🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শুক্রবার, ১৪ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

পাবনা মানসিক হাসপাতালে দুর্নীতি আর স্বেচ্ছাচারিতায় ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা


❏ বুধবার, আগস্ট ২৪, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী, স্পট লাইট

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি- বাংলাদেশের একমাত্র পাবনা মানসিক হাসপাতালে কর্মরত কর্মকর্তা এবং দালালের অনৈতিক কাজের ফলে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে পাবনা মানসিক হাসপাতাল। চিকিৎসা সেবার পরিবর্তে হয়ে উঠেছে অনৈতিক অর্থ আয়ের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে। ভোগান্তিতে পড়ছে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মানসিক রোগী ও তার আত্মীয় স্বজনরা। দূর্ণীতি গ্রস্থদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি স্থানীয় এবং ভুক্তভোগীদের।unnamed

তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, পাবনা মানসিক হাসপাতালের বর্তমান পরিচালক ডা. তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাস একজন দুর্নীতিবাজ প্রশাসক হওয়ায় হাসপাতালের সর্বস্তরে ছড়িয়ে পড়ছে দুর্নীতি আর স্বেচ্ছাচারিতা।

হাসপাতালে গেলে দেখা যায় অধিকাংশ সময়ই নেই পরিচালক তন্ময় কুমার প্রকাশ বিশ্বাস। জানা যায়, তিনি সপ্তাহে তিন দিন পাবনা জেলার বাইরে রোগী দেখেন। এই তিন দিন তিনি অফিসের কাজ ফাঁকি দিয়ে নামমাত্র উপস্থিত হন। মাঝে মধ্যেই দেশের বাইরে থাকেন তিনি। কিভাবে এতো সময় দেশের বাইরে থাকেন তা নিয়ে কৌতুহল রয়েছে কিছু কর্মকর্তার। এছাড়া কর্মকর্তার সাথেও তিনি অস্বাভাবিক আচরণ করেন। তার দায়িত্বহীনতায় প্রশাসন ভেঙ্গে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

হাসপাতালে নিরাপত্তার দ্বায়িত্বে থাকা আনসাররা দর্শনার্থীদের কাছ থেকে মাথাপিছু টাকা নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করায়, যার ফলে হাসপাতালের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। অবৈধভাবে প্রবেশকারীরা রোগীদের সাথে কথাবার্তা বলা, গান শোনা, সিগারেট খাওয়াসহ নানা অনিয়ম করছে। এ ছাড়াও প্রয়োজনীয় কাজে কেউ মোটরসাইকেল বা বাইসাইকেল নিয়ে গেলে তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে থাকেন আনসাররা।

এ ব্যাপারে আনসাররা বলেন- কয়েক মাস যাবৎ বেতন পাই না কাজেই এসব টাকা নিয়ে থাকি। একটি বিশ্বস্ত সুত্রে জানা যায়, এসব টাকার ভাগ পেয়ে থাকেন কিছু প্রশাসনের কর্মকর্তারা। হাসপাতালের ভিতরে দেখা গেছে ৮/১০টি কুকুর শুয়ে আছে। হাসপাতালে বাগানের জন্য যথেষ্ট জায়গা থাকলেও ফুলের বাগান নাই যা মানসিক হাসপাতালের জন্য প্রয়োজন। কিছু রোগী ভালো হয়ে গেলেও তাদের বাড়ী পাঠানোর যথাযথ উদ্যোগ নেই।

দালালদের কারণে স্বাভাবিকভাবে সেবা পাচ্ছে না রোগীরা। দালালের কারণে অতিরিক্ত টাকা গুনতে হয় সেবা নিতে আসা রোগীদের। প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আশ্রয় প্রশ্রয়ে গড়ে উঠেছে দালাল চক্র। টাকা ছাড়া ভর্তি হতে পারেন না রোগীরা। খাবার মান নিয়ে অভিযোগ ব্যাপক। ভুয়া বিল ভাউচারের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে মাঝে মধ্যেই সংবাদ প্রকাশ হলেও কোন ব্যবস্থা নেন না দায়িত্বশীলরা।

এ সবই হচ্ছে বর্তমান পরিচালক তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাসের দায়িক্ত হীনতায়। তার বদলী বা শাস্তির ব্যবস্থা করলেই এসব সমস্যার সমাধান সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন কয়েকজন কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে পাবনা মানসিক হাতাপালের পরিচালক তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাসের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।