• আজ সোমবার, ১০ মাঘ, ১৪২৮ ৷ ২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ৷

তৃতীয় দিনেও নৌযান ধর্মঘট অব্যাহত


❏ বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২৫, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- সারা দেশে নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। ন্যূনতম মজুরিসহ বিভিন্ন দাবিতে শ্রমিকরা কর্মসূচি অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্তে অটল রয়েছে। বৃহস্পতিবার ধর্মঘটের তৃতীয় দিন চলছে। এতে দক্ষিণাঞ্চলগামী যাত্রীরা পড়েছে চরম ভোগান্তিতে। অনেক যাত্রী লঞ্চঘাটে গিয়ে ফেরত আসছে। অনেককে আবার বিকল্প পথে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।140441_1_124696বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনসহ বেশ কয়েকটি নৌযান শ্রমিক সংগঠন গত ২২ আগস্ট রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে ১৫ দফা দাবিতে এই ধর্মঘট শুরু করে।

দাবিগুলোর মধ্যে ৪টি প্রধান দাবি পুরণ হলেই কেবল তারা ধর্মঘট প্রত্যাহার করবেন বলে জানান। শ্রমিকদের প্রধান ৪টি দাবি হলো- নৌযান শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি, নৌদুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করা, নদীপথে সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি ও ডাকাতি বন্ধ করা এবং নৌপথের নাব্যতা বাড়ানো।

এদিকে সদরঘাট সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র হতে জানা গেছে, বুধবার রাতে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীবাহী ২৭টি লঞ্চ সদরঘাট থেকে ছেড়ে গেছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) দক্ষিণাঞ্চলের নৌনিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের যুগ্ম পরিচালক জয়নাল আবেদীন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ধর্মঘটের মধ্যেই গতকাল সন্ধ্যার পর থেকে বেশ কয়েকটি লঞ্চ ছেড়ে গেছে। অপরদিকে ধর্মঘটের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে বহির্নোঙ্গরে বড় জাহাজ থেকে পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে। একই অবস্থা অন্যান্য বন্দরেও।

বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন সভাপতি শাহ আলম সাংবাদিকদের জানান, ১৫ দফা দাবিতে তারা আন্দোলন করছেন। তবে মূল চারটি দাবি হলো- নৌযান শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি, নৌদুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করা, নদীপথে সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি ও ডাকাতি বন্ধ করা এবং নৌপথের নাব্যতা বাড়ানো।

তিনি বলেন, তাদের প্রধান চারটি দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যাহত রাখেবেন তারা। এদিকে নৌযান শ্রমিকদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট নিয়ে লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছে সরকার। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রম পরিদপ্তরে এ বৈঠক শুরু হয়।