বঙ্গোপসাগরে মাছধরা ট্রলারে ভারতীয় জলদস্যুদের হামলা, ১ জেলে নিখোঁজ, আহত ১১

❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৬ দেশের খবর, বরিশাল

e


কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি:

বঙ্গোপসাগরে মাছধরা ট্রলারে ভারতীয় ডাকাত দল সন্তোষ বাহিনীর হামলায় শহিদুল কাজী (৪৫) নামে এক জেলে নিখোঁজ ও ১১ জেলে গুরুতর আহত হয়েছে। বুধবার রাত ১১টার দিকে চালনার বয়ার বাইরে গভীর সমুদ্রে ভারতীয় ডাকাতদের হামলার কবল থেকে রক্ষার জন্য শহিদুল কাজী সহ অপর দু’জেলে সাগরে ঝাঁপ দেয়। এসময় ভারতীয় ডাকাতদলের সদস্যরা ওই ট্রলারের জাল ও মাছ লুট করে নেয়। ভারতীয় ডাকাতদের হামলার শিকার হওয়া এফবি শুকতারা-১ নামের মাছধরা ট্রলারটি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মৎস্য বন্দর মহিপুর ফিরে এলে আহত জেলেদের কাছ থেকে এ সব তথ্য জানা যায়।

ডাকাতের হামলার ঘটনায় ১১ জেলেকে গুরুতর আহত অবস্থায় কুয়াকাটা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিখোঁজ জেলে শহিদুল কাজীর বাড়ী বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার হাতেমপুর গ্রামে।

এফবি শুকতারা ট্রলারের মালিক আলীপুরের রুহুল আমিন আকন জানান, গত ৮ সেপ্টেম্বর ১৫ জন জেলে নিয়ে মহিপুর মৎস্য বন্দর থেকে তার মালিকানাধীন ট্রলারটি ইলিশ মাছ ধরার জন্য সাগরে যায়। বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাতে ভারতীয় একটি ট্রলারে থাকা ডাকাত দল অতর্কিত হামলা, মারধর ও লুুটপাট শুরু করলে ট্রলারে থাকা জেলে শহিদুল কাজী, হারুন মাঝি ও মোতালেব সাগরে ঝাপ দিয়ে প্রাণে বাঁচার চেষ্টা করে। ডাকাতি শেষে চলে যাবার পর হারুন ও মোতালেবকে উদ্ধার করা সম্ভব হলেও শহিদুল কাজীকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

ডাকাতের হামলায় আহত এফবি শুকতারা-১ ট্রলারের জেলে হারুন জানায়, ডাকাতির পর ভারতীয় বেশ কয়েকটি ট্রলারের জেলেদের সাথে কথা বলে জানা গেছে এটি ভারতীয় সন্তোষ বাহিনীর কাজ।

মহিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম মাকসুদুর রহমান বলেন, সাগরে ডাকাতির বিষয়টি জেনেছি। হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন জেলেদের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।