🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শুক্রবার, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

পাকিস্তানিদের নিয়ে মন্তব্য করে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় অভিযুক্ত ভারতীয় অভিনেত্রী রামাইয়া


❏ মঙ্গলবার, আগস্ট ২৩, ২০১৬ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –  পাকিস্তানিদের নিয়ে ইতিবাচক মন্তব্য করে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় অভিযুক্ত হওয়া ভারতীয় অভিনেত্রী ও রাজনীতিবিদ রামাইয়া নিজের মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাওয়ার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন পাকিস্তান নিয়ে তার মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইবার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। রামাইয়া বলেন, ‘আমি একটা নির্দোষ মন্তব্য করেছি মাত্র, এর জন্য ক্ষমা চাইতে যাব কেন?’ পাকিস্তান প্রশ্নে নিজের মন্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে একটি নিবন্ধও লিখেছেন তিনি। সেখানে প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে মৈত্রী স্থাপনের গুরুত্বারোপ করেছেন তিনি।

ovinetri-ramaiya
উল্লেখ্য, সম্প্রতি ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পারিকর মন্তব্য করেছিলেন পাকিস্তানে যাওয়া আর নরকে যাওয়া আসলে একই জিনিস। এরপর সার্কের তরুণ আইনজীবীদের প্রতিনিধি দলের অংশ হিসেবে ইসলামাবাদ সফরে যান রামাইয়া। কিন্তু ইসলামাবাদ সফরে গিয়ে মনোহরের মন্তব্যের ব্যাপারে দ্বিমত প্রকাশ করেন তিনি।  ইসলামাবাদ সফর শেষে পাকিস্তান নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে রামাইয়া বলেন, ‘পাকিস্তান মোটেও নরক নয়। সেখানকার মানুষজনও ঠিক আমাদেরই মতো। তারা আমাদের খুবই আদরযত্ন করেছেন’। এ মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ভিট্টল গৌড়া নামের কোডাগুর একজন আইনজীবী রামাইয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দায়ের করেছেন। ২৭ আগস্ট এ ব্যাপারে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।
তবে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা সত্ত্বেও নিজের মন্তব্য থেকে সরে আসার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন রামাইয়া। তার দাবি, এ মন্তব্য করে তিনি কোনও দোষ করেননি। সেক্ষেত্রে ক্ষমা চাওয়ার প্রশ্ন আসে না। ভারতের টিভি চ্যানেল এনডিটিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমি একটা নির্দোষ মন্তব্য করেছি মাত্র, এর জন্য ক্ষমা চাইতে যাব কেন? আমার কি নিজের মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকতে পারে না? প্রত্যেকের নিজ নিজ মত পোষণের অধিকার আছে। আর সেটাই গণতন্ত্র।’
নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে একটি নিবন্ধ লিখেছেন তিনি। রামাইয়া বলেন, ‘পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও সরকার যে আচরণ করছে তার জন্য কেবল তাদেরকেই জবাবদিহিতার মুখোমুখি করা প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের প্রতিবেশী ভূখণ্ডে বসবাসরত বেসামরিক সমাজ যখন আমাদের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেয় তখন তাদেরকে স্বাগত জানানো প্রয়োজন।’

রাজনীতিবিদরা বিভিন্ন জায়গায় তার পোস্টার পোড়াচ্ছেন ও ঘৃণা ছড়াচ্ছেন উল্লেখ করে নিবন্ধে তিনি লিখেছেন, ‘আত্মস্বীকৃত জাতীয়তাবাদীরা দীর্ঘস্থায়ী সমস্যার জন্য কোনও সমাধান খুঁজে বের করতে পারেন না। সংকটের বিরুদ্ধে তাদের বিক্ষোভ রাস্তাতেই শুরু হয় এবং সেখানেই শেষ হয়ে যায়।’ তার মতে এ ধরনের বিক্ষোভ দিয়ে টিভি চ্যানেলকে আকৃষ্ট করা যায় কিন্তু শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে তা কার্যকরী প্রভাব রাখতে পারে না। রামাইয়া বলেন, ‘প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে মৈত্রী প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে উন্নত বিশ্ব ও উন্নত ভবিষ্যত গড়ে তোলা সম্ভব হবে।’ ওই নিবন্ধের শেষে দৃঢ় কণ্ঠে তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা সত্ত্বেও তিনি তার মন্তব্যের ব্যাপারে অটল থাকবেন।

সূত্র: এনডিটিভি, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস