🕓 সংবাদ শিরোনাম

কর্মস্থলে ফিরতে গাদাগাদি করে রাজধানীমুখী লাখো মানুষশেরপুরে পৃথক ঘটনায় একদিনে ৭ জনের মৃত্যুএক বিয়ে করে দ্বিতীয় বিয়ের জন্যে বড়যাত্রীসহ খুলনা গেল যুবক!আমার মৃত্যুর জন্য রনি দায়ী! চিরকুট লিখে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যাইসরাইলীয় আগ্রাসনের  বিরুদ্ধে ইসলামী বিশ্বের নিন্দার নেতৃত্বে সৌদি আরবত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুতে নিহতের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতমকলাপাড়ায় এক সন্তানের জননীর মরদেহ উদ্ধারটাঙ্গাইলে কৃষক শুকুর মাহমুদ হত্যা মামলায় গ্রেফতার-১ফরিদপুরে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিতজামালপুরে ঘর মেরামতের সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তিন জনের মৃত্যু

  • আজ সোমবার, ৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৭ মে, ২০২১ ৷

দিনাজপুরে ঈদের দিনেও মটরসাইকেল আটক করে পুলিশের বাণিজ্য !


❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৬ Breaking News, অপরাধ, স্পট লাইট

শাহ্ আলম শাহী, স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুরঃ

দিনাজপুরের কাঞ্চন ব্রীজ সংলগ্ন পুর্ব পারে ঈদের দিন মটর সাইকেল আটক করে ব্যাপক বাণিজ্য করেছে কতিপয় পুলিশ। এতে বিরল-বোচাগঞ্জসহ ওই পথের যাত্রীরা হয়রাণী শিকার হয়েছেন। মাটি হয়েছে ঈদের আনন্দ। এমন অভিযোগ অনেকের। প্রায় আড়াই শতাধিক মটরসাইকেল আটক করলেও মামলা হয়েছে মাত্র ৫ টি। নিয়মনিতী ছাড়াই চলছে দিনাজপুরের কয়েকটি পয়েন্টে মটরসাইকেল আটকের অভিযান।

ঈদের দিন একটি বিশেষ আনন্দের দিন। যা এক বছর পেরিয়ে আসে। হেলমেট, ড্রাইভিং লাইসেন্স কিংবা গাড়ির কাগজপত্র সাথে নেই এই অজুহাতে ভয়ভীতি দেখিয়ে চালকদের নিকট কমপক্ষে ৫শত টাকা এবং সর্বচ্চ ১হাজার টাকা অবৈধ ভাবে ট্রাফিক সার্জেন্টরা ঘুষ আদায় করছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগিদের।

কেউ নতুন বৌ নিয়ে শ্বশুর বাড়ী যাচ্ছেন নিমন্ত্রনে। আর কেউবা যাচ্ছেন কুরবানীর মাংস বিতরণ করতে স্বজনদের বাড়ীতে। কিন্তু তাতেও রেহাই পায়নি ট্রাফিক সার্জেন্ট নুর ও এস আই নজরুল এর নিষ্টুর আচরণে। প্রকাশ্য দিবালোকে কোন সংকোচ ছাড়াই বেপরোয়া ভাবে লাইনমেনদের দিয়ে ঘুষ আদায় করছেন পুলিশ । পুলিশের টার্গেট বয়স্ক ও সহজ সরল মটরসাইকেল চালক, যাদের মটর সাইকেলে বৌ বাচ্চা রয়েছে এবং যাদের সাথে বিতরণের মাংসের ব্যাগ রয়েছে। যাদের বেশভুষা দেখলে বোঝা যায় যে তাদের পকেটে টাকা রয়েছে। তাদের বেশী করে আটক করে। এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে বেশী পরিমান ঘুষের টাকা আদায় করেন।

din-ghusঅন্য দিকে রাজবাড়ীর মোস্তাকীন জানান, তিনি নতুন বিয়ে করেছেন বিরলের কালিয়াগঞ্জে। তাই নতুন বৌ নিয়ে শ্বশুর বাড়ী জাচ্ছিলেন। শালা-শালীদের পরবী দেওয়ার জন্য ৫ শত টাকা পকেটে ছিল। নতুন বৌয়ের সামনে পুলিশের অপমান থেকে বাচার জন্য সে টাকা পুলিশের লাইনমেনকে দিয়ে পুণরায় বাড়ী ফেরত চলে আসেন। তার আর যাওয়া হয়নি শ্বশুর বাড়ি। রাণীরবন্দরের ঈদের নামাজে ইমামতি করে ২২’শত টাকা পান মৌলানা সামাত আলী হুজুর। মটর সাইকেল নিয়ে যাচ্ছিল বিরলের বানিয়া পাড়ায়। তার কাগজপত্র ড্রাইভিং লাইসেন্স সবকিছুই ঠিক ছিল কিন্তু হেলমেল্ট না থাকার কারণে তার নিকট ১হাজার টাকা চান পুলিেেশর লাইনমেন। দর কষাকষির এক পর্যায়ে তিনি ৮’শত টাকা দিয়ে মুক্তিপান।

din-ghus-bnijoএদিকে পুলিশ সার্জেন্ট নুর কে ঈদের দিন এ অভিযানের কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান-এ অভিযান আমাদের উপর মহলের নির্দেশ। তিনি আরো জানান, এই অভিযানে ৫টি মামলা হয় ও ৩জন মটরসাইকেলে আহরণ করার জন্য ১০টি মটরসাইকেল আটক করা হয়। ঈদের দিন ট্রাফিক নুরের এই অভিযানের ফলে অনেকের ঈদ আনন্দ মাটির সাথে মিলে যায়।

প্রশ্ন হল প্রায় ৩ ঘন্টা অভিযানে মাত্র ৫টি মামলা কেন? আর সব মটর সাইকেলকি বৈধতানিয়ে রাস্তায় চলাচল করছিল?
ভুক্তভোগী মটরসাইকেল চালকদের অনুরোধ ঈদ, কুরবানী, দুর্গাপুজা, কালীপুজাসহ জনগণের বিশেষ আনন্দের দিনে মটরসাইকেল আটকের ঘটনা ও ঘুষ গ্রহনের ঘটনা যেন আর কখনও না ঘটে এবিষয়ে পুলিশ সুপারের সুদৃষ্টি’র অনুরোধ জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।