🕓 সংবাদ শিরোনাম

বাড়িতে লুকিয়ে রাখা ৪৭ ভরি স্বর্ণসহ তিন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ আটকফিরে দেখা; ইতিহাসে আজকে এই দিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা প্রবাহশীতে অপরূপ লাল শাপলার ডিবির হাওরময়মনসিংহ শহরের ভেতরেই রেলক্রসিং: প্রতিদিন ৮ ঘন্টা যানজটবিজয়ের ৫০ বছরে ওয়ালটন ল্যাপটপ ও এক্সেসরিজে ৫০% পর্যন্ত ছাড়মাইকিং করে ২গরু জবাই করল পরাজিত প্রার্থী, দাওয়াতে এলো না কেউ!সুনামগঞ্জে আফ্রিকা ফেরত প্রবাসীর বাড়িতে লাল পতাকাতদন্ত কর্মকর্তাসহ ৬৫ জনের সাক্ষ্য-জেরায় সাক্ষ্যপর্ব সমাপ্তবিকৃতমনা মাদ্রাসা শিক্ষকের লালসার শিকার অসহায় এক কিশোরের জবানবন্দী!বিদ্যুৎস্পৃষ্ট যুবককে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন গৃহবধূও

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে শংকায় দিন কাটাচ্ছেন হিন্দু পল্লীর ২৮টি পরিবার


❏ রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬ দেশের খবর, বরিশাল

কলাপাড়া প্রতিনিধি: কলাপাড়ার মিশ্রিপাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রাননাশের শংকায় দিন কাটছে হিন্দু পল্লীর ২৮টি পরিবারের প্রায় দেড় শতাধিক নারী-পুরুষ-শিশুর। এসব পরিবারের অনেক সদ্যসের বাসা-বাড়ী থেকে বেড় হওয়া বন্ধ হয়ে গেছে এমন অভিযোগ রয়েছে।

SAMSUNG CAMERA PICTURES

SAMSUNG CAMERA PICTURES

সুনীল চন্দ্র শীল জানান, মনোহর হালদারের কাছ থেকে তিনি একসনা চাষের জন্য দেড় একর জমি নিয়েছেন। স্থানীয় অকবর দপ্তরী, তার ছেলে রাকিব ও সাব্বিরের প্রত্যক্ষ প্ররোচনায় রাখাইন ইউচু, এলাসে, ব্লুমসে, বাথেন, লইসে জমির মালিকানা দাবী করেসেই জমিতে চাষাবাদ করতে গেলে বাঁধা দেয়। তিনি আরও জানান, ভবিষ্যতে এ জমিতে হাল ধরতে গেলে প্রানে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করা হয়। প্রতিবেশী সজ্ঞয় অক্ষেপ করে জানান, আকবর দপ্তরীকে বাড়ীতে প্রবেশের জন্য তার বাড়ির পাশ থেকে হাটার রাস্তা হয়েছে। এখন সে জমি তার দাবী করে তাকে বাড়ীর ভিতর সবজি পর্যন্ত চাষ করতে দিচ্ছেনা। আকুল বালা(৫০)জানান, তার বর্গা চাষের জমিতে গরু বানতে গেলে তাকে মারধর করা হয়।

নিখিল শীলসহ স্থানীয় অনেকেই বলেন, এই বিরোধের জের ধরে হামলা চালিয়ে প্রদীপ ও বিনয়কে আহত করা হয়েছে। তারা বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি। সুনীল শীলের স্ত্রী কৃষ্ণা রানী বলেন, শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক তিনটার দিকে তার রান্নাঘর ও খরকুটার কুড়ে আগুন দেয় দৃর্বত্তরা। প্রতিবেশীদের সহায়তায় সে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার ফলে সে তার সন্তানদের নিয়ে প্রানে রক্ষা পায়।

মনোহর হালদার বলেন, ১৯৪৯ সালে রাখাইনদের কাছ জমি ক্রয় করেন গোপাল রায়। তার থেকে দু’বার বার হাত বদলের পর ১৯৯৩ সনে এই জমি তিনি ক্রয় করেন। কিন্তু স্থানীয় একটি কুচক্রী মহলের প্ররোচনায় সেই রাখাইনের ওয়ারিশ দাবি করে তাকে হালচাষে বাঁধাসহ প্রাননাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। বিষয়টি পটুয়াখালী পুলিশ সুপার বরাবরে অভিযোগ আকারে দেয়া আছে। এছাড়াও জমিতে আলদতের সাত ধারা বহাল আছে। তিনি আরো বলেন, ওয়ারিশ দাবীদার রাখাইনদের কাছ থেকে তিনি ৬৬ শতক জমি ক্রয় করেন। যা এখনও তাকে বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এ জমি বুঝ না দেয়ার জন্য বিভিন্ন সমস্যা তৈরি হামলা-মামলা দিচ্ছে।

এ বিষয়ে কথা হলে সাব্বির জানান, মানবিক দিক বিবেচনায় সজ্ঞয় রাস্তা দিয়েছেন। সে জমি নিজেদের দাবী করছিনা। আর জমি নিয়ে এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা ভংগ কেউ করতে পারেনা। যার কাজজের সত্যতা আছে তিনি জমি ভোগ দখল করবেন।

মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাকসুদ জানান, আভিযোগ আছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।