🕓 সংবাদ শিরোনাম

কর্ণফুলী থানার পাশেই ছুরিকাঘাতে যুবক খুন সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করায়  ‘মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক’ এর প্রতিবাদসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে আমিরাতে সাংবাদিকদের প্রতিবাদ সভাকক্সবাজারে বিপুল সিগারেটসহ ৩ যুবক আটকরোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফআর এমন ভুল হবে না: নোবেল

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার আসামি কাজল মিয়াকে ১১ বছর পর আজ শনিবার কারাগারে প্রেরন


❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৬ অপরাধ, আলোচিত, স্পট লাইট

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামি কাজল মিয়াকে (২৮) আজ শনিবার দুপুরে হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পলাতক থাকার ১১ বছর গতকাল শুক্রবার রাতে হবিগঞ্জ সদর থানার পশ্চিম ভাদৈ গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার হন তিনি।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) জানান, কাজল মিয়া কিবরিয়া হত্যা মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামি।

উল্লেখ যে, অর্থমন্ত্রী হিসেবে কিবরিয়া ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন। ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে এম.পি বা সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যেরবাজারে আওয়ামী লীগের এক জনসভায় গ্রেনেড হামলায় শাহ এ এম এস কিবরিয়াসহ আওয়ামী লীগের পাঁচ নেতা কর্মী নিহত হন। আহত হন ৭০ জন। এ ব্যাপারে ঘটনার পর দিন ২৮ জানুয়ারি হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা হয় হবিগঞ্জ সদর থানায়।

kibria
হত্যা মামলায় সিআইডি পুলিশ ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর ৩২ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয়। পাশাপাশি বিস্ফোরক মামলায় অভিযোগপত্র দেওয়া হয় ২০১৫ সালের ১১ আগস্ট। এ আলোচিত হত্যা মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী (সদ্য হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছেন), হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র (সাময়িক বরখাস্ত) জি কে গউছ ও মুফতি হান্নানসহ ১৫ জন গ্রেপ্তার আছেন। পলাতক আছেন ৯ জন এবং জামিনে আছেন ১০ জন। একজন আসামি ভারতে মারা গেছেন এবং একজন আসামির ঠিকানা পুলিশ খোঁজে পায়নি। তাই এ দুজনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করা হয়েছে।

এই হত্যা  মামলায় সিলেট সিটি করপোরেশনের বরখাস্তকৃত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে দেওয়া হাইকোর্টের জামিন বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। গত বৃহস্পতিবার ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬ বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এই আদেশ দেন।