• আজ রবিবার, ২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৬ মে, ২০২১ ৷

সালিসে স্ত্রীকে ডিভোর্স, দুধ দিয়ে গোসল করে ‘পবিত্র’ হলেন স্বামী (ভিডিও সহ)


❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর, স্পট লাইট

রবিউল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর- দাম্পত্য জীবনে ফাটল দেখা দেওয়ায় গ্রাম্য সালিসে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে কলসী ভর্তি দুধ দিয়ে গোসল করে নিজেকে পবিত্র করলেন স্বামী খোকন জাম্মাদার। পরে গোসলের সেই দৃশ্য স্থানীয়রা ভিডিওধারণ করলে নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করেন তিনি। আর তখনই ঘটনাটি প্রকাশ পেয়ে যায়। আলোচিত এ ঘটনাটি ঘটছে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে। খোকন উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের হযরত জাম্মাদারের সন্তান ও ভূঞাপুর কে এইচ মোবাইল হসপিটাল এর প্রোপাইটর।

bhuanpurঘটনার বিবরণে জানা যায়, লেখাপড়া শেষ করে দীর্ঘদিন যাবত ভূঞাপুর শহরের পাইলট স্কুল মার্কেটে কে এইচ মোবাইল হসপিটাল নামে এক দোকানে ব্যবসা করে আসছিল খোকন। এরই মধ্যে বুক ভরা আশা নিয়ে বিয়ে করে স্ত্রীকে নিয়ে সুখে শান্তিতে ঘর বাঁধার জন্য গত বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি পারিবারিকভাবে একই গ্রামের দুদু মিয়ার মেয়ে সুমি আক্তারকে বিয়ে করেন তিনি। ছেলে ও মেয়ের পছন্দে বিয়ে হলেও সাংসারিক জীবনে প্রায়ই লেগে থাকতো অশান্তি। মাঝে মধ্যেই স্বামীর সাথে ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি করে বাপের বাড়িতে চলে যেতেন স্ত্রী। এরই ধারাবাহিকতায় গত ঈদুল ফিতরের কয়েকদিন পরে পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া করে এক ছাদের নিচ থেকে সরে বাপের বাড়িতে চলে যান স্ত্রী সুমি আক্তার।

পরে খোকন ও তার পরিবার সুমিকে ফিরিয়ে আনতে অনেক চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। সম্প্রতি সুমি খোকনের পরিবারকে সাফ জানিয়ে দেয় তিনি আর তার সাথে এক ছাদের নিচে থাকতে চান না। অবশেষে দুপক্ষের লোকজনকে নিয়ে গতকাল শুক্রবার (১৬সেপ্টেম্বর) উপজেলার বামনহাটা গ্রামে গ্রাম্য এক সালিস বসে। সালিসেও সুমির একই কথা, তিনি খোকনের সাথে সংসার করতে নারাজ। গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনিরের উপস্থিতিতে সালিস দরবারে স্ত্রীকে দেনমোহর বাবদ ১লক্ষ ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করে তালাক দেয় খোকন। পরে তিনি নিজেকে পবিত্র ও পুরোনো সব কিছু ভুলে থাকার জন্য কলসি ভর্তি দুধ দিয়ে গোসল করেন। আর সেই গোসলের দৃশ্য স্থানীয়রা ভিডিও করলে শুক্রবার নিজের ফেসবুকে আপলোড করেন তিনি। আর তাতেই ঘটনাটি প্রকাশ পেয়ে যায়, পরে ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

এ ব্যাপারে খোকন জাম্মাদার বলেন, বুক ভরা আশা নিয়ে পারিবারিকভাবে গত বছর একই গ্রামের সুমিকে বিয়ে করেছিলাম। একই গ্রাম হওয়ার সামান্য ভুল বোঝাবুঝির কারনে প্রায়ই আমাকে না জানিয়েই ওর বাপের বাড়িতে চলে যেত। আর তখনই ওর মায়ের কথা মত আমাদের বাড়িতে আসতে নানা রকম তালবাহানা করতো।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি আমার জীবনের চেয়েও সুমিকে বেশী ভালবাসতাম। কখনো ভাবিনী আমার জীবন থেকে মাঝপথে সুমিকে এইভাবে হারাতে হবে। ও আমাকে ভালবাসলেও ওর মায়ের কথায় আমার সাথে সংসার করতে চায়নি। তাই পুরোনো সব স্মৃতি ভুলে থাকার জন্য এবং নিজেকে পবিত্র করতে দুধ দিয়ে গোছল করে নিয়েছি।

গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

দেখুন সেই ভিডিও

bhuanpurnews_