• আজ মঙ্গলবার, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

‘আসামিরা আমাকে কোনো রকম খুন্তির ছ্যাঁকা দেননি’


❏ বুধবার, আগস্ট ২৪, ২০১৬ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর – গৃহকর্মী নির্যাতনের মামলায় ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন ও তার স্ত্রীর পক্ষে সাক্ষ্য দিয়েছেন ‘নির্যাতিতা’ ভিকটিম হ্যাপি।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক তানজিলা ইসমাইলের আদালতে ভিকটিম এ সাক্ষ্য দেন।

সাক্ষ্য-তে ভিকটিম বলে, ‘আসামিরা আমাকে কোনো রকম খুন্তির ছ্যাঁকা দেননি। আগে মানুষের পরামর্শে এই মামলা করি।’

পরবর্তীতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাকে বৈরি সাক্ষ্য হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন। সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক আগামী ৩১ আগস্ট এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী দিন ঠিক করেছেন।

sahadat-grihokormiএদিন শাহাদাত ও তার স্ত্রী নিত্য আদালতে হাজির ছিলেন।

এর আগে ২০১৫ সালের ২১ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম স্নিগ্ধা চক্রবর্তীর আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দিতে হ্যাপী তার ওপর নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে বলে,‘ক্রিকেটার শাহাদাত তার গলায় পারা দিয়ে রাখত, যাতে চিৎকারের কোনো শব্দ বের না হয়। আর তার স্ত্রী প্রতিদিন লাঠি, পানির বোতল ও বেলন- হাতের কাছে যখন যা পেত তাই দিয়েই পেটাত। মারধর করার পর আমার শরীর থেকে রক্ত বের হতো। ওরা তখন আমার ক্ষতস্থানে বরফ লাগিয়ে দিত। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে বরফ সরাতে বললে ওরা আবার পেটাত। ব্যথা সহ্য করতে না পেরে কান্না করতে থাকতাম।’

২০১৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর গৃহকর্মী মাহফুজা আক্তার হ্যাপীকে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগে ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন রাজীব ও তার স্ত্রী জেসমিন জাহান ওরফে নিত্য শাহাদাতের বিরুদ্ধে সাংবাদিক খন্দকার মোজাম্মেল হক বাদী হয়ে মিরপুর মডেল থানায় মামলাটি করেন।

একই বছরের ২৯ ডিসেম্বর ঢাকার সিএমএম আদালতের মিরপুর থানার জিআর শাখায় করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মিরপুর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুর রহমান ক্রিকেটার শাহাদাত ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশিটে বলা হয়, গৃহকর্মী মাহফুজা আক্তার হ্যাপীকে ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন ও তার স্ত্রী জেসমিন জাহান মারধর করে তার পা ও হাতের আঙুল ভেঙে দিয়েছেন। সে যেন বাসা থেকে পালাতে না পারে, সেজন্য এক বছর ধরে তাকে বাথরুমে ঘুমাতে বাধ্য করা হয়। শাহাদাতকে তিনদিনের রিমান্ডে নেওয়ার পর জিজ্ঞাসাবাদে নির্যাতনের কথা স্বীকার করেন তিনি।

নির্যাতনের শিকার মাহফুজা আক্তার হ্যাপীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তদন্তে শাহাদাত ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়। চার্জশিটে শাহাদাত ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৪-এর (২) খ ধারায় শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়।

২০১৬ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক তানজিলা ইসলাম ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন ও তার স্ত্রী জেসমিন জাহান ওরফে নিত্য শাহাদাতের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।