• আজ শনিবার, ১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৫ মে, ২০২১ ৷

৯ মাস মৃত মাকে ঘরেই রেখেছে সন্তানেরা


❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

%e0%a6%ac%e0%a6%ac%e0%a6%ac%e0%a6%acআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- মা পৃথিবীতে সব চেয়ে আপন একজন মানুষ। যার তুলনা কখনই কারো সাথে হয়না। মা পাশে থাকলে সাহস আর শক্তি দুটোই হয়ে যায় অমর। মায়ের পাশা থাকা প্রত্যেকটা সন্তানের জন্যই খুব জরুরী। হয়তো  এই ভেবেই মারা যাওয়ার পরও মৃত মায়ের সঙ্গ ছাড়েনি সন্তানেরা বরং গ্রামের মানুষদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে মৃত মাকে ৯ মাস ঘরেই রেখেছে ওরা। হয়তো তারা মনে করেছিল মায়ের কঙ্কাল সাথে থাকলেও তারা ভরসা পাবে পৃথিবীতে বেঁচে থাকার। মায়ের সঙ্গ ছাড়তে নারাজ ছিল ওরা দুই ভাই।

ভারতের হরিণঘাটার ৯নং ওয়ার্ডে থাকতেন ৮৫ বছরের বৃদ্ধা ননীবালা সাহা। তার সঙ্গেই থাকতেন তার দুই অবিবাহিত ছেলে অরুণ (৬৫) ও অজিত (৫৫)। গাছগাছালিতে ঘেরা টালির চালের ওই বাড়িতে বা বাড়ির আশেপাশে দীর্ঘদিন ধরে দেখা যাচ্ছিল না ননীবালা দেবীকে। এতেই সন্দেহ হয় প্রতিবেশীদের। তারা অরুণ ও অজিতকে মায়ের কথা জিজ্ঞাসা করলে, তারা সবসময়ই জানাতেন, মা ভালো আছেন।

অথচ প্রতিবেশীরা লক্ষ করেন, রোজ দুই ভাই বাইরে থেকে খাবার কিনে আনছেন। এতে সন্দেহ গাঢ় হওয়ায়, রবিবার দুর্গাপূজার চাঁদা তোলার নাম করে পাড়ার ছেলেরা ঢুকে পড়েন ননীবালা দেবীর বাড়িতে। তখনই জানলার পর্দা সরিয়ে তারা দেখতে পান, খাটের উপর পড়ে রয়েছে কঙ্কাল। সঙ্গে সঙ্গে তারা বিষয়টি হরিণঘাটা পৌরসভার চেয়ারম্যানকে জানালে তিনিই পুলিশে খবর দেন।

ঘটনাস্থলে গিয়ে কঙ্কালটি উদ্ধার করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে দুই ভাই অরুণ ও অজিতকে। প্রাথমিক জেরার পর তারা জানিয়েছেন, ১৬ জানুয়ারি মা মারা গেছেন। ৯ মাস ধরে মায়ের দেহের সঙ্গেই থাকতেন তারা। শরীরটি পচে গলে গেলেও, দুই ভাই সারা বাড়িতে কেরোসিন ঢেলে রাখতেন বলেই পাড়ার লোকেরা কোনো দুর্গন্ধ পাননি বলে মনে করা হচ্ছে। জানা গেছে, বড় ভাই অরুণের মানসিক সমস্যা ছিল।