• আজ সোমবার, ৩ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

দুধকুমর নদের পেটে বসতভিটা : শতাধিক পরিবার গৃহহীন


❏ সোমবার, আগস্ট ২২, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম সদরের ঘোগাদহ ইউনিয়নের ভৈষেরকুটি, খামার রসুলপুর ও ব্রক্ষ্মত্তর গ্রামের শতাধিক পরিবারের বসত ভিটা দুধকুমর নদের ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে। গত এক মাস আগে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর নদের তীব্র ভাঙ্গনে গ্রাম তিনটির শতাধিক পরিবার তাদের বসতভিটা হারিয়ে এখন ওয়াপদা বাধেঁ ও রাস্তার পাশে কোন রকমে আশ্রয় নিয়েছে। ওই গ্রামের ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ মোজাহার আলী মিজানুর, মনছার আলী ও আলমগীর জানান, তারা সর্বনাশা ভাঙনে ভিটামাটি হারিয়ে নিঃম্ব হয়ে পড়েছে।

kumarkhali-nod

কুড়িগ্রাম সদর উপজেরার ঘোগাদহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন আলম জানান, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর ইউনিয়নের ভৈষেরকুটি, খামার রসুলপুর ও ব্রক্ষ্মত্তর গ্রামে দুধকুমর নদের ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। ইতিমধ্যে শত শত একর আবাদি জমি ও শতাধিক বসতবাড়ি নদী গ্রাস করে নিয়েছে। নদী ভাঙ্গন রোধে আমরা প্রধান মন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত ভাবে আবেদন করেছি। তবে এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এলাকার মানুষ ক্ষুদ্ধ হয়েছে। ১০৭টি ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের নাম উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে পাঠিয়েছেন বলে তিনি জানান।

চেয়ারম্যান আরো জানালেন, দুধকুমর নদ বর্তমানে ঘোগাদহ ইউপি প্রতিরক্ষা বাঁধ থেকে মাত্র ২০ ফিট দুরে অবস্থান করছে। ফলে বাঁধের পাশে শতাধিক পরিবার ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে। ওই গ্রামের মনির হোসেন, শামসুল হক, আব্দুল মান্নান, কছিমউদ্দিন, মোশারফ হোসেন, এখলাছ উদ্দিন ও সাইদুল ও আজিমসহ মাঝিপাড়া গ্রামের অর্ধশতাধিক পরিবার ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে। এরা পর্যায়ক্রমে বাড়িভিটা সরানোর কাজ করছে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, জরুরী কাজের আওতায় ভাঙন কবলিত এলাকায় জিও টেক্সটাইল ও জিও ব্যাগ দিয়ে ভাঙন ঠেকানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ জন্য সীমাবদ্ধতা মাথায় রেখে ১৫ লক্ষ টাকার বরাদ্দ ধরা হয়েছে। ঠিকাদারের মাধ্যমে খুব দ্রুত কাজ শুরু করা হবে।