কোঝিকোড়ে মোদীর জনসভা নিয়ে বিজেপি-সঙ্ঘের বিরাট প্রত্যাশা রয়েছে। নেতা-কর্মীরা ভাবছেন, প্রধানমন্ত্রী খোলসা করবেন, নিছক কূটনৈতিক প্রক্রিয়া ছাড়া উরির ঘটনার পর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আর কী পদক্ষেপ করতে চলেছে সরকার। উরির ঘটনা ঘটতেই সঙ্ঘ থেকে আসা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব বলেছিলেন, ‘‘দাঁতের বদলে চাই গোটা চোয়াল।’’ আজ কোঝিকোড়ে বিজেপির বৈঠকের ফাঁকে দলে পাকিস্তান বিরোধী কট্টর মুখ সেই রাম মাধবকেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে পাঠান অমিত শাহ! উরি নিয়ে ধেয়ে আসা প্রশ্নবাণের মুখে প্রবল অস্বস্তির মধ্যেও রাম মাধবকে দলের দুর্গ সামলাতে হয়েছে। তিনি বলেন, কূটনৈতিক স্তরে অনেক পদক্ষেপ হয়েছে এব‌ং আরও হবে। তবে পাকিস্তানকে জবাব দিতে কূটনীতি ছাড়া আর কোনও পদক্ষেপের হদিস দিতে পারেননি তিনি। বরং তাঁর ব্যাখ্যা, ‘‘জাতীয় পরিষদের বৈঠকের মূল লক্ষ্য দীনদয়াল উপাধ্যায়ের আদর্শ মেনে গরিবের কল্যাণ। সেখানেই জোর আমাদের।’’

চাপের মুখে পরে দলের সচিব শ্রীকান্ত শর্মা বোঝানোর চেষ্টা করেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, সেনার তরফে গোড়া থেকেই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। সেনাকে পদক্ষেপ করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এ বার সেনা কী ভাবে কাজ করবে, সেটি তাদের এক্তিয়ারে পড়ে। এর বেশি আর কী করা যেতে পারে এই মুহূর্তে?’’ তবুও উদ্বিগ্ন অমিত শাহ দলের নেতাদের বার্তা দিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর উপরে আস্থা যেন হারিয়ে না যায়। লোকসভা ভোটের সময় যে যুব সম্প্রদায় মোদীর সমর্থনে এসেছিল, পাকিস্তান নিয়ে তাঁদের রোষ যাতে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে চালিত না হয়, তা দেখতে হবে।

বিজেপি নেতৃত্ব বুঝছেন, উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাবের ভোটের আগে শুধুমাত্র মুখের কথা শুনিয়ে কিংবা কূটনৈতিক পদক্ষেপ করে চিড়ে ভিজবে না। এতে এ কুল, ও কুল-দু’কুলই যাবে। রাহুল গাঁধীর ‘স্যুট-বুট’-এর সরকারের অভিযোগ ঝেড়ে ফেলে মোদীর ‘গরিব-দরদি’ ভাবমূর্তি তৈরি করতে ডাকা বিজেপির জাতীয় পরিষদের বৈঠকও উরির জন্য বেলাইন হয়ে যাচ্ছে।

কোঝিকোড়ে বসে আজ সকালেই বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়া টিম জানতে পেরেছে, পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথ মহড়া করতে রাশিয়ার গ্রাউন্ড ফোর্সের একটি টিম সেখানে পৌঁছে গিয়েছে। অথচ উরির ঘটনার পর রাশিয়া পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথ মহড়া করবে না বলে শোনা গিয়েছিল। সেটিকে মোদীর কূটনৈতিক সাফল্য হিসেবেও তুলে ধরা হয়েছিল। এখন দলের মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে, তা হলে কূটনৈতিক সাফল্যও আসছে কোথায়? রাম মাধবের জবাব, ‘‘অনেক খবরই আসছে। দলের নেতৃত্ব মাটির সঙ্গে জুড়ে রয়েছেন। তাঁরা জানেন তৃণমূল স্তরের অসন্তোষ। উপযুক্ত সময়ে, উপযুক্ত স্তরে সঠিক সিদ্ধান্ত হবে।’’

ক্ষমতায় আসার কয়েক মাস পর থেকেই মোদী-জাদু নিয়ে প্রশ্ন উঠছিল। দিল্লি, বিহারে হার, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেও ব্যর্থতার পর প্রশ্ন ওঠে মোদীর ‘অচ্ছে দিন’-এর প্রতিশ্রুতি নিয়ে। তা সত্ত্বেও দলের মধ্যে মোদীর প্রতি সহানুভূতি ছিল। দলের নেতৃত্ব বোঝাতে সক্ষম হয়েছিলেন, সমস্যার কলেবর এত বড়, সমাধান করতে সময় লাগবে। কিন্তু প্রথমে পঠানকোট, পরে উরির ঘটনায় যে ভাবে পাকিস্তান ঘরে ঢুকে হামলা করে গেল, আর এখনও মোদী হাতের উপর হাত রেখে বসে রয়েছেন, তা নিয়ে বিজেপিতে অসন্তোষ চড়া মাত্রায় গিয়ে পৌঁছেছে। মহারাষ্ট্রে এমএনএসের মতো দল পাকিস্তানি শিল্পীদের ভারত থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার যে কথা বলেছেন, বিজেপি সমর্থকরা তাকেও সমর্থন করতে শুরু করেছেন। এই অসন্তোষেই প্রবল চাপে মোদীর দল। এ সব কথা মাথায় রেখেই কোঝিকোড়ে এসে এখন বিজেপিকেও নতুন করে ভাবনাচিন্তা করতে হচ্ছে।

কোঝিকোড়কে বেছেই নেওয়া হয়েছিল দীনদয়াল উপাধ্যায়ের কারণে। এই শহরেই তিনি জনসঙ্ঘের সভাপতি হয়েছিলেন। লালকৃষ্ণ আডবাণী, মুরলীমনোহর জোশীর মতো বিজেপির নেতারা তখন উপস্থিত ছিলেন। পাকিস্তানে সামরিক পদক্ষেপ না করতে পারা নরেন্দ্র মোদী এই বিদ্রোহী নেতাদের আগামিকাল সংবর্ধনা দেবেন। তার পরেই ‘গরিবি-হটাও’-এর স্লোগান দেবেন তিনি। লক্ষ্য, উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাবের ভোট।