🕓 সংবাদ শিরোনাম

শিশুকে ডায়াবিটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করবেনদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে তৈরি থাকার বার্তা দিল ”হু”বুড়িগঙ্গায় ’সাকার ফিশ’র দখলে, হুমকিতে দেশীয় মাছরোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির থেকে ধারালো অস্ত্রসহ আটক-৫করতোয়ার তীরে নিথর পড়ে ছিলো মস্তকহীন নবজাতক!গাজীপুরে দুই শিশুকে ‘হত্যার’ পর ফ্যানে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা মা’য়ের!ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ: জাহাজ চলাচল বন্ধ; সহস্রাধিক পর্যটক আটকা সেন্টমার্টিনেআখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো নীলফামারীর তিনদিন ব্যাপী ইজতেমাবঙ্গবন্ধুর শাসনব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করতে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রীর আহ্বানভোটে হেরে ক্ষোভ মেটাতে রাস্তায় বেড়া দিলেন প্রার্থী, ভোগান্তিতে পুরো গ্রাম!

  • আজ রবিবার, ২০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

সাপাহারে বৃষ্টির অভাবে আমন চাষাবাদ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা!


❏ শনিবার, আগস্ট ২০, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী

নয়ন বাবু, সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে বৃষ্টির অভাবে আমন চাষাবাদ মারাতœক ভাবে ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কায় কৃষককুল সঙ্কিত হয়ে পড়েছে।photo,sapahar,20-08-2016 (amon)

বর্ষার পর হঠাৎ করে দীর্ঘ দিন ধরে বৃষ্টির পানি ছেড়ে যাওয়ায় বরেন্দ্র অঞ্চল সাপাহারে আমন ধানের ক্ষেতগুলো শুকিয়ে মাটিতে ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে কোথাও কোথাও ধান গাছ পানির অভাবে লালচে বর্ণ ধারণ করেছে। আর দু-এক সপ্তাহ এলাকায় বৃষ্টি না হলে অধিকাংশ মাঠের ধান মাঠেই শুকিয়ে মরে যাবে বলে এলাকার অভিজ্ঞ কৃষকগন জানিয়েছেন। ইতো মধ্যে আমন চাষাবাদের এই সংকট মহুর্তে উপজেলার কৃষি বিভাগ ও বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের লোকবল সম্পুরক সেচের মাধ্যমে মাঠের মধ্যে অবস্থিত গভির নলকূপগুলি চালু করে কৃষকদের সেচ সহযোগীতা করে চলেছেন। অন্য দিকে বৃষ্টির পানি নির্ভর মাঠের আমন ক্ষেতগুলি একে বারেই শুকিয়ে অসংখ্য ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই যার যার সুবিধানুযায়ী অতিরিক্ত অর্থ খরচ করে আশে পাশের পুকুর ডোবা হতে নিজ নিজ জমিতে সেচ দিয়ে ধান গাছগুলিকে কোন রকমে বাঁচিয়ে রেখেছে। অনেকেই ধান রোপনের পরে বৃষ্টির অভাবে ক্ষেতে এখনও সার প্রয়োগ করতে পারেনি।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষন অফিসার আতাউর রহমান সেলিম জানান, তারা সাধ্যানুযায়ী কৃষকদের পাশে থেকে সম্পুরক সেচে তাদের সহযোগীতা করে চলেছেন। তবে বৃষ্টির পানি নির্ভর এলাকাগুলোতে মাঠের অবস্থা খুবই খারাপ আগামী দু-চার দিনের মধ্যে বৃষ্টি না হলে হয়তো ওই সমস্ত মাঠের ধান উৎপাদন মারাত্মক ভাবে ব্যহত হবে। উপজেলার কৃষককুল এখন বৃষ্টির জন্য আকাশপানে সৃষ্টিকর্তার অশেস রহমতের পানে চেয়ে রয়েছেন। আমন চাষাবাদের শুরুতে বর্ষার আকাশে প্রতিনিয়ত মৌসুমী বাতাস প্রবাহিত হলেও এখন সব সময় শুষ্কবাতাস প্রবাহিত হচ্ছে। ধান গাছ বেড়ে ওঠার ঠিক সময় মহুর্তে প্রাকৃতিকভাবে বড় ধরনের এই ধাক্কায় কিছুটা হলেও আমন চাষাবাদে উৎপাদন লক্ষমাত্রা হ্রাস পাবে বলে এলাকার কৃষককুল ও কৃষিবিভাগ জানিয়েছেন।