কুড়িগ্রামের যাত্রাপুর হাটে গরু কিনতে গিয়ে ফতুর হলেন ১১ জন পাইকার

❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বৃহত্তর গরুরহাট যাত্রাপুরে গরু বেচাকেনা করতে গিয়ে প্রায়শ গরু বিক্রেতা, গরু ব্যবসায়ী ও দালালরা পকেট কাটার শিকার হয়ে শুন্যহাতে বাড়ী ফিরতে হয়।

poket-mar

আজ শনিবার নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ও কালীগঞ্জ ইউনিয়নের হামিদুল হক, আবুবক্কর সিদ্দিক, শামসুল হক, দুলাল মিয়া, মমতাজ আলী, সাবান আলী, কোবাদ শেখ, মতিয়ার রহমান, কাশেম আলী, জসমত আলী ও বছির উদ্দিন জানান, আজ শনিবার বেলা ১০টার দিকে আমরা ১১ জন একটি ভটভটি করে গরু কেনার জন্য যাত্রাপুর হাটে যাই। বেলা সাড়ে বারোটার দিকে গরুহাটের মধ্যে হঠাৎ কিছু লোকের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও জটলা শুরু হয় এ সময় আমাদের ১১ জনের সহ অনেকের পকেটের টাকা খোয়া যায়। আমাদের ১১ জনের প্রায় ৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা খোয়া গেছে। দিনদুপুরে পকেট কাটার দল অনেককে নিঃস্ব করে ফেলেছে।

স্থানীয় গরু ব্যবসায়ীরা সময়ের কন্ঠস্বরকে জানান, প্রায় হাটের দিন এইরুপ ঘটনা ঘটেই চলেছে। হাট কমিটি শুধু মাইকিং করেই দায় সারে কিন্তু পটেটমার বা চোরকে ধরেন না। এ বিষয়ে হাট ইজারাদার বলেন, প্রতিহাটে এ রকম হয় না। হাটে লাখ লাখ মানুষ ও গরু ছাগল মহিষ ভেড়া বেচাকেনা হয় কতজনকে পাহারা দিব। আমরা হাটে অবিরাম মাইকে পকেটমার থেকে সাবধান থাকার পরামর্শ দেই। এরপর আমাদের করার কি আছে।

যাত্রাপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, মাঝে মধ্যে বিভিন্ন শহর থেকে একটি সংঘবদ্ধ পকেটমারের দল হাটে এসে নিজেদের মধ্যে গন্ডগোল পাকিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে এবং পকেট মারে চম্পট হয়।