🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ২৯ বৈশাখ, ১৪২৮ ৷ ১২ মে, ২০২১ ৷

জান্নাতের পিঠের দাগ গুলোই বলে দিচ্ছে কোথায় মানবতা !

❏ রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৬ আলোচিত বাংলাদেশ, নারী, ফিচার, মুক্তমত, স্পট লাইট

(নিউজ রুম) সময়ের কণ্ঠস্বর- কথায় কথায় বলি দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাচ্ছি আমরা । আসলেই কি আমরা সত্যিকারের অর্থে সভ্যতার দিকে এগিয়ে যেতে পারছি । এ প্রশ্নের উত্তর কেউ দিতে না পারলেও জান্নাতের পিঠের দাগ গুলোই বলে দিবে আমরা এ কোন সভ্য সমাজে বসবাস করছি ।

নির্যাতনকারি মনি ও শিশু জান্নাত

                                             নির্যাতনকারি  মনি            ও                             শিশু জান্নাত

 

জান্নাতকে গতকাল বাঘের হাত থেকে উদ্ধার করা হয়েছে এমন খবর প্রকাশিত হলেও জান্নাতে শরীরের বাঘের থাবার এত গুলো আচড় হয়তো সাংবাদিকদের ক্যামেরাতে ধরা পড়তো না । মানুষ হয়েও আজ আমাদের আচরন যেন হিংস্র জন্তু জানুয়ারের চেয়েও ভয়াবহ । গত কয়েক বছরে দেশে ঘটে যাওয়া বেশ কয়েকটি ঘটনা তাই প্রমান করেছে । লোহার রড দিয়ে শিশুকে পিটিয়ে মেরে ফেলা । জাতীয় দলের ক্রিকেটারের দ্বারা গৃহকর্মীর উপর অত্যাচার এমন হাজারো ঘটনা ঘটে গেছে আমাদের এ দেশটাতে ।

মাত্র ৯ বছরের জান্নাত যার ভিতরে এখনো বাস করছে অবুঝ মন । দুনিয়ার কিছুই যার বুঝে উঠা হয়নি । যে নিজের পেটের জ্বালা মেটাতেই কাজ করছিল, মাকে ফেলে দূরের কোন বাসা বাড়িতে । তার মতো অবুঝ শিশুটিকে কেমন করে কয়েক ডজন গরম খুন্তির দাগ দেয়া হয়েছে,তা না দেখলে বিশ্বাস করা যায় যাবে না । জান্নাতের শরীরের দাগ গুলো দেখে মনে হয়েছে কোন মানুষ নয় হিংস্র কোন জন্তু জানুয়ার তাকে ক্ষত বিক্ষত করে ছিড়ে ক্ষেতে বসে ছিল ।

হায়রে তথা কথিত ভদ্রলোক, নিজের সন্তানকে কি পারতেন এভাবে রক্তাক্ত করতে ? শিশু মেয়েটিকে দেখে মনে হয়েছে গৃহকর্তা এবং গৃহকর্তী জান্নাতের শরীরটাকে হায়নার মতো কামড়ে ছিঁড়ে ফেলতে চেয়েছিলেন ।

এ বিষয় নিয়ে জানতে চাওয়া হলে যে পরিবারটিতে জান্নাত ছিল তারা হয়তো শিশু  মেয়েটির কয়েক ডজন অন্যায় কাজের ফিরিস্তি তুলে ধরবেন । কিন্তু প্রশ্ন হলো এমন কি কাজ করেছিল জান্নাত যার শাস্তি আপনারা এভাবে দিলেন ?

 ঘটনার সূত্রে জানা যায় যে,  ঈদের আগে গ্রামের বাড়ি যেতে চাওয়ায় এবং ঈদে জামা কিনে দিতে বলায় ওমর ফারুক ও তার স্ত্রী মনি বেগম মিলে জান্নাতের উপর নির্যাতন চালায় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

গৃহকর্তী মনি বেগম নাকি একজন স্কুল শিক্ষিকা এবং নারী । জান্নাতের বিষয়টি ভাবতে ভাবতে মনি বেগম যে একজন নারী সেটিই ভুলে গিয়েছিলাম । মেয়েরা মায়ের জাত তাদের মনটা থাকে মমতায় ভরা । কিন্তু জান্নাতের উপর অত্যাচার করা মনি বেগমের মমতার যে কি অবস্থা তাতো দেশবাসী জেনেই গেছেন । একজন নারী, স্কুল শিক্ষিকা তার আচরনের বহিঃপ্রকাশ যদি এমন হয় তাহলে সমাজের অন্যদের অবস্থা কেমন হবে । যদি সমাজের অবস্থা আসলেই এমন হয় তাহলে মানবতাবোধ নামক বিষয়টি কোথায় ?

জান্নাতের আজকের এ অবস্থার জন্যে কি শুধু নির্যাতনকারী পরিবারটিই দায়ী ? নাকি আশে পাশের বসবাস করা মানুষ গুলোও কিছুটা দায়ী । সমাজে বসবাস করা একজন মানুষ হিসেবে কি কোন দায়িত্ব নেই একটি নির্যাতিত শিশুকে বাঁচানোর । নিজেদের শিশু সন্তানটির জন্য যে ভালবাস আদর তার বিন্দুমাত্র কেন অন্যর সন্তানের প্রতি দেখাতে পারি না । তাহলে এ কোন সমাজে আমরা বসবাস করছি ?

কেউ কিছু বলতে না পারলেও জান্নাতের পিঠের দাগ গুলোই আমাদের বলে দিচ্ছে আমরা এ কোন সভ্য সমাজে বসবাস করছি ! জান্নাতে শরীরের প্রতিটি দাগ যেন আমাদের সমাজ ব্যবস্থার দিকে আঙ্গুল তুলছে । জান্নাতের পিঠের দাগ গুলো যেন নতুন করে ভাবতে বলছে আমাদের শিশুদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে । আর কতকাল জান্নাতদেরকে আমরা দেখব কুকুর বিড়ালের ছানার মতো । কেন মনে হবে জান্নাদের শুধু জন্ম হয়েছে আমাদের তথাকথিত সভ্যসমাজের নামধারী ভদ্রলোকদের বাসায় কাজের জন্যে ।

আজ জান্নাত কষ্টে কাতরাচ্ছে আর  কাঁদছে,আমারতো মনে হয় জান্নাতের কাঁদার দরকার নেই । চোখের জল যদি ফেলতে হয় তাহলে তা ফেলবে সারা বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষ । কারণ আমাদের মানবতাবোধ হারিয়ে গেছে এ কষ্টেই কাঁদা উচিত ।