মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির এক শিশুকে নির্মম কায়দায় গলা কেটে হত্যা


❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৬ আলোচিত, ঢাকা
রেজাউল সরকার(আঁধার), গাজীপুর  প্রতিনিধি : জেলার সদর উপজেলার ভাওয়ালগড় এলাকায় অপহরণের পর মুক্তিপণের ৫ লাখ টাকা না পেয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির এক শিশুকে গলাকেটে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পরিবারের।
রবিবার সকালে বাড়ির কাছে একটি ঝোপ থেকে গলা কাটা লাশ উদ্ধার করা উদ্ধার করে পুলিশ।
অপর দিকে পরিবার মুক্তিপণ দাবির কথা বললেও পুলিশ পূর্বশত্রুতার জের এ হত্যার ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করছে।
নিহত শিশুর নাম সজিব (৭)। সে জেলার সদর উপজেলার ভাওয়ালগড় ইউনিয়নের নলজানি গ্রামের কৃষক জসিম উদ্দিনের ছেলে।
golaসজিবের পিতা জসিম উদ্দিন জানান, কোরবানির খাসি কেনার জন্য তিনি শনিবার দুপুরের শ্রীপুর বাজারে যান। দুপুর আড়াইটার দিকে এক ব্যক্তি তার স্ত্রীর মোবাইলে ফোন করে সজিবকে অপহরণের কথা জানান এবং মুক্তিপণ হিসেবে ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। এ ঘটনা জানার পর তিনি বাড়ি ফিরে আসেন। সন্ধ্যায় ওই মোবাইল নম্বরে ফোন করে আংশিক টাকা সংগ্রহের কথা জানানো হলে পুরো টাকা সংগ্রহ করে ফোন করার কথা বলা হয়। তিনি রাতে ঘটনাটি জয়দেবপুর থানা পুলিশকে জানান। রবিবার সকাল ৯টার দিকে বাড়ির পাশের একটি ঝোপের ভিতর ছেলে লাশ পাওয়া যায়।
এদিকে জয়দেবপুর থানার হোতাপাড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই নাজমুল হক জানান, শিশুটিকে গলা ও হাত-পায়ের রগ কেটে ফেলে রাখা হয়েছিল। পূর্ব শত্রুতার জের এ হত্যার ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
তিনি আরো জানান , সজীবের বাবা জসিম উদ্দিন জয়দেবপুর থানায় প্রতিবেশী মোশারফ হোসেনকে প্রধান আসামি করে ৯ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।