ত্বকী হত্যার বিচারের দাবিতে মোমশিখা প্রজ্জলন করে ক্ষুব্ধ প্রতিবাদ জানিয়েছে সাংস্কৃতিক কর্মীরা,মঞ্চে হামলার অভিযোগ

⏱ | শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৬ 📁 অপরাধ, আলোচিত, ঢাকা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচারের দাবিতে ক্ষুব্ধ প্রতিবাদ জানিছেন নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের কর্মী ও নিহত ত্বকীর বাবা রফিউর রাব্বি । বৃহস্পতিবার ৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও দ্রুত অভিযোগপত্রের দাবিতে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের মাসিক কর্মসূচির অংশ হিসাবে ওই মোম শিখা প্রজ্জলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রাব্বি বলেন, ‘সরকার বিচার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। এক দেশে দুইনীতি চলতে পারেনা । সরকার দলের হলে কোন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করা হয় না। কিন্তু সরকারি দলের বাইরে হলে তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হয়। এভাবে প্রশ্নবিদ্ধ বিচার ব্যবস্থা দেশের মূল্যায়ন শেষ হয়ে যায়।

যারা ত্বকী হত্যার বিচার বন্ধ করে রেখেছে তাদের ত্বকীর হত্যাকারীদের সঙ্গে বিচার করা হবে। রাব্বি বলেন, ত্বকীকে কেন হত্যা করা হয়েছে তার তদন্ত ইতি মধ্যে হয়েছে, এবং তদন্তে একটি বিষয় স্পষ্ঠ উঠে এসেছে যে তাকে হত্যা করে শহরে একটি প্রভাবশালী পরিবার চেয়েছিল এটিকে জামায়াত শিবিরের কাজ বলে চালিয়ে দেওয়া,তবে কিন্তু তদন্তে বেরিয়ে এসেছে কারা কারা জরিত এ হত্যাকান্ডের সাথে । আমরা ত্বকীর পাশাপাশি সকল হত্যাকান্ডের বিচার চাই, সকল হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হোক। আমরা চাই হত্যাকারীদের পাশে থাকার অপবাদ এই ত্বকী হত্যার বিচারের মাধ্যমে বর্তমান সরকার শেষ করবেন।বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম বলেছেন, একটি মহল এই আসামীদের বাঁচানোর চেষ্টা করছে।

thoki-murder-9-2016-1

কর্মসূচীতে সাংস্কৃতিক জোটের জেলার সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজলের সভাপতিত্বে প্রদীপ প্রজ্জলন কর্মসূচীতে আরো বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জের নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংস্কৃতিক জোটের সেক্রেটারী ধীমান সাহা জুয়েল, কার্যকরী সদস্য প্রদীপ ঘোষ, বাসদের জেলা সমন্বয়ক নিখিল দাস, গণসংহতি আন্দোলনের নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, খেলাঘরের জেলা সভাপতি রথিন চক্রবর্তী।

নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজলের সভাপতিত্ব ও সাধারণ সম্পাদক
ধীমান সাহা জুয়েলের সঞ্চালনায় মোম শিখা প্রজ্জলন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয় । এদিকে সমাবেশ শেষে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের মোম প্রজ্জলন কর্মসূচী শেষে হামলার অভিযোগ উঠে। নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েল বলেন, ‘ত্বকী হত্যার বিচার দাবিতে আমাদের সাংস্কৃতিক জোটের মাসিক কর্মসূচির অংশ হিসাবে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহীদ মিনারে মোম শিখা প্রজ্জলন করা হয়। তবে অনুষ্ঠানের শেষ মোম শহীদ মিনারে রেখে বেরিয়ে আসার সময় ১০ থেকে ১৫ জন যুবক অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং জ্বলন্ত মোম গুলো পায়ে নিবিয়ে দেয়। এছাড়াও জোটের নারী সহ সকল নেতাকর্মীদের ধাকা দিয়ে শহীদ মিনার থেকে বের করে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ মহানগর শাখার সভাপতি অঞ্জন দাস বলেন, মোম প্রজ্জলন শেষ করে শহীদ মিনার থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে কয়েকজন যুবক মোমগুলো পায়ে নিবিয়ে দেয়। একই সঙ্গে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে নারীসহ সাংস্কৃতিক কর্মীদের শহীদ মিনার থেকে বের করে দেওয়া হয় ।

বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম বলেন, ‘জাতীয় সঙ্গীত শেষে জোটের অনেক নেতাকর্মী শহীদ মিনার থেকে বের হয়ে আসে। আমিও বের হয়ে আসি। পরবর্তীতে জানতে পারি বেশ কয়েকজন যুবক অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে অপরিচিত যুবকরা । তবে এরা কারা কেউ ঠিক ভাবে চিনতে পারিনি উপস্থিত সাংস্কৃতিক কর্মীরা । নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সকল হত্যাকান্ডের হত্যাকারীদের বিচার করার,ও দ্রুত চার্জশিট দেওয়ার দাবীতে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত প্রদীপ প্রজ্জলন কর্মসূচী পালন করে এ দাবি করেন তারা । উল্লেখ্য নারায়ণগঞ্জের শহরে ২০১৩ সালের ৬ মার্চ বিকেলে ত্বকী শহরের শায়েস্তাখান সড়কের বাসা থেকে বের হয়ে আর বাসায় ফেরেনি। পরবর্তীতে ৮ মার্চ সকালে চাড়ারগোপে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে তার মরদেহ পাওয়া যায়। কিন্তু এ হত্যাকান্ডের এখনও পর্যন্তএ মামলার অভিযোগ পত্র দেয়া হয়নি বলে দাবি করেন তারা ।