🕓 সংবাদ শিরোনাম

শিশুকে ডায়াবিটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করবেনদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে তৈরি থাকার বার্তা দিল ”হু”বুড়িগঙ্গায় ’সাকার ফিশ’র দখলে, হুমকিতে দেশীয় মাছরোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির থেকে ধারালো অস্ত্রসহ আটক-৫করতোয়ার তীরে নিথর পড়ে ছিলো মস্তকহীন নবজাতক!গাজীপুরে দুই শিশুকে ‘হত্যার’ পর ফ্যানে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা মা’য়ের!ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ: জাহাজ চলাচল বন্ধ; সহস্রাধিক পর্যটক আটকা সেন্টমার্টিনেআখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো নীলফামারীর তিনদিন ব্যাপী ইজতেমাবঙ্গবন্ধুর শাসনব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করতে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রীর আহ্বানভোটে হেরে ক্ষোভ মেটাতে রাস্তায় বেড়া দিলেন প্রার্থী, ভোগান্তিতে পুরো গ্রাম!

  • আজ রবিবার, ২০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

‘আইএসআই’র এজেন্ট হিসেবে জিয়া মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন’


❏ শনিবার, আগস্ট ২০, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর – বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে আইএসআই’র এজেন্ট উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন, আইএসআই’র এজেন্ট হিসেবে জিয়া মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন। ’৭৫ এর পরে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী যে কাজ তিনি করেছেন তাতে কোনোদিনও তিনি মুক্তিযোদ্ধা হতে পারেন না। তিনি যা করেছে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তা করতে পারেন না।

খাদ্য ভবন প্রাঙ্গণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে আজ শনিবার খাদ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। আলোচনা সভার আয়োজন করে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

কামরুল বলেন, জামায়াতের গর্ভ থেকে বিএনপির জন্ম। এজন্য খালেদা জিয়া কোনো অবস্থাতেই তাদেরকে ছাড়তে পারবে না। বিএনপি ৫০২ জনের কমিটি দিয়েছে, এর মধ্যে ৭১-এর ঘাতক, ৭৫-এর ঘাতকদের সন্তানরা স্থান পেয়েছে। তাদের পৃষ্ঠপোষক ঘাতকদের পরিবার পরিজনরা, তারাই অর্থের যোগান দিচ্ছেন।

food-minister-kamrul

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত জামায়াতকে নিয়ে যা করেছে তা গণতান্ত্রিক ছিল না। এই যে জঙ্গিবাদের বীজ, তা তারা ওই সময়েই বপণ করেছে। বাঘমারায় বাংলা ভাইয়ের উত্থান তারাই বলেছিল মিডিয়ার সৃষ্টি।

মন্ত্রী আরও বলেন, জঙ্গি নির্মূলে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। পৃষ্ঠপোষক হিসেবে বিএনপি আক্রান্ত হলে আমাদের কিছু করার নেই। বিএনপিকে হেনস্তা করার ইচ্ছা নাই, তবে জঙ্গি নির্মূলে তারা জড়িয়ে গেলে আমাদের করার কিছু নেই।

খাদ্যসচিব এ এম বদরুদ্দোজার সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন, খদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. আব্দুল ওয়াদুদ, সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফয়েজ আহমেদ প্রমুখ।