🕓 সংবাদ শিরোনাম

শিশুকে ডায়াবিটিস থেকে দূরে রাখতে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করবেনদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে তৈরি থাকার বার্তা দিল ”হু”বুড়িগঙ্গায় ’সাকার ফিশ’র দখলে, হুমকিতে দেশীয় মাছরোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির থেকে ধারালো অস্ত্রসহ আটক-৫করতোয়ার তীরে নিথর পড়ে ছিলো মস্তকহীন নবজাতক!গাজীপুরে দুই শিশুকে ‘হত্যার’ পর ফ্যানে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা মা’য়ের!ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ: জাহাজ চলাচল বন্ধ; সহস্রাধিক পর্যটক আটকা সেন্টমার্টিনেআখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো নীলফামারীর তিনদিন ব্যাপী ইজতেমাবঙ্গবন্ধুর শাসনব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করতে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রীর আহ্বানভোটে হেরে ক্ষোভ মেটাতে রাস্তায় বেড়া দিলেন প্রার্থী, ভোগান্তিতে পুরো গ্রাম!

  • আজ রবিবার, ২০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ৷

আশুলিয়ায় ট্রাফিক ইন্সপেক্টর মদ্যপান করে ভাংচুর, যাত্রীদেরকে পিটুনী


❏ রবিবার, আগস্ট ২১, ২০১৬ অপরাধ, ঢাকা, দেশের খবর, স্পট লাইট

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার- আশুলিয়ায় বাইপাইল এলাকায় প্রতিনিয়তই নাকি মদ্যপান করে মাতাল হয়ে লঙ্কাকা বাঁধিয়ে থাকেন ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর মো.জামান।

আশুলিয়ার নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে দায়িত্ব পালনকারী ট্রাফিক পুলিশের এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভুড়ি ভুড়ি অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। মদ্যপান করে কখনও চাঁদা দাবী করেন, কখনও পরিবহন শ্রমিকদের বেধরক মারধর করেন। এমনকি তার মাতলামির শিকার হয়ে এভাবেই অকারণে বেধরক পিটুনী দিয়ে আহত করেছে ১০ সাধারন যাত্রীদেরকেও।unnamedশনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকেও মদ্যপানরত অবস্থায় আশুলিয়ার বাইপাইলস্থ ট্রাফিক পুলিশ বক্সের সামনে এসে টিআই জামান তুলকালাম কা- ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসময় করিম সুপার মার্কেটের সামনে দাড় করিয়ে রাখা আশুলিয়া ক্ল্যাসিক পরিবহন নামের দুটি স্থানীয় পরিবহনে অকারণে ভাংচুর করেন তিনি।

ভেঙ্গে দেন জানালার কাঁচ, হেডলাইট ও ব্যাকলাইট। এতে পরিবহনটির অসহায় শ্রমিকরা এগিয়ে এসে বাঁধা দিলে তাদেরকে বেধরক পিটিয়ে আহত করেন তিনি। এসময় সেখানে দাড়িয়ে থাকা বেশ কয়েকটি স্থানীয় পরিবহনেও তিনি ভাংচুর চালান। পরে টিআই সাহেবের বেগতিক ভাব দেখে সেখান থেকে পালিয়ে যায় পরিবহনটির শ্রমিকরা।

আশুলিয়া ক্ল্যাসিক পরিবহনের কন্ডাক্টর আপন বলেন, ‘এর আগেও টিআই জামান অনেক বার মদ খেয়ে বাইপাইল স্ট্যান্ডে এসে মারধর ও গাড়ীতে ভাংচুর করেছেন। কিন্তু ওনারা তো বড় মানুষ, পুলিশ। তাই তাদের অপরাধ দেখার কেউ নাই। ওনারা কারণে-অকারণে মারবে, আর আমরা মুখ বুঝে সয়ে গাড়ি চালাবো। গতকাল রাতেও তিনি আমাদের গাড়ীতে অকারণে ভাংচুর করেছেন। আমাদের বেধরক পিটিয়েছেন। এমনকি দোকানদার, পথচারী ও যাত্রীদেরকেও তিনি অহেতুক পিটিয়ে আহত করেছেন।’

কুলসুম বেগম নামে এক চা দোকানী জানান, গত রাতে মদ্যপান করে তার দোকানের কাস্টমারদের হঠাৎ মারধর শুরু করেন টিআই জামান। এসময় তাকেও দোকান বন্ধ করতে বলে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ দিতে থাকেন তিনি। পরে সামনে যাকেই পেয়েছেন যাত্রী থেকে শুরু করে পথচারী ও পরিবহন শ্রমিক অনেককেই মাতাল অবস্থায় পেটাতে থাকেন তিনি। এমন বেগতিক অবস্থা পুলিশের একটি গাড়ি এসে তাকে সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শনিবার রাতে টিআই জামান মূলত মদ্যপান করে তার বিশ্বস্ত অনুচর সোহেলকে যারা চাঁদা দিতে রাজি হয়নি তাদের খুঁজছিলেন। সোহেল নামের এই ব্যক্তিই টিআই জামানকে স্ট্যান্ডের পরিবহন থেকে চাঁদা তুলে দেয় বলে অভিযোগ করেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভুক্তভোগী। গত দুই মাস আগেও টিআই জামান বাইপাইলের মোল্ল্যা নামে একটি ছোট্ট খাবার হোটেলে মদ্যপানরত অবস্থায় ফ্রিজ ও জিনিসপত্রে ভাংচুর চালান। যা পরবর্তীতে দেশের পত্রিকায় প্রকাশও হয়েছে। কিন্তু এরপরও মদ্যপান করে বেপরোয়া স্বভাব টিকিয়ে রেখেছেন তিনি। প্রতিনিয়তই কাউকে না কাউকেই তার অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে মুখ বুঝেই।

তবে এতসব অভিযোগের ব্যাপারে নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর মো. জামানের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

এব্যাপারে সাভার ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ টিআই ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘ আমি ব্যাপারটি শুনেছি। ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষ রয়েছে। তবে টিআই জামানের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীদের আনা অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।