🕓 সংবাদ শিরোনাম

ফিরে দেখা, ১৯৭১- ‘মুক্তিযুদ্ধের এই দিনে’দু’সপ্তাহের মধ্যেই শিশুদের কোভিড টিকাকরণ, সিদ্ধান্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নেবাড়িতে লুকিয়ে রাখা ৪৭ ভরি স্বর্ণসহ তিন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ আটকফিরে দেখা; ইতিহাসে আজকে এই দিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা প্রবাহশীতে অপরূপ লাল শাপলার ডিবির হাওরময়মনসিংহ শহরের ভেতরেই রেলক্রসিং: প্রতিদিন ৮ ঘন্টা যানজটবিজয়ের ৫০ বছরে ওয়ালটন ল্যাপটপ ও এক্সেসরিজে ৫০% পর্যন্ত ছাড়মাইকিং করে ২গরু জবাই করল পরাজিত প্রার্থী, দাওয়াতে এলো না কেউ!সুনামগঞ্জে আফ্রিকা ফেরত প্রবাসীর বাড়িতে লাল পতাকাতদন্ত কর্মকর্তাসহ ৬৫ জনের সাক্ষ্য-জেরায় সাক্ষ্যপর্ব সমাপ্ত

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

২১শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে গাইবান্ধায় শহর আ’লীগের সমাবেশ


❏ রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬ রংপুর

গাইবান্ধা থেকে আঃ খালেক মন্ডলঃ
জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে রোববার বিকেলে গাইবান্ধা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে আওয়ামী লীগ শহর কমিটির উদ্যোগে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলনের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি।

21অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি রেজাউল করিম রেজা, সাধারণ সম্পাদক আমিনুর জামান রিংকু, মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদুল হক শাহজাদা, সাইফুল আলম সাকা, মৃদুল মোস্তাফিজ ঝন্টু, মাহমুদা বেগম পারুল, মিজানুর রহমান পাখি, তানজিমুল ইসলাম জামিল, সিরাজুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান হাসু, শহীদ আহমেদ, সরদার মো. শাহীদ হাসান লোটন, শাহ আহসান হাবীব রাজিব, আনোয়ারুল কবির সজল, তানভির রায়হান তুহিন, ইউসুফ আলী জোয়ারদার, রাহাত মাহমুদ রনি প্রমুখ।

গাইবান্ধায় বাঁশজাত কুটির শিল্প কর্মে নিয়োজিত পেশাদার কারিগররা দুর্ভোগের কবলেঃ বিলুপ্ত প্রায়  বাঁশজাত কুটির শিল্প 

গাইবান্ধার বাঁশজাত কুটির শিল্প এখন বিলুপ্তপ্রায়। ফলে এ শিল্পকর্মে নিয়োজিত প্রায় সাড়ে ৫ হাজার পেশাদার কারিগর এখন চরম দুর্ভোগের শিকার। জীবন জীবিকার প্রয়োজনে তারা তাদের পৈত্রিক পেশাও ছাড়তে পারছে না, আবার এ পেশা আঁকড়ে ধরে খেয়ে পরে বেঁচে থাকাও দুস্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

basবাঁশজাত শিল্পকর্মের মধ্যে ডালি, কুলা, চালুন, ঝাঁপি, দোলনাসহ নানা নকশি শো-পিস ক্রেতাদের কাছে জনপ্রিয়। তারপরও বাঁশের তৈরী চাটাই, নকশি করা ঘরের ছাদ, ঝাটা শলাসহ গৃহস্থালী কাজে ব্যবহার্য জিনিসের এখনও যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। কিন্তু পরিবেশগত ভারসাম্যহীনতায় এবং অবাধ বৃক্ষনিধনের মাধ্যমে বনাঞ্চল উজাড় হয়ে যাওয়ায় জেলায় ব্যাপক হারে বাঁশঝাড়ও বিলুপ্ত হয়ে গেছে।
এছাড়া তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদী তীরবর্তী এলাকায় ইতোপূর্বে প্রচুর বাঁশ বন থাকলেও অব্যাহত নদী ভাঙনে বাঁশঝাড়ের সবচাইতে বেশি ক্ষতি হয়েছে। ফলে বাঁশ প্রধান এ অঞ্চলে এখন বাঁশের সংকট। সে জন্য বাঁশজাত শিল্পকর্মের জন্য প্রয়োজনীয় বাঁশের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির কারণে উৎপাদন ব্যয় বহুলাংশে বাড়লেও আনুপাতিক হারে বিক্রয় মুল্য বাড়েনি। কারণ বাঁশজাত কুটিরশিল্পে নিয়োজিত হত দরিদ্র ভাঙন কবলিত ছিন্নমুল মানুষ জীবন জীবিকার তাগিদে নারী পুরুষ উভয়েই শ্রমে নিয়োজিত হতে বাধ্য হচ্ছেন।
সেজন্য জেলার বাঁশজাত কুটির শিল্পে নিয়োজিত দরিদ্র পাটনী পরিবারগুলোকে সহজ শর্তে জামানতবিহীন ঋণ সহায়তা প্রদান করা হলে

এই কুটির শিল্প যেমন বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা পেত। তেমনি বাঁশজাত শিল্পর কারিগররা পৈত্রিক পেশাকে উপজীব্য করে জীবন জীবিকা চালিয়ে নিতে সক্ষম হতো।

সাঘাটায় ১‘শ মিটার সড়কের জন্য
২০ হাজার মানুষ দুর্ভোগের শিকার

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া প্রায় ১‘শ মিটার পাকা সড়কের জন্য ২০ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগের কবলে পড়েছে। জুমারবাড়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে হলদিয়া ইউনিয়নের নলছিয়া গ্রাম পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার সড়কের কাঠুর গ্রাম সংলগ্ন এলাকায় এই সমস্যা দেখা দিয়েছে।
জানা গেছে, ওই এলাকায় বন্যার প্রবল পানির প্রবল চাপে ওই পাকা সড়কটি কাঠুর নামক স্থানে ১শ’ মিটার অংশ ভেঙ্গে যায় এবং ওই স্থানে ৮ থেকে ১০ ফুট গভীর খাদের সৃষ্টি হয়। কিন্তু ভাঙ্গন কবলিত স্থানটি পুনঃ নির্মাণের আজও উদ্যোগ নেয়া হয়নি। বালির বস্তা ফেলে ভাঙ্গন ঠেকানোর চেষ্টা করা হলেও যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হয়নি। বন্যার পানির শুকিয়ে যাওয়ার পর ভেঙ্গে যাওয়া স্থানটি পুন:নির্মাণ না করায় যানবাহন চলাচল করতে না পারায় মালামাল পরিবহনে চরম বিপাকে পড়েছে মানুষ।
roadজুমারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রোস্তম আলী জানান, হলদিয়া ও জুমারবাড়ী ইউনিয়নের মানুষের যোগাযোগের একমাত্র পথ এ সড়কটি। কিন্তু নলছিয়ার কাঠুর এলাকার রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপন্ন হয়ে পড়েছে। তবে বালির বস্তা ফেলে দেয়ার পর পথচারিদের চলাচল করা সম্ভব হলেও যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।
সাঘাটা উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) সাবিউল ইসলাম জানান, জনদুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে ভেঙ্গে যাওয়া স্থানটি দ্রুত পুন:নির্মাণের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

গাইবান্ধায় হাট-বাজারে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে। হাতি শুর পেঁপিয়ে চাঁদা দাবি করে। ফলে হাতির ভয়ে রাস্তায় যানবাহনের চালকরা, দোকান মালিকরা চাঁদা দিতে বাধ্য হয়। এ এক নতুন উপদ্রপ। এর আগে গাইবান্ধা শহর এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধে ওই হাতিটিকে রাখা হয়েছিল। পার্শ্ববর্তী এলাকার কলার গাছগুলো হাতির খাবার সাবার করে ফেলা হয়েছে।
উপজেলার বোনারপাড়া কলেজ মোড় বাজার সহ বিভিন্ন হাট-বাজারে শনিবার দোকানিরা হাতিকে ১০ থেকে ২০ টাকা চাঁদা দিতে বাধ্য হয়েছে। শুধু চাঁদাই নয়, পথচারীরা তার গর্জনে ভয়ে আতংকিত হয়ে পড়তে দেখা গেছে। তবে বগুড়া জেলার মহাস্থান এলাকার জনৈক মেহেদী ‘সুন্দরমালা’ নামের হাতির পরিচালক হাতির খাবার সংগ্রহ অজুহাতে হাতে হাতিকে দিয়ে এই চাঁদাবাজি শুরু করেছে। এছাড়া সে গ্রামে-গঞ্জের কলারগাছগুলো হাতির খাদ্য হিসেবে নিচ্ছে।
হাতির পরিচালক মেহেদী জানান, এভাবেই আমরা হাতি ও আমাদের খাওয়া খরচ চালাই। যে হাট-বাজার এলাকায় হাতি যায় সেখানেই মানুষের সমাগম ঘটে এবং বিনা পয়সায় তাদের বিনোদন ও হাতি দেখার সুযোগ করে দিতেই তিনি এ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন
গাইবান্ধায় ২৫টি ইবতেদায়ী মাদরাসায়
৩২ বছর ধরে বেতন ভাতা নেই

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার ২৫টি ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষকদের ৩২ বছর ধরে কোন সরকারি বেতন ভাতা পাচ্ছে না। অথচ ওই ইবতেদায়ি মাদরাসাগুলোকে এমপিওভূক্ত করা হয়নি। মাদরাসা কর্তৃপক্ষ স্থানীয় সাহায্য সহযোগিতার উপর নির্ভর করেই এই মাদরাসাগুলো পরিচালনা করছে। দীর্ঘদিন বেতন না পেয়ে এসব ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক এমপিওভূক্তির আশায় এখন মানববেতর জীবন যাপন করছেন।
জানাগেছে, এই উপজেলায় ২৫টি ইবতেদায়ী মাদরাসা ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং প্রথম শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত তাদের শিক্ষা দেয়া হয়। কিছু কিছু মাদ্ররাসার মাদরাসা ঘর প্রয়োজনীয় সংস্কার না করায় খোলা আকাশের নিচে তাদের পাঠদান করতে হচ্ছে। উপজেলার জুমারবাড়ী ইউনিয়নের থৈকরেরপাড়া আশরাফুল উলুম স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা, কৈচরা ইবতেদায়ী মাদরাসা, শাহ বাজের পাড়া ইবতেদায়ী মাদরাসা, আমদির পাড়া ইবতেদায়ী মাদরাসা, পশ্চিম পবনতাইড় ইবতেদায়ী মাদরাসা ও হেলেঞ্চাসহ ২৫টি ইবতেদায়ী মাদরাসার লেখাপড়ার মান অত্যন্ত ভাল। এই ২৫টি ইবতেদায়ী মাদরাসায় ১২৫ জন শিক্ষক শিক্ষিকা অব্যাহত থেকে পাঠদান করাচ্ছেন দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে। থৈকরেরপাড়া আশরাফুল উলুম স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম এ সমস্ত ইবতেদায়ি মাদরাসাগুলোক এমপিওভূক্তির দাবি জানিয়েছেন।

যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল : তারাই বঙ্গবন্ধু’র কন্যা
শেখ হাসিনাকে হত্যার করতে চায়
— আবু বকর প্রধান

যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। তারাই বঙ্গবন্ধু’র কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। সেজন্যই ২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়ে ছিল। সেদিন হামলাকারীদের উদ্দেশ্য সফল হয়নি। ওইদিন শেখ হাসিনা আল্লাহর রহমতে বেঁচে যান। সকলকে আওয়ামীলীগের পতাকাতলে সংঘবদ্ধ হয়ে ওইসব হামলাকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্ছার হতে হবে। গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে রোববার বিকেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ২১ আগষ্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভায় উপরোক্ত কথা বলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবু বকর প্রধান। abu-bokkorতিনি আরো বলেন, ২১ আগষ্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাদশা, সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ শামিকুল ইসলাম সরকার লিপন জাসদ সভাপতি নুরুজ্জামান প্রধান, জেলা শ্রমিকলীগ সাধারণ সম্পাদক শুধাংশু কুমার রায়, উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি ও মহদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম মন্ডল, যুবলীগ সহ-সভাপতি নির্মল মিত্র, আবু মুসা প্রধান সুমন, শ্রমিকলীগ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সাবুসহ আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সভাটি সঞ্চালন করেন, উপজেলা শ্রমিকলীগ সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুজ্জামান প্রান্ত। শেষে গ্রেনেড হামলায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পেশ ইমাম মোস্তাফিজার রহমান রাজা।

সুন্দরগঞ্জে দুঃস্থ্যদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)’র উদ্যোগে ২”শ ৫০ দুঃস্থ্যর মাঝে চাল, ডাল, ঔষধসহ বিনামুল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়েছে। রোববার বিকেলে উপজেলার রামজীবন ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ইউনিয়নের এসব দুঃস্থ্যদেরকে ২ কেজি করে চাল, আধা কেজি করে ডালসহ খাবার স্যালাইন, ট্যাবলেট এবং রোগীদেরকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন গাইবান্ধা জেলা বাসদের সমন্বয়ক- গোলাম রব্বানী, সদস্য-সুকুমার, উপজেলা বাসদের সমন্বয়ক- আবু বকর ছিদ্দিকসহ বাসদের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।

সুন্দরগঞ্জে বন্যায় কৃষি খাতে ১০ কোটি টাকার ক্ষতি

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বন্যায় কৃষি খাতে ১০ কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, এবারের বন্য উপজেলায় ৭’শ ৭৪ হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট হয়েছে। এসব ফসলের মধ্যে বীজতলা, রোপা আমণ, আউশ ধান, শাক-সবজি নানান জাতের মশলা জাতীয় ফসল। এতে ১০ কোটির টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে বলে উপজেলা কৃষি অফিসার-কৃষিবীদ রাশেদুল ইসলাম জানান। পৌরসভাসহ ১৫ ইউনিয়নের মধ্যে তিস্তা নদী বেষ্টিত তারাপুর, বেলকা, হরিপুর, কঞ্চিবাড়ি, শ্রীপুর, চন্ডিপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নে এসব ক্ষতি হওয়ায় তা পুষিয়ে নেয়ার জন্য বন্যা পরবর্তীতে কৃষকদেরকে নানাভাবে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে।