• আজ মঙ্গলবার, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

ছাত্র ধর্মঘটঃ শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে অবস্থান


❏ বুধবার, আগস্ট ২৪, ২০১৬ জাতীয়

মো: আশিক, জবি প্রতিবেদকঃ ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে সদ্য সাবেক ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জমিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের জন্য জাতীয় চার নেতার নামে আবাসিক হল ও নতুন হল নির্মাণ করে আবাসন সংকট নিরসনের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ডাকা ধর্মঘটের আজ শেষ দিনের কর্মসূচি সমাপ্তের পরে আগামী শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক্ষক, বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে সংহতি সমাবেশ ও সন্ধ্যায় শাহবাগে মশাল মিছিল এবং পরদিন সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে মানববন্ধনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

আজ সকাল ৮টার দিকে আন্দোলনরত কয়েক হাজার শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে বের হন। এ সময় তাঁরা রায়সাহেব বাজার মোড়ে পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে সামনে অগ্রসর হয়ে পল্টন ময়দানে অবস্থান নেন। তাঁদের কয়েকজনকে কাফনের কাপড় পরে স্লে¬াগান দিতে দেখা যায়।

jbi‘২০০৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার পর থেকে হলের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। কিন্তু বরাবরই প্রশাসন মিথ্যা আশ্বাস দিয়েছে, যে কারণে আজ ১১ বছরেও এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো আবাসিক হল হয়নি।
আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের জবি শাখার সভাপতি মুজাহিদ অনিক বলেন, শুক্রবার একটি সংহতি প্রকাশ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। যেখানে শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে সংহতি প্রকাশ করবেন বুদ্ধিজীবী, বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনসহ অন্যরা। এরই মধ্যে ধর্মঘট চলতে থাকবে।

গত ২৩ দিন ধরে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সদরঘাট-গুলিস্তান সড়কে যান চলাচল করতে পারেনি।
কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাসান জানান, রায়সাহেব বাজার এলাকায় পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবে পল্টন মোড়ে অবস্থান নেয়, যে কারণে তাদের সঙ্গে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি হয়নি। তারা কোনো ধরনের নাশকতা চালায়নি। এ জন্য শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ।

রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকায় জাতীয় চার নেতার নামে চারটি হল নির্মাণের দাবিতে গত ১ আগস্ট থেকে আন্দোলন শুরু করেন জবি শিক্ষার্থীরা। এর পর থেকে প্রতিদিনই পুরান ঢাকার সড়ক অবরোধ করে নিজেদের দাবির পক্ষে বিক্ষোভ করতে থাকেন তাঁরা।