• আজ মঙ্গলবার, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

চট্টগ্রা‌মে ড্যাপ সার কারখানায় অ্যামোনিয়া লিকেজ, কতটা ভয়ঙ্কর এই গ্যাস?


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ২৩, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- বাংলাদেশের চট্টগ্রামের আনোয়ারায় একটি একটি সার কারখানা থেকে অ্যামোনিয়া গ্যাস ছড়িয়ে পড়ায় স্থানীয় মানুষের মাঝে এখনো আতঙ্ক রয়েছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন ,অ্যামোনিয়া গ্যাস নিয়ে আতঙ্কের কোন কারণ নেই। 1471910067ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক ড: তাপস দেবনাথ জানিয়েছেন, বাতাসে অ্যামোনিয়া গ্যাসের অস্তিত্ব দীর্ঘস্থায়ী হয়না। মি: দেবনাথ বলেন কোন ব্যক্তির শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে যদি খুব বেশি পরিমাণে অ্যামোনিয়া গ্যাস শরীরের ভেতরে প্রবেশ না করে তাহলে জীবন নিয়ে কোন ঝুঁকি থাকেনা।

অ্যামোনিয়া গ্যাস বাতাসে কতক্ষণ ভাসবে সেটি নীর্ভর করে জলীয় বাস্পের পরিমাণের উপর। বাতাসে জলীয় বাস্পের পরিমাণ বেশি হলে অ্যামোনিয়া গ্যাস দ্রুত মাটিতে নেমে আসে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি  বলেন, “যে কোন জিনিস বেশি গ্রহণ করাটা খারাপ। কেউ যদি শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ১০০% অক্সিজেন গ্রহণ করে সেটাও খারাপ। অ্যামোনিয়া গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারী। সেজন্য এটা দ্রুত মাটিতে নেমে আসে।”

অ্যামোনিয়া গ্যাস ছড়িয়ে পড়লে সে জায়গায় বেশি পরিমাণে পানি দিলে এই গ্যাস দ্রুত বিলীন হয়ে যায় বলে মি: দেবনাথ উল্লেখ করেন।

সোমবার রাতে চট্টগ্রা‌মের কর্ণফুলী নদীর অপর পাড় আনোয়ারায় অবস্থিত বিসিআইসির নিয়ন্ত্রণাধীন ডাই অ্যামো‌নিয়াম ফস‌ফেট (ড্যাপ) সার কারখানায় অ্যামোনিয়া গ্যাস ট্যাংক লিক হয়ে গ্যাস আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন অসংখ্য মানুষ।

রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনার পর কয়েক কিলোমিটার দূরে পতেঙ্গা এলাকার শত শত মানুষ শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। গুরুতর অসুস্থ হয়ে প্রায় অর্ধশত লোক কাফকো চিকিৎসা কেন্দ্রে ভর্তি হয়েছেন।