🕓 সংবাদ শিরোনাম

ফিরে দেখা, ১৯৭১- ‘মুক্তিযুদ্ধের এই দিনে’দু’সপ্তাহের মধ্যেই শিশুদের কোভিড টিকাকরণ, সিদ্ধান্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নেবাড়িতে লুকিয়ে রাখা ৪৭ ভরি স্বর্ণসহ তিন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ আটকফিরে দেখা; ইতিহাসে আজকে এই দিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা প্রবাহশীতে অপরূপ লাল শাপলার ডিবির হাওরময়মনসিংহ শহরের ভেতরেই রেলক্রসিং: প্রতিদিন ৮ ঘন্টা যানজটবিজয়ের ৫০ বছরে ওয়ালটন ল্যাপটপ ও এক্সেসরিজে ৫০% পর্যন্ত ছাড়মাইকিং করে ২গরু জবাই করল পরাজিত প্রার্থী, দাওয়াতে এলো না কেউ!সুনামগঞ্জে আফ্রিকা ফেরত প্রবাসীর বাড়িতে লাল পতাকাতদন্ত কর্মকর্তাসহ ৬৫ জনের সাক্ষ্য-জেরায় সাক্ষ্যপর্ব সমাপ্ত

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

হাসপাতালে যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে নির্মম নির্যাতনের শিকার গৃহবধু মরিয়ম


❏ রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফরহাদ আকন্দ, গাইবান্ধা প্রতিনিধি: দেবর-ননদ, শ্বশুড় ও শ্বাশুড়ীর হাতে নির্যাতনের শিকার গৃহবঁধু মরিয়ম বেগম (২৬) গত ছয় দিন থেকে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাতরাচ্ছে। নির্যাতনকারীদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি তার একমাত্র শিশু পুত্র মাহফুজ (৬)। তাকেও সাদুল্যাপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।FORHAD AKONDO GAIBANDHA

গত সোমবার (১৫ আগষ্ট) গাইবান্ধার উপজেলার জয়েনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি অনেক ভাবেই ধামা চাপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। ১৯ আগষ্ট রাতে সাদুল্যাপুর থানায় মরিয়ম বেগম বাদি হয়ে মামলা দায়েরের পর বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকরা জানতে পারে। পুলিশ ওই রাতেই গৃহবধু মরিয়মের শ্বশুর সিরাজুল ইসলাম (৫৮) কে আটক করে।

মরিয়ম বেগম গাইবান্ধা সদর থানার কুপতলা ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামের আব্দুল মজিদ মিয়ার মেয়ে।

জানা যায়, বিয়ের পর থেকেই মরিয়মের স্বামীকে স্ত্রী তালাক দেয়ার জন্য শ্বশুর, শ্বাশুড়ী, দেবর ও ননদরা প্রায় চাপাচাপি করতো। কিন্তু তার স্বামী বিষয়টি মোটেই গুরুত্ব দিতনা। ঘটনার দিন সোমবার (১৫ আগষ্ট) দুপুর ১২টার দিকে নিজ বাড়ীর পালিত একটি গাভীর বাছুর নিয়ে ঝগড়ার সূত্র ধরে শ্বশুর, শ্বাশুড়ী, খালা শ্বাশুড়ী, দেবর, ভাসুর ও ননদরা মিলে তাকে গাছের ডাল ও রড দিয়ে বেদম প্রহার করে। এতে মরিয়ম জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এসময় তার একমাত্র শিশু পুত্র মাহফুজ এগিয়ে গিয়ে চিৎকার করলে তার ছোট চাচা রনি মিয়া শিশুটির মুখে ঘাস ঢুকিয়ে দিয়ে ডোবার পানিতে চুুবিয়ে মারার চেষ্টা করে।

সাদুল্যাপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৯ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন মরিয়ম বেগম বলেন, এসময় তার স্বামী রইচ উদ্দিনকে ঘরের দরজায় তালা দিয়ে আটক রাখা হয়।

রইচ উদ্দিন জানান, হৈ চৈ শুনে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে তাদের সহায়তায় তিনি তার স্ত্রী ও সন্তানকে সাদুল্যাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

সাদুল্যাপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ হারুনুর রশিদ জানান, মরিয়ম বেগমের হাটুর উপর থেকে সমস্ত শরীরে মারাত্মক জখম হয়েছে। সেরে উঠতে বেশ কিছুদিন লাগবে।

সাদুল্যাপুর থানা (ওসি) ফরহাদ ইমরুল কায়েস বিষয়টি নিশ্চি করে জানান, মানুষ পশুকেও এমনভাবে পিটায় না। গৃহবধুর শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিটের গুরুতর জখম আছে। তিনি আরো জানান, মামলার পর পরই রাতেই এক অসামীকে আটক করা হয়েছে। বাকী আসামীদের আটকের চেষ্টা অব্যাহত আছে।