রগরগে কোন দৃশ্যে নয়; এবার সিনেমার পেছনের ‘নোংরামো’ নিয়ে বোমা ফাটালেন সুরভিন চাওলা!

❏ রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৬ বিনোদন, স্পট লাইট

বিনোদন ডেস্ক :

‘হেট স্টোরি-টু’ সিনেমায় খোলামেলা দৃশ্যে অভিনয় করে বলিউডে রাতারাতি তারকা বনে গেছেন ছোট পর্দার অভিনেত্রী সুরভিন চাওলা। সম্প্রতি বলিউডে মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত নতুন সিনেমা ‘পার্চড’। এ সিনেমাটিতেও বোল্ড দৃশ্যে অভিনয় করেছেন তিনি।

হেট স্টোরি-২’-তে একাধিক রগরগে দৃশ্যে কাজ করে আলোচনায় আসেন ছবিটিও বেশ ভাল ব্যবসা সফলতা অর্জন করেছে। ছবিতে শুধু খোলামেলাই হননি তিনি, একজন প্রতিবাদী ও প্রতিশোধপরায়ণ নারীর চরিত্রে অভিনয়শৈলীও দেখিয়েছেন।

বরাবরই ঠোঁট কাটা স্বভাবের এই নায়িকা এবার এবার সিনেমার পেছনের ‘নোংরামো” নিয়ে বোমা ফাটিয়েছেন।

‘হেট স্টোরি-২’এর বিষয়ে সুরভিন চাওলা বলেছিলেন , ‘ছবিটিতে সবাই মনে করেছিলেন আমি এখানে কেবল কাপড়ই খুলেছি। কিন্তু ছবি মুক্তির পর সবাই আমার অভিনয়ে সাধুবাদ জানিয়েছেন। তাই আত্মবিশ্বাসটা এবার বেড়ে গেছে। একতার নতুন ছবিতে কাজ করতে যাচ্ছি। এখানেও সুপারহট সুরভিনকেই আবিষ্কার করতে পারবে সবাই।’সুরভিন বলেন, ‘হেট স্টোরি-২’-তে চরিত্রের প্রয়োজনে কাপড় খুলেছি। চরিত্রের প্রয়োজন না হলে আমি ওইভাবে খোলামেলা হতাম না।তিনি বলেন, ‘আমি পরিচালককে খুশি করার জন্য কাপড় খুলিনা। চরিত্রের প্রয়োজনে কাপড় খুলতে আমি মোটেও দ্বিধাবোধ করি না।’সুরভিন বলেন, চরিত্রের প্রয়োজনে আমি যেমন আমার শরীর উাজড় করে দেই, তেমনি চরিত্রটিকে ফুটিয়ে তোলার জন্য আমার মনও উড়াড় করে দেই। চরিত্রের দাবি মেটাতে আমি কাপর্ন করি না।

movie

সম্প্রতি টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ অভিনেত্রী তার ক্যারিয়ারের বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেছেন। সিনেমাজগতে অপ্রীতিকর ঘটনার শিকার অনেকেই হন। বিশেষ করে নায়িকারা। এ প্রসঙ্গে তিনি সোজাসাপ্টা বলে দিয়েছেন- ‘বলিউডে আমাকে কাস্টিং কাউচের শিকার হতে হয়নি। দক্ষিণী একটি সিনেমার ক্ষেত্রে আমি কাস্টিং কাউচের শিকার হয়েছিলাম।’

এ প্রসঙ্গে সুরভিন বলেন, ‘আমি ভাগ্যবান যে বলিউডে আমি ঠিকঠাক মানুষদের সঙ্গ পেয়েছি। হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কখনো এ ধরনের কুপ্রস্তাবের মুখে পড়তে হয়নি। হতে পারে আমি আমার কথাবার্তায় এতটাই স্মার্ট ছিলাম যে, কখনো কেউ কোনো কু ইঙ্গিত করার সাহস দেখাননি। তবে তামিল সিনেমা করতে গিয়ে এমন অভিজ্ঞতার শিকার হয়েছি। অডিশনের পর আমি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা চরিত্র পেয়েছিলাম। ওটা খুব বড় একটা ফিল্ম ছিল। খুব নাম করা পরিচালক। যিনি নিজে হিন্দি জানেন না। তার কত বড় ধৃষ্টতা, এক বন্ধুকে দিয়ে ফোন করিয়ে তিনি আমায় তার সঙ্গে রাতে থাকার প্রস্তাব দেন। যত দিন ফিল্মটি তৈরির কাজ চলবে তত দিন আমাকে এটা করতে হবে বলে জানান পরিচালকের সেই বন্ধু। আমি না বলে চলে আসি।’

সুরভিন আরো জানিয়েছেন, অভিনয়ের স্ট্রাগলিং পিরিয়ডে তাকে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। তিনি একটি বাড়িতে পেয়িং গেস্ট থাকতেন। কাজের কারণেই তার ফিরতে রাত হয়ে যেত। যে কারণে তাকে ওই বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল। আমার কোনো টাকা ছিল না, সাহায্য করার কেউ ছিল না, রান্না করে দেওয়ারও কেউ ছিল না। আমি একেবারে একা ছিলাম। পরিবারকে খুব মিস করতাম। বাবা-মা সব সময় আমার জন্য চিন্তা করতেন। তবে তীব্র সংগ্রামের পর আজকের এই স্বীকৃতি পেয়েছি।