সংবাদ শিরোনাম

পণ্যবাহী ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১খালেদার জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি নেই, হয়নি বিদেশ যাওয়ার সিদ্ধান্তওপ্রধানমন্ত্রী কোরআন-সুন্নাহর বাইরে কিছু করেন না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীমির্জাপুরে গণহত্যা দিবস উপলক্ষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলনশনিবার থেকে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনাস্পুটনিক-৫ টিকা একে-৪৭’র মতো নির্ভরযোগ্য: পুতিনডোপটেস্টো রিপোর্ট: স্পিডবোটের চালক শাহ আলম মাদকাসক্তচাঁদপুরে ঐতিহাসিক বড় মসজিদে লক্ষাধিক মুসল্লির সালাতে ‘জুমাতুল বিদা’ রাঙামাটিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ দুই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আটক! আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষ : নারীসহ ৯জন আহত

  • আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টুম্পা হত্যাকারি কাউন্সিলরের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

১১:০১ পূর্বাহ্ন | বুধবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

রেজাউল সরকার (আঁধার), গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের গৃহবধু নুশরাত জাহান টুম্পা (৩০) কে হত্যার প্রতিবাদে এবং অভিযুক্ত স্বামী সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সোলায়মান মিয়ার ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।

unnamedমানববন্ধন চলাকালে নিহত টুম্পার বাবা-মা ও একমাত্র ছেলে নির্জন ইসলাম নাফি (৮) কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এ সময় নাফি জানায়, তার বাবা প্রায় সময়ই তার মা টুম্পাকে মারধর করতো। ওই সময় সে তার মায়ের কাছে গেলে তার বাবা তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিতো। আমি আমার মায়ের হত্যাকারীর শাস্তি চাই।’

মঙ্গলবার বিকালে গাজীপুরের কোনাবাড়ী-কাশিমপুর সড়কে প্রায় দেড় ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে শতশত নারী পুরুষ অংশ নেয়। মানববন্ধন শেষে এলাকাবাসী একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে শ্লোগানে ফাঁসির দাবি করেন।

নিহত নুশরাত জাহান টুম্পার পিতা বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, টুম্পার বিয়ের কয়েক বছর পর থেকেই সোলায়মান টুম্পাকে নানা ভাবে নির্যাতন করে আসছিল। একমাত্র ছেলে নিরজন ইসলাম নাফির মুখের দিকে তাকিয়ে মেয়ে (টুম্পা) সংসার করে আসছিল। কাউন্সিলর সোলায়মানকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান। তিনি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রীর কাছে এ হত্যার সুষ্ঠু এবং ন্যায় বিচার দাবি জানান।

মানববন্ধনে সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর শফিকুল আমিন তপন, খলিলুর রহমান এমএ, আজাহারুল ইসলাম মোল্লা, মো. আব্বাছ উদ্দিন খোকন, শাহনাজ পারভিন, মাহমুদা আক্তার মুক্তি, শিল্পপতি মফিজুল ইসলাম, জাকির হোসেন, ফারুক হোসেন, ইসমাইল হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা শেখ মো. আক্কাস আলী, মোঃ সোলাইমান মিয়া, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুল্লাহ সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে কোনাবাড়ী পারিজাত প্রাইমারি স্কুল মাঠে টুম্পার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোলায়মান মিয়া তার স্ত্রী ও একমাত্র সন্তান নিয়ে ঢাকা উত্তরার ৭নং সেক্টরের ৪ নম্বর রোডের ৪ নম্বর বাসায় কয়েক বছর ধরে বসবাস করতেন।

গত ১২ বছর আগে কাশিমপুরের ভবানীপুর এলাকার হাজী নুরুল ইসলামের ছেলে সোলায়মান মিয়ার সঙ্গে তার মেয়ে টুম্পার বিয়ে হয়। বিয়ের ৫ বছর পর থেকে বিভিন্ন সময় টুম্পাকে নির্যাতন করতো সোলায়মান। সোলায়মান মাদকের নেশা ও নারী সংক্রান্ত ঘটনায় স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মাঝে মধ্যে ঝগড়া হতো।

গত রোববার বিকালে সোলায়মান, টুম্পা, টুম্পার ভাই সাইফ ও তার স্ত্রীসহ বসুন্ধরা এলাকায় বেড়াতে যান। গাড়িতে স্বামী সোলায়মান মিয়ার মোবাইলে অন্য একটি মেয়ের ছবি দেখতে পেয়ে স্বামীর সঙ্গে টুম্পার ঝগড়া ও কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রাতে সোলায়মান ও টুম্পাকে তাদের ঢাকার উত্তরার বাসায় নামিয়ে ভাই সাইদ তার স্ত্রীকে নিয়ে চলে যায়। ওই সময় তাদের সন্তান নাফি (৮) উত্তরাতে তার নানা নজরুল ইসলামের বাসায় ছিল।

পরে রাতে কোন এক সময় টুম্পাকে নির্যাতন করে হত্যার পর সোলায়মান বাসার বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায়। সকালে গৃহ পরিচারিকা বাসায় দরজা বন্ধ দেখতে পেয়ে টুম্পার মাকে মোবাইলে জানায়। খবর পেয়ে তারা ওই বাসায় এসে জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে খাটের উপর টুম্পাকে পড়ে থাকতে দেখে। পরে তাকে উদ্ধার করে উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক টুম্পাকে মৃত ঘোষণা করেন। সন্ধ্যায় উত্তরা থানার পুলিশ টুম্পার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। ঘটনার পর থেকে স্বামী কাউন্সিলর সোলায়মান পলাতক রয়েছেন।

নিহত টুম্পার পিতা নজরুল ইসলাম জানান, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক মঙ্গলবার তাদের জানিয়েছেন টুম্পাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার আলামত পাওয়া গেছে।