• আজ বৃহস্পতিবার, ৩০ বৈশাখ, ১৪২৮ ৷ ১৩ মে, ২০২১ ৷

বিস্ময়কর তরুণ; ১২ বার সর্প দংশনের পরও জীবিত


❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a6%9aআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- বিষাক্ত কোন সাপ একবার কামড় দিলেই জীবন অনিশ্চিত তথা জীবনের দফারফা উঠে যায়। কিন্তু এক বার দু বার নয় সর্বমোট ১২ বার সাপে কাটার পরও জীবিত আছেন ২০ বছর বয়সী বিস্ময়কর তরুণ লিঙ্গারাজু। তিনি ভারতের বিজয়পুরের একটি গরীব পরিবারের সদস্য এই । এতবার সাপে কাটার পরও জীবিত থেকে ইতিহাস গড়লেন তিনি।  ওই তরুন কে গত এক মাসেই চারবার সাপে কামড়েছে। এর মধ্যে দুবারই কামড়িয়েছে কিং কোবরা সাপে। এরপরও তিনি বেঁচে আছেন!

তাকে প্রথমবার সাপে কাটে পাঁচ বছর আগে সোলাপুরে। সেখানেই তিনি তার পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন। এরপর তাকে আরো সাতবার সাপে কাটে। তার উদ্বিগ্ন বাবা মা তাকে ডাক্তারের পরামর্শে ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করান।
তার চিকিৎসা বাবদ ৪০ হাজার রুপি খরচ করে আর্থিক সংকটে পড়ে যায় তার কৃষক পরিবার। এরপর তার পরিবার বিজয়পুরে স্থানান্তরিত হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।
তাদের বিশ্বাস ছিল কোনো অভিশাপের কারণেই হয়তো সোলাপুরে তাদের ছেলেকে বারবার সাপে কাটছিল। কিন্তু নতুন জায়গায় বসতি গড়ার পরও সাপ তাদের সন্তানের পিছু ছাড়েনি। এতে তারা প্রচণ্ড ধাক্কা খান ও হতাশ হয়ে পড়েন। নতুন স্থানেও তাদের সন্তানকে গত একমাসে চারবার সাপে কেটেছে!
এতে বিচলিত হয়ে তারা বাবা-মা তাকে কাজে পাঠানো বন্ধ করে ঘরে বসিয়ে রাখতে শুরু করেন।
লিঙ্গারাজুর পরিবারের বিশ্বাস অজানা কোনো অভিশাপের কারণেই হয়তো তাদের সন্তানকে বারবার সাপে কাটছে। তবে ডাক্তাররাও এর কোনো ব্যাখ্যা করতে পারছেন না। তাদের কাছেও বিষয়টিকে বেশ রহস্যময় লাগছে।
গ্রামের আয়ুর্বেদিক ডাক্তার সোমশেকার বলেন, তিনি যে দুবার লিঙ্গারাজুর চিকিৎসা করেছেন, সে দুবারই তাকে কিং কোবরা সাপে কেটেছে। তিনি বলেন, ১২ বার বিভিন্ন ধরনের বিষাক্ত সাপের কামড় খাওয়ার পরও লিঙ্গারাজুর বেঁচে থাকার বিষয়টি বেশ অলৌকিকই মনে হচ্ছে।
রাজুর পরিবার যে কয়জন ডাক্তারের কাছে গিয়েছেন তাদের কেউই এই রহস্যের কোনো সমাধান করতে পারেন নি। বেঙ্গালুরু মহানগরে গিয়ে চিকিৎসা করানোর এবং তাদের সন্তানের ওই রহস্যের সমাধানের জন্য আর্থ খরচ করার মতো সামর্থ্য নেই লিঙ্গারাজুর পরিবারের। ফলে রাজুর পরিবার এখন তাদের সন্তানের ওপর এই অজানা “অভিশাপ” নিয়েই দিন পার করছেন। এদিকে সবার মনে একটাই প্রশ্ন দিন রাত জেগে আছে কেন ওই তরুনকে এতবার সাপে দংশন করছে।