“স্রোতের কারণে সময় দিগুন” ঈদ যাত্রা নদী পথে


❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর, সমস্যা ও সমাধান

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি সময়ের কণ্ঠস্বর –:  শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথ পদ্মায় বিলিন হয়ে যাওয়া তিন নাম্বার ফেরিঘাট নতুনভাবে নির্মাণকাজ গতমাসে সম্পন্ন হয়। এইঘাট দিয়ে ওইদিন রাতেই চালু কর ফেরি চলাচল। কিন্তু তারপরেও গতকাল ও আজ ঘাটের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি-দুই পারে আগের মতই ছিল গাড়ির জট। পারাপারে অপেক্ষায় রয়েছে প্রায় ৭শ”বাস ও ট্রাক। মাওয়াঘাটের বিআইডবি.উটিসি কতৃপক্ষ জানান, পদ্মায় গতকাল স্রোত রয়েছে। যার কারণে ছোট, মাঝারী ও ফ্লাড ফেরি কম চলতে পারায় গড়িগুলো মূর্তিধারণে দিন থেকে বন্ধ রয়েছে।

এরমধ্যে নদীর পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় এগুলো ঘাটের কাছে নোঙর করে ও রাখা হয়েছিল  । ফলে গতকালের তুলনায় আজ ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার বেশি  করা হয় । কিন্তু এখন আর এইঘাট দিয়ে আগের মত  ফেরি চলাচল করতে পারবেন না। এই ঘাট দিয়ে এখন মাঝারী টাইপ ও ছোট ধরণের ফেরিগুলো কেবল চলতে পারে হর হামেসা । মাওয়াঘাটের বিআইডব্লিউটিএ এর কর্মকর্তারা জানান, পূর্বের তিন নম্বর  ঘাট পরিবর্তিত করা হয়নি।

0

তাই গত ৪/৫ দিন থেকে ৩ নম্বর ঘাট দিয়ে বড় বড় ফেরি চলাচল করে আসছে অনেক সময় নিয়ে। যাত্রীরা অভিযোগ করেন, তিনটি ফেরিঘাট সচল হলেও ঘাটের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। যানজট সেই লেগেই আছে। মাওয়াঘাটে গতকাল দুপুর ২ টা পর্যন্ত ট্রাক ও যাত্রীবাহি বাস প্রায় ৭ থেকে ৮শত পার হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। ওইপারে কাওড়াকান্দি ঘাটে অপেক্ষায়  আরও প্রায় তিন শতাধিক যান।

ফলে দুই পাড়েই যাত্রী শিকার হতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগের। আজ রাত্র প্রায় সাড়ে ৯টায় মাওয়াঘাটে কথা হলে যাত্রী আবু নাসের খানের সাথে তিনি জানান, গোপালগঞ্জে যাবেন সকাল সাড়ে ১২ টায় তারা এখানে আসেন এখন রাত্র ৯টা বেজে গেলো তাদের বাস ফেরিতে উঠতে পারেনি- তবে বাড়ী যাবই । চার থেকে পাঁচ  দিন ধরে পারাপাড়ের অপেক্ষায়  রয়েছেন এমন ট্রাক চালকরা অভিযোগ করেন, এই সময়ে ঘাটে খাবারের জন্য ব্যয় হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।

আবার রাতে ঘুমানোর ও সৌচাগারের কষ্টতো রয়েছেই।বিআইডব্লি¬উটিসির ম্যানেজার বাণিজ্য শেখর চন্দ্র রায় ও মেরিন অফিসার আহমেদ আলী জানান, বর্তমানে ৩ টি ঘাট সচল হলেও ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। নদীতে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই স্রোত কমেনি। স্রোতের কারণে ফেরি সামনের এগোতে পারছেনা। সময় লেগে যাচ্ছে দিগুন। এ অবস্থা যে কদিন বিরাজ করবে জানানেই ঘাটের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে।