🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ রবিবার, ২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৬ মে, ২০২১ ৷

হিন্দু ধর্মালম্বী হওয়ায় পাকিস্তানের নির্যাতিত ও বঞ্চিতা মধু, ভারতে পেল শিক্ষার সুযোগ


❏ রবিবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

%e0%a6%af%e0%a6%afআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- পাকিস্তানের মধু একটি মেধাবী বালিকার নাম। গরীব হলেও লেখাপড়া করার ইচ্ছা ও উচ্চ শিক্ষা লাভের আকাঙ্খা প্রতিনিয়ত তারা করেছে তাকে। কিন্তু হিন্দু ধর্মালম্বী  হওয়ায় পাকিস্তানে সব কিছু থেকে বঞ্চিত ছিল মধু। শুধু তাই নয় হিন্দু হওয়ার কারনে মধু ও তার বাবা মা কে নির্যাতিত ও অপমানিত হতে হয়েছে প্রতিনিয়ত জীবন চলার পথে। বছরদুয়েক আগে বাধ্য হয়ে সে দেশ (পাকিস্তান)  ছেড়ে ভারতে পালিয়ে আসে তারা। তারপর থেকেই দিল্লির একটি পাবলিক স্কুলে নবম শ্রেণিতে ভর্তির চেষ্টা করছিল মধু। কিন্তু আধার কার্ড না থাকায় কোনো স্কুলে ভর্তি হতে পারেনি সে। অবশেষে ভারতে শিক্ষার সুযোগ পেল পাকিস্তানের নির্যাতিত মেধাবী বালিকা মধু।

বিদেশে বিপন্ন ভারতীয় বা দেশে সংকটে পড়া বিদেশি- স্রেফ একটা টুইটের অপেক্ষা। বিপদগ্রস্তদের সাহায্যে ভরসার হাত বারবার বাড়িয়ে দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। ব্যতিক্রম হলো না এবারো। পাকিস্তান থেকে পালিয়ে আসা হিন্দু মেয়ে মধুকে স্কুলে ভর্তি করার ব্যাপারে সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন সুষমা। জানিয়েছেন, সোমবারের মধ্যেই দিল্লির একটি স্কুলে তার অ্যাডমিশন হয়ে যাবে।

বিষয়টি টুইটারে সুষমা স্বরাজের নজরে আনেন এক ব্যক্তি। তখনই সুষমা টুইটারেই মধুকে আহ্বান জানান, পরদিন তার বাসভবনে সন্ধা সাতটার সময় এসে দেখা করতে। মধু এসে পৌঁছলে তার সঙ্গে এ বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলেন তিনি। ফোনে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা সারেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবালের সঙ্গেও। এরপর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মধুকে জানিয়ে দেন, তার আর চিন্তার কারণ নেই। ১৬ বছরের মেয়েটি সোমবারই অ্যাডমিশন পাবে দিল্লির একটি স্কুলে।

অবশ্য পাকিস্তান থেকে বিতাড়িত হয়ে ভারতে আশ্রয় নেয়া হিন্দু শরণার্থীদের এর আগেও সাহায্য করেছেন সুষমা। ১৭ বছরের মেয়ে মশাল মাহেশ্বরী তার সহায়তাতেই ডাক্তারিতে অ্যাডমিশন পেয়েছে। সিবিএসই-তে দুর্দান্ত রেজাল্ট করা সত্ত্বেও শুধু পাকিস্তান নাগরিক হওয়ার সুবাদে কোনো মেডিক্যাল কলেজে অ্যাডমিশন পাচ্ছিল না সে।