দেশের বিশেষ কোনো সম্পর্ক নেই। জামায়াত এ দেশে একটি বৈধ রাজনৈতিক দল। আর দশটা রাজনৈতিক দলের মতো জামায়াতকেও ‍তুরস্ক দেখে বলে জানান। বর্তমান সরকারের সঙ্গে এ নিয়ে কোনো প্রকার বিরোধ নেই বলেও জানান।

অভ্যুত্থানে সমর্থনকারী তুরস্কের অভিযুক্ত তিন কূটনীতিক বাংলাদেশ ছেড়ে কোথায় চলে গিয়েছেন এমন প্রশ্নে রাষ্ট্রদূত বলেন, ১৫ জুলাই তাদের বহিস্কার করা হলেও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ ছিল না। তাদের মধ্যে একজন দেশে ফিরে গেছেন। অন্য দুজন স্বামী-স্ত্রী। তাদের খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি।