🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ নভেম্বর, ২০২১ ৷

দিনে-দুপুরে ফাঁকা গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ করে ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখম


❏ শনিবার, আগস্ট ২০, ২০১৬ Breaking News, ঢাকা, দেশের খবর

রেজাউল সরকার(আঁধার), গাজীপুর প্রতিনিধি : জেলার কালীগঞ্জে দিনে-দুপুরে পরিষদের সামনে বাহাদুরসাদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. শাহাবুদ্দিন আহমেদকে (৫২) এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করেছে সন্ত্রাসীরা। শনিবার দুপুরে উপজেলার বাশাইর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সন্ত্রাসীরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। যথা সময়ে থানা পুলিশের সহযোগীতা না পাওয়ার অভিযোগ আহত চেয়ারম্যানের।

আহত চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন গুরুতর রক্তাক্ত জখম অবস্থায় জানান, দুপুরের দিকে ওই ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামের নাজিম উদ্দিনের ছেলে ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের বহিস্কৃত আহ্বায়ক রুবেল (৩৫), নির্মল দাসের ছেলে এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত দাস (৩৬), মৃত আব্দুল ওহাবের গ্রামের ছেলে এবং যুবলীগের নেতা জাকারিয়া (৩৫), ও ইমরানসহ অজ্ঞাত আরো ১০/১২ জনের একটি সশস্ত্র সন্ত্রাসী দল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ঘুরাঘুরি করছিল। চেয়ারম্যান পরিষদ থেকে বেরিয়ে এসে তাদের কাছে এ অবস্থার কারণ জানতে চাইলে তারা চেয়ারম্যানকে কোপাতে তেড়ে আসে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি থানা পুলিশের সহযোগীতার জন্য ফোন করেন। কিন্তু ঘটনাস্থলে পুলিশ যেতে দেরি করায় সন্ত্রাসীরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় তার ডাক চিৎকারের বাশাইর বাজারের ব্যবসায়ী ও আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসতে চাইলে সুব্রত ও রুবেল কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা ভয়ে পালিয়ে যায়। পরে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে চলে গেলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। যেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন।

kupiye-jokhom

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক আশীষ কুমার বনিক সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, রোগীর হাতে, ঘাড়ে ও মাথায় মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানীর জাতীয় অর্থোপেটিক (পঙ্গু) হসপিটালে পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

স্থানীয় দলীয় একাধীক নেতা-কর্মী জানান, বাশাইর বাস্ট্যান্ড দখলকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীরা চেয়ারম্যানের উপর হামলা চালায়। তবে ওই সন্ত্রাসীরা দলের ছত্রছায়ায় থাকলেও বেশ কয়েকবার দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে তাদেরকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। অজ্ঞাত কারণে তারা পূনরায় দলে ভীরে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজী, টেন্ডারবাজী ও মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ তাদের বিরুদ্ধে স্থায়ী কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। যে কারণে স্থানীয় দলীয় অনেক নেতা-কর্মী ওই সন্ত্রাসীদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে।

সময় মত পুলিশ না পাঠানোর অভিযোগে কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ ইউপি চেয়ারম্যান আহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব ফোন করার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে ফোর্সসহ পুলিশ পাঠিয়েছি। তবে রাস্তা খারাপ যেতে একটুু বিলম্ব হতে পারে।