• আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চামড়ার দাম না থাকায় হতাশ গাইবান্ধার চামড়া ব্যবসায়ীরা

❏ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফরহাদ আকন্দ, গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার কালিবাড়ী চামড়ার হাটে ব্যাপক আমদানি থাকলেও দাম না পেয়ে হতাশ চামড়া ব্যবসায়ীরা। প্রতিবছর ঈদুল আজহার পর বসে চামড়ার এ হাট।

camra

ভোর থেকে গাইবান্ধা জেলাসহ পার্শ্ববর্তী দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, পাটগ্রাম, লালমনিরহাট, বগুড়া, রংপুর, নীলফামারী, নাটোর ও টাঙ্গাইল জেলার চামড়া ব্যবসায়ীরা এ হাটে চামড়া নিয়ে হাটে আসেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু চামড়া বিক্রি করে লাভের মুখ দেখেননি তারা।

হাটে আসা চামড়া ব্যবসায়ী আবদুল মোন্নাফ, জাহাঙ্গীর ও মাসুদ মিয়া জানান, বিভিন্ন এলাকার গ্রাম ঘুরে তারা সরকারের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে চামড়া ক্রয় করেছেন। এ ছাড়া ক্রয় করা চামড়া বাড়িতে রেখে তাতে লবণ ও পরিবহন খরচ করতে হয়েছে। এরপর এসব চামড়া হাটে আনেন বিক্রির জন্য। তবে এ বছর যে টাকায় চামড়া ক্রয় করেছেন তার চেয়েও হাটে কম দামে চামড়া বিক্রি করতে হচ্ছে। এতে এ বছর ব্যবসায়ীরা চামড়া বিক্রি করে চরম লোকসানের মুখে পড়েছেন।

নজরুল ইসলাম নামে এক চামড়া ব্যবসায়ী জানান, ঈদের পর বিভিন্ন এলাকার খুুচরা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রায় ১২ লাখ টাকার চামড়া ক্রয় করেন। পরে এসব চামড়ায় লবণ ও পরিবহন খরচ করতে আরও খরচ হয় ৫০ হাজার টাকা। কিন্তু এখন সেই চামড়া দাম করছে মাত্র ১০ লাখ টাকা। এতে তার প্রায় আড়াই লাখ টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে।

ঢাকা থেকে গাইবান্ধার এ হাটে আসা আর কে লেদার কমপ্লেক্সের মালিক নুরুল ইসলাম জানান, আর্ন্তজাতিক বাজারে চামড়ার দরপতন হওয়ায় পরও অনেক বেশি দামে চামড়া কিনতে হচ্ছে। এ হাটে চামড়ার আমদানি প্রচার। এ কারণে চামড়ার মান দেখে বিভিন্ন দামে চামড়া ক্রয় করছেন।

সরেজমিন দুপুরে হাটে গিয়ে দেখা যায়, কালিবাড়ী বাজারের প্রতিটি অলি-গলিসহ হাটের পুরো জায়গায় পালা করে রাখা হয়েছে গরু, খাসি, ছাগল ও ভেড়াসহ বিভিন্ন পশুর চামড়া। প্রতিটি চামড়ার পালা বেশ সাজানো-গোছানো অবস্থায় রয়েছে। চামড়া ক্রয়-বিক্রয় করতে হাটে আসা খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন। হাটের চারদিকের রাস্তা দিয়ে ট্রাক, পিকআপ, রিক্সা-ভ্যানে করে চামড়া নিয়ে হাটে আসেন ব্যবসায়ীরা।

রাজধানী ঢাকা, বগুড়ার ট্যানারি, লেদার কোম্পানি মালিকসহ এ অঞ্চলের এজেন্ট, প্রতিনিধি, মহাজন, ফরিয়া ব্যবসায়ীসহ চামড়া ক্রেতা-বিক্রেতাদের মিলনমেলায় রূপ নেয় এ হাট। গাইবান্ধার এ হাটে ভালো মানের চামড়া প্রতি ঘন ফুট ৮০ থেকে ৯০ টাকা বিক্রি হলেও নিম্নমানের চামড়া বিক্রি হয় ৩৫-৪০ টাকা।

হাট ইজারাদারের পক্ষে শফিকুল ইসলাম ইসলাম মিন্টু সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, চলতি বছর এক কোটি সতের লাখ টাকায় ঐতিহ্যবাহী কালিবাড়ী হাট ইজারা হয়। প্রতিবারের মতো এ হাটে চামড়ার আমদানি থাকলেও এ বছর চামড়া বিক্রি করে হতাশ ও লোকসানের মুখে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।