• আজ সোমবার, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৬ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

৩১ ঘন্টা পর নিয়ন্ত্রনে ট্রপিক্যাল নিটেক্সের আগুন


❏ রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

আলমগীর হোসেন, কালিয়াকৈর প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় মন্ডল গ্রুপের ট্রপিক্যাল নিটেক্স লিমিটেড পোশাক কারখানার আগুন ৩১ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আজ রবিবার সকাল ৮টার দিকে কালিয়াকৈর, ঢাকা, জয়দেবপুর, টঙ্গী, সাভার, ইপিজেড ও টাঙ্গাইলের মির্জাপুর ফায়ার সার্ভিসের মোট ২০টি ইউনিটের নিরলস প্রচেষ্টায় আগুন সর্ম্পূণ নিয়ন্ত্রণে আসে।

domkol

ফায়ার সার্ভিস, কারখানা কর্তৃপক্ষ ও শ্রমিক সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দিবাগত রাত ১২.৫৫ মিনিটে ৬তলা ভবনের ওই কারখানার ৩য় তলায় সুতার গোডাউন থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। কারখানার শ্রমিকরা নিজস্ব ব্যবস্থায় আগুন নেভানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে মুহুর্তের মধ্যে আগুন পুরো ফ্লোরে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনের তীব্রতা বাড়তে থাকলে প্রথমে কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌছে আগুন নেভানোর চেষ্টা চালায়। আগুনের তীব্রতা বাড়তে থাকে এবং ওই ভবনের ৪র্থ তলার কাটিং সেকশনে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে পুরোপুরি আগুন ফায়ার সার্ভিসের বাইরে চলে যায় এবং পরবর্তীতে জয়দেবপুর, সাভার, টঙ্গী, মির্জাপুর, ডিইপিজেটসহ ফায়ার সার্ভিসের আরো ১৯টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজে যোগ দেয়।

ভোর ৫টার দিকে আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসলেও পরবর্তীতে ওই ভবনের অপর একটি ফ্লোরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে এবং আগুনের লেলিহান শিখা পুরো ফ্লোরে ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তর সহ বিভিন্ন এলাকার ইউনিটের দমকলকর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায়। কিন্তু এর তীব্রতা ও ভয়াবহতার কারণে দমকলকর্মীরা ফ্লোরে প্রবেশ করতে না পারায় তা নিয়ন্ত্রণে ব্যঘাত ঘটে। পরে ফায়ার সার্ভিসের হেড অফিস থেকে দুপুর সোয়া ২টার দিকে দুটি ‘দি লাইফ সেভিং ফোর্স’ আগুন নিয়ন্ত্রণে অংশ নেয়। এতেও রাত ১২টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস।

এরই মধ্যে আগুনের তীব্রতার কারণে ৪র্থ তলার কয়েকটি ফ্লোর ধ্বসে পড়েছে এবং ধ্বসে পড়া ফ্লোরে থাকা ফেব্রিক্সে আগুণ ধরে গিয়ে আগুনের তীব্রতা আরো বাড়তে থাকে। এছাড়া দূর্ঘটনা কবলিত ওই বিল্ডিং এ ফাটল দেখা দিয়েছে। অনেকেই আশংকা করছেন বিল্ডিংটি ধ্বসে পড়তে পারে।

কারখানার ম্যানেজার (এডমিন) মোঃ রিপন হোসেন সংবাদকর্মীদের জানান, এ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় তাদের বিপুল পরিমাণ সুতা, ফেব্রিক্স, মেশিনারিজসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র পুড়ে গেছে। কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সে ব্যপারে এই মূহুর্তে সঠিকভাবে বলা যাচ্ছেনা। তবে আগুনে কারখানার ১৮ কোটি টাকার সুতা এবং ফেব্রিক্স, শিপমেন্টের মালামাল, কার্টন, প্রিন্টিং মেশিনসহ বিভিন্ন মালামাল পুড়ে গেছে বলে দাবি করেছেন কারখানা কর্তৃপক্ষ।

ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর পলাশ চন্দ্র মোদক জানান, গাজীপুরে ট্রপিক্যাল নিটেক্স লিমিটেড পোশাক কারখানায় আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট কর্মীরা কাজ করে। আজ রবিবার সকাল ৮টার দিকে প্রায় ৩১ ঘণ্টা পর আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, বৈদ্যুতিক শটসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। শুক্রবার কারখানা কাটিং এবং সুইং সেকশন বন্ধ থাকায় অগ্নিকান্ডের সময় ওই ফ্লোর দুটিতে কোনো শ্রমিক ছিলো না।

এদিকে, ট্রপিক্যাল নিটেক্স কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ রাহেনুল ইসলামকে প্রধান করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন, শ্রম অধিদপ্তরের সচিব ও কারখানা পরিদর্শক মোঃ ফরিদ উদ্দিন, ফায়ার সার্ভিসের ডিএডি, ইন্ডাষ্ট্রিায়াল পুলিশের পরিচালক/প্রতিনিধি এবং দূর্ঘটনা কবলিত কারখানার একজন প্রতিনিধি।