তালাক দেওয়া স্বামীর ঘরে ফিরতে রাজি না হওয়ায় মুখমন্ডলে কেমিকেল নিক্ষেপ

◷ ১:৪৬ অপরাহ্ন ৷ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬ দেশের খবর, বরিশাল
kamical

সৈয়দ বশির আহম্মেদ, কাউখালী প্রতিনিধি: পিরোজপুরের কাউখালীতে তালাক দেওয়া স্ত্রী, স্বামীর ঘরে ফিরে যেতে রাজি না হওয়ায় কেমিকেল দিয়ে চোখ ও মুখমন্ডল ঝলসে দেওয়ার চেষ্টা করে আবুল বাশার রাঢ়ী। গত ১৬ সেপ্টেম্বর এ ঘটনা ঘটলেও এখনও থানায় মামলা নেয়নি পুলিশ। মামলা করলে জীবন শেষ করে দেয়া হবে বলে হুমকী দেওয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কথা গুলো বললেন, কাউখালী উপজেলার নাঙ্গুলী গ্রামের আবুল বাশার খানের কন্যা আফসানা মিমি (৩৫)।

kamical

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বেডে আফসানা মিমি জানান, দেড় যুগ আগে ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার শুক্তাগড় গ্রামের আবুবকর সিদ্দিক রাঢ়ীর ছেলে আবুল বাশার রাঢ়ীর সাথে তার বিয়ে হয়। তাদের দুটি সন্তান রয়েছে। স্বামীর কৃতকর্মের অতিষ্ট হয়ে ২০১৫ইং সালের ১৯ আগষ্ট রেজিষ্ট্রিকৃত ভাবে স্বামী বাশারকে তালাক দেন মিমি। তালাক দেওয়ার পর থেকে বাশার রাঢ়ী মিমিকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য চেষ্টা করে কিন্তু মিমি কোন অবস্থাতেই তার প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ঢাকায় গার্মেন্টস ফ্যাক্টোরীতে চাকুরী নিয়ে সন্তানদের ভরন পোষন ও লেখা-পড়ার ব্যবস্থা করে আসছিলেন।

ঈদ উল আযহার ছুটিতে বাবার বাড়ীতে আসায় গত ১৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে হঠাৎ বাশার রাঢ়ী মিমির পিতার ঘরে ঢুকে বিষাক্ত পাউডার যাতীয় কেমিকেল মিমির চোখ মুখে ছিটিয়ে দেয় এবং হাত দিয়ে চেপে ধরে। মিমির ডাক চিৎকারে অন্যান্য লোক জন ছুটে এলে বাশার রাঢ়ী দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ বিষয় কাউখালী থানার ওসি মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন মামলা না নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, খবর পাওয়ার সাথে সাথে ইন্সেপেক্টর তদন্ত ও এক এসআই ঘটনাস্থলে পাঠাই কিন্তু এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ করলেও সেখানে এসিডের কোন আলামত পাওয়া যায় নাই। তবে পাউডার যাতীয় কোন কেমিকেল দেয়া হতে পারে। সেভাবে অভিযোগ লেখার জন্য বলা হয়েছে।