• আজ সোমবার, ১০ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

নাটোরের লালপুরে পদ্মা নদীতে খেয়া নৌকা ডুবি ১০ জন নিখোঁজ, ১জনের লাশ উদ্ধার


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ২৩, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী

rr


তাপস কুমার, নাটোর:

নাটোরের লালপুর উপজেলার বিলমাড়ীয়া বাজারের আদুরে পদ্মা নদীতে খেয়া নৌকা ডুবে অন্তত: ১০জন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন। এদের মধ্যে একজনের লাশ উদ্ধার করলেও নিখোজ আরো ৬জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নাটোরের ফায়ার সার্ভিস ও রাজশাহী থেকে ডুবুরী দলের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ শুরু করেছে।

মঙ্গলবার সকাল ৭ টার দিকে উপজেলার বিলমাড়িয়া এলাকায় পদ্মা নদীতে এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার খবর পেয়ে নিখোঁজদের উদ্বিগ্ন স্বজনরা বিলমারিয়া ঘাটে ভীড় জমায়। ঘটনার পর উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিখোঁজ ব্যক্তিরা হলেন মহরকয়া গ্রামের মৃত মহম্মদ তালুকদারের পুত্র ভাষান আলী (৩২), মৃত মসলেম উদ্দিনের পুত্র আরজেদ আলী (৪৩), কমপো মন্ডলের পুত্র বেলাল হোসেন (৪৫), নাসিম উদ্দিনের পুত্র জামরুল ইসলাম (২৫) ও চকবাদকয়া গ্রামের মৃত রহমান আলীর পুত্র চান্দের আলী (৫০), মৃত লাল চাঁদ মন্ডলের পুত্র জামাল উদ্দিন (৪৮), এবং চকডাকোপ গ্রামের আছান আলী (৩৮) । নিখোঁজদের মধ্যে বিকেল শোয়া ৫টার দিকে মোহরকয়া গ্রামের কমপো মন্ডলের ছেলে বেলাল হোসেনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষ দর্শিরা জানান, মঙ্গলবার সকালে উপজেলার বিলমাড়িয়া খেয়া ঘাট থেকে একটি নৌকাতে করে ৭৮/৮০ জন যাত্রী পলাশীর চরে কাজ করতে যাচ্ছিলেন শ্রমিকরা। বিলমাড়িয়া ঘাট থেকে নদীর মাঝ পথে গেলে প্রচন্ড বাতাস ও অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে নৌকাটি ডুবে যায়। পরে সাঁতরে ও অন্য নৌকার সহযোগিতায় যাত্রীরা তীরে পৌঁছালেও কমপেক্ষ ১০ জন যাত্রীর কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। খবর পেয়ে নিখোঁজদের স্বজনরা নদীর ঘাটে এসে আহাজারি করছেন। সংবাদ পেয়ে প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

পরে নিখোঁজদের উদ্ধারে নাটোরের ফায়ার সার্ভিস ও রাজশাহী থেকে ডুবুরী দলের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছে সকাল ৯টা থেকে উদ্ধার কাজ শুরু করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু জানান, প্রাথমিকভাবে ৭জন নিখোঁজ থাকার বিষয়টি তিনি নিশ্চিত হয়েছেন। তবে নিখোঁজের পরিমাণ বাড়তে পারে। কারণ অনেকে সাতরিয়ে তীরে উঠে চলে গেছেন। এরমধ্যে প্রকৃত পক্ষে কতজন নিখোজ রয়েছেন তা নিশ্চিতভাবে বলা কঠিন। তবে সন্ধায় শ্রমিকরা বাড়ী ফিরলে তখন প্রকৃত নিখোঁজের পরিমাণ জানা যাবে।

লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু ওবায়েদ জানান, নৌকা ডুবির সংবাদ পেয়ই তারা ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দলকে সংবাদ দিয়ে ঘটনাস্থলে নিয়ে এসেছেন। তাদের পাশাপাশি পুলিশ নিখোঁজদের উদ্ধারে তৎপরতা চালাচ্ছেন। তবে নদীতে তীব্র শ্রোত ও বাতাসের কারণে উদ্ধার কাজ বিলম্ব হচ্ছে। সর্বশেষ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিকেল শোয়া ৫টার দিকে বেলাল হোসেনের লাশ উদ্ধার করে ডুবুরী দল। বাকী নিখোঁজদের উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দল।

লালপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) শফিকুল আলম জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ৬ জন শ্রমিকের নিখোঁজ থাকার বিষয়টি জানতে পেরেছেন। তবে বিকেলে চরের কর্মস্থল থেকে ফিরে না আসা পর্যন্ত নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।