পাক-ভারত সীমান্ত ঘাঁটিতে ভারতীয় যুদ্ধবিমান ও সামরিকবাহিনী , যেকোনো মুহূর্তে হামলা

❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৬ Uncategorized, আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক –  ভারত শাসিত কাশ্মীরের উরিতে একটি সেনা ঘাটিতে একদল বন্দুকধারীর হামলায় ১৭ জন সৈন্য নিহত হওয়ার পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা চলছে । এ ঘটনায়   পাকিস্তানে হামলার প্রাথমিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ভারত। ইতোমধ্যে পাক-ভারত সীমান্ত ঘাঁটিতে অবস্থান নিয়েছে ভারতীয় যুদ্ধবিমান ও সামরিকবাহিনী। অস্ত্র বহনকারী বিমানও ঘাঁটিতে পৌঁছেছে। খবর দৈনিক পাকিস্তান উর্দূর।

varotiyo-biman
এদিকে যেকোনো ধরনের হামলার জবাব দিতে প্রস্তুত পাকিস্তান। জিও নিউজ উর্দূ সূত্র জানায়, ভারত পাকিস্তানে হামলার প্রাথমিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। তাদের যুদ্ধবিমান ও অস্ত্রবহনকারী বিমান সীমান্ত ঘাঁটিতে পৌঁছেছে। তবে হামলার উপযুক্ত জবাব দিতে পূর্ণ প্রস্তুত পাকিস্তানও। অবশ্য পাকিস্তান প্রথম আক্রমণ করবে না, কিন্তু ভারতকেও ‘রেড লাইন’ ক্রস করতে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছে পাকিস্তান।
দৈনিক পাকিস্তান সূত্র জানায়, ভারতের হামলা ঠেকাতে পূর্ণ শক্তিমত্তা ব্যবহার করতে প্রস্তুত পাকিস্তান। ভারতীয় বাহিনীকে কোনোক্রমেই সীমান্ত রেখা অতিক্রম করতে দেয়া হবে না।
এদিকে পাকিস্তানের নিরাপত্তা নিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ এবং সেনাপ্রধান জেনারেল রাহিল শরীফের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। দেশটির নিরাপত্তা সংক্রান্ত নানা পদক্ষেপ নিয়ে ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের চলমান বৈরিতার প্রেক্ষাপটে এ আলোচনা হয়।
বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, সীমান্তে ভারতীয় বাহিনীর প্রস্তুতি খবরে পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে এ নিয়ে বেশ সতর্ক অবস্থা অবলম্বন করা হচ্ছে। পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা পিআইএ’র একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, সকাল থেকে গিলগিট, স্কার্দু ও চিত্রাল এলাকায় ‘বিমান পথ বন্ধ করে দিয়েছে দেশটির বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ।’
বিবিসি প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারত পাকিস্তানকে আক্রমণ করতে পারে এমন আশংকায় এসব ফ্লাইট বন্ধ রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইসলামাবাদ ও পেশোয়ারের মধ্যকার মূল মহাসড়কের কিছু অংশও বন্ধ রাখা হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, সংস্কারের জন্য মহাসড়ক বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু এই মহাসড়ক যুদ্ধবিমানের ওঠানামায় ব্যবহার করা সম্ভব।
কাশ্মীরের সেনা সদর দফতরে হামলাকে কেন্দ্র করে নতুন করে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়। ওই হামলায় ২০ সেনা সদস্য নিহত হওয়ার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করেছে ভারত। একই সঙ্গে পাল্টা জবাব দেওয়ার হুমকি দিয়েছে ভারত। তবে এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা জোরালোভাবে অস্বীকার করেছে পাকিস্তান।