৬ মাসের দম্পত্তি জীবনে কেন আত্মহত্যা করলো সোনিয়া?


❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

নয়ন দাস, শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় সোনিয়া বেগম(১৯) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মূত্যু হয়েছে। শনিবার সকাল ৬টার দিকে উপজেলার কনেশ্বর ইউনিয়নের কনেশ্বর গ্রাম থেকে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় নিহতের স্বামী জয়নাল মোড়লকে প্রাথামিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে ডামুড্যা থানা পুলিশ।

ডামুড্যা থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জেলার নড়িয়া উপজেলার বিঝারি ইউনিয়নের সুজাসার গ্রামের রুহুল আমিন করাতির মেয়ে সোনিয়া আক্তারের সাথে একই ইউনিয়নের চর বিঝারি গ্রামের মকবুল মোড়লের ছেলে জয়নালের সাথে ৬মাস পূর্বে প্রেমের সম্পের্কে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিয়ের পর থেকে সোনিয়া জয়নালের সাথে সুখের জীবন শুরু করে। পবিত্র ঈদুল আযাহা উপলক্ষে শুক্রবার ডামুড্যা উপজেলার কনেশ্বর ইউনিয়নের কনেশ্বর গ্রাম তাদের বিয়ের উকিলবাপ আলমগীর মোল্লার রাড়িতে স্বামী ও ছোট বোন নুরজাহানকে নিয়ে বেড়াতে যায়। কিন্তু বেড়াতে গিয়ে আর ফেরা হল না সোনিয়ার। শনিবার রাতের যে কোন এক সময় ঘরের আড়ার সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। ছয় মাসের দম্পত্তি জীবনে কেন আত্মহত্যা করবে এই নিয়ে এলাকায় রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু পুলিশ বলছে, ঈদে জামা কাপড় কিনে দিলেও ফেসওয়াস ও স্নু কিনে না দেওয়ায় আত্মহত্যা করতে পারে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে রাখো হয়েছে।

jhulont-lash-uddhar-soriotpur

নিহতের পিতা রুহুল আমিন করাতির সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। কিন্তু মামা আব্দুল জলিল বলেন, কোন কিছু না হলেতো আমার ভাগ্নী মরতে পারে না। এর মধ্যে রহস্য আছে।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা মহাবুবুর রহমান সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, দম্পত্তি জীবন সুখের কাটলেও সামান্ন ফেসওয়াস ও স্নু কিনে না দেওয়ায় সোনিয়া আত্মহত্যা করেছে। তার হাতে (আমার মৃত্যুর জন্য কেই দায়ি না) লেখা রয়েছে। আমরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদের জন্য স্বামী জয়নালকে আটক করি। কিন্তু পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় জয়নালকে ছেড়ে দিয়েছি। এখন ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়া গেলে বলা যাবে।