সংবাদ শিরোনাম

পণ্যবাহী ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১খালেদার জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি নেই, হয়নি বিদেশ যাওয়ার সিদ্ধান্তওপ্রধানমন্ত্রী কোরআন-সুন্নাহর বাইরে কিছু করেন না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীমির্জাপুরে গণহত্যা দিবস উপলক্ষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলনশনিবার থেকে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনাস্পুটনিক-৫ টিকা একে-৪৭’র মতো নির্ভরযোগ্য: পুতিনডোপটেস্টো রিপোর্ট: স্পিডবোটের চালক শাহ আলম মাদকাসক্তচাঁদপুরে ঐতিহাসিক বড় মসজিদে লক্ষাধিক মুসল্লির সালাতে ‘জুমাতুল বিদা’ রাঙামাটিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ দুই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আটক! আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষ : নারীসহ ৯জন আহত

  • আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মির্জাপুরে নিখোঁজের তিনদিন পর হাসপাতালে লাশ শনাক্ত

১:০৩ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

las


অন্তু দাস হৃদয়, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় নিখোঁজ হওয়ার তিনদিন পর তানিয়া আক্তার(১৩) নামে এক মাদ্রাসা ছাত্রীর লাশ শনাক্ত করেছেন নিহত তানিয়ার পরিবার। এর সাথে নিহত তানিয়ার পরিবার বলছে, তাকে হত্যা করা হয়েছে।

গত সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকালে তানিয়ার চাচা আরফান আলী কুমুদিনী হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে গিয়ে তার মৃতদেহ শনাক্ত করেন। নিহত তানিয়া মির্জাপুর উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের পাঁচগাও গ্রামের নজরুল ইসলামের মেয়ে। সে বাঁশতৈল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। এ বিষয়ে তানিয়ার চাচা আরফান আলী সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে মির্জাপুর থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা গিয়েছে , গত শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় তানিয়া। পরে গত সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে লোক মারফত পরিবারের সদস্যরা জানতে পারেন যে মির্জাপুর উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের মন্দিরাপাড়া গ্রামের রায়হান ও তার চাচা আব্দুর রহিম তানিয়াকে অসুস্থ অবস্থায় মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। পরে খবর পেয়ে তানিয়ার চাচা আরফান আলী ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল লতিফকে সঙ্গে নিয়ে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে গিয়ে তানিয়ার মৃতদেহ দেখতে পান। এ বিষয়ে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালের পরিচালক ডা. দুলাল চন্দ্র পোদ্দার সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, গত সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে অসুস্থ অবস্থায় ৪-৫ জন যুবক লোক নিহত তানিয়াকে কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করান।

পরে আমরা বুঝতে পারি যে, সে বিষপান করেছেন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়। কিন্তু অনেক আগেই বিষপান করে দুপুর তিনটার দিকে তার মৃত্যু হয়। নিহত তানিয়াকে মির্জাপুর হাসপাতালে ভর্তির সময় ৪-৫ যুবক ছাড়া পরিবারের কোন লোকজন সেখানে ছিলেন না বলে ডা. দুলাল চন্দ্র পোদ্দার বলেন। এ দিকে তানিয়ার চাচা আরফান আলী সময়ের কন্ঠস্বরকে জানান, মির্জাপুর উপজেলায় মন্দিরাপাড়া গ্রামের রহমান কারীর ছেলে রায়হান দীর্ঘদিন ধরে নানা ভাবে ফুসলিয়ে অামার ভাতিজী তানিয়াকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) তানিয়াকে বাড়ি থেকে ভাগিয়ে নিয়ে যায়। কিন্তু রায়হানের পরিবারের লোকজন তানিয়াকে মেনে না নিয়ে তার উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে তাকে মেরে ফেলে। তানিয়ার মৃত্যুর পর থেকে রায়হান ও তার পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে।