অবশেষে বাবাকে পুড়িয়ে মারা সেই ছেলের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

১১:২৪ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ

ফরিদপুরে ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ বাবা এ টি এম রফিকুল হুদার (৪৮) মৃত্যুর পর ছেলে ফারদিন হুদা মুগ্ধের (১৭) বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঁচদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) ভোরে মারা গেছেন রফিকুল হুদা। বিকালে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে মুগ্ধের বিরুদ্ধে ।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজিম উদ্দিন সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে নিহতের ভগ্নিপতি আকরামউদ্দিন বাদী হয়ে ছেলে ফারদিন হুদা মুগ্ধকে আসামি করে হত্যা মামলাটি দায়ের করেছেন। তিনি বলেন, দ্রুতই আসামিকে আইনের আওতায় আনা হবে।

রফিকুল হুদার ভাই এ টি এম সিরাজুল হুদা বলেন, বুধবার ভোর চারটার দিকে রফিকুল মারা যান। পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হবে।

babake-puriye-hotta

ফরিদপুর শহরের কমলাপুর ডিআইবি বটতলা এলাকার বাড়িতে ছেলে মুগ্ধ বাবা রফিকুলের কাছে নতুন মডেলের মোটরসাইকেল চেয়েছিল। এর আগেও ছেলেকে মোটরসাইকেল কিনে দিয়েছিলেন রফিকুল। আর তাই নতুন মোটরসাইকেল কিনে দিতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১৫ সেপ্টেম্বর বিকেল ৪টার দিকে মুগ্ধ পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বাবা রফিকুল ও মা সিলভিয়া হুদার (৪০) শরীরে। ৯৫ শতাংশ পুড়ে যাওয়া অবস্থায় রফিকুলকে ভর্তি করা হয় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন তিনি।

ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ মা সিলভিয়াকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে রিলিজ দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন বাড়িতে আছেন। পুড়ে গিয়েছিল মুগ্ধের নিজের পায়ের কিছু অংশও। তাকেও চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। মুগ্ধ তার মায়ের সঙ্গেই আছে।