নাটকীয় ম্যাচে দারুণ বোলিং করে বাংলাদেশকে জেতালেন সেই তাসকিন


❏ রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৬ Breaking News, খেলা, ফিচার, স্পট লাইট

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আফগানিস্তানকে ৭ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের বাংলাদেশ দলে একটি জায়গা ফাঁকাই রাখা হয়েছিল তার জন্য। সেই তাসকিন আহমেদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিংয়ের নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তি পেয়ে দলে ঢুকলেন। শেষ সময়ে দারুণ বোলিং করে বাংলাদেশকে জয়ও এনে দিলেন এই ফাস্ট বোলার। সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আফগানদের ৭ রানে হারিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

দুপুরে টস জিতে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

মাশরাফির করা ইনিংসের সপ্তম ওভারের শেষ বলে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন মোহাম্মদ শাহাজাদ (৩১)। অষ্টম ওভারের তৃতীয় বলে শাবির নূরিকে (৯) এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন সাকিব আল হাসান।

৪৬ রানে ২ উইকেট হারানোর পর তৃতীয় উইকেটে শতরানের জুটি জুটি গড়ে প্রতিরোধ গড়েন হাশমতউল্লাহ শাহিদি ও রহতট শাহ। দুজনই তুলে নেন ফিফটি। দলীয় ১৯০ রানে রহমতকে ফিরিয়ে ১৪৪ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব। মুশফিকের হাতে স্টাম্পড হন রহমত (৭১)।

এরপর দলীয় ২১০ রানে হাশমতউল্লাহ শাহিদিকে সৌম্য সরকারের ক্যাচ বানিয়ে বিদায় করেন তাইজুল ইসলাম। দলীয় ১৩০ রানে নজিবুল্লাহ জাদরানকে মুশফিকের ক্যাচে পরিণত করেন মাশরাফি।

এর আগে ব্যাট হাতে বাংলাদেশের পক্ষে হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল সর্বোচ্চ ৮০ রান করেন। ৬৭ রান করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আর ৪৮ রানের ইনিংস খেলেন সাকিব আল হাসান।

বল হাতে আফগানিস্তানের দৌলত জাদরান ৪টি উইকেট নেন। ২টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ নবী ও রশিদ খান।

ban-win

মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী জুটিতে ব্যাট করতে নামেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। দৌলত জাদরানের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে ফিরে যান সৌম্য সরকার (০)। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তামিম ইকবালের সঙ্গে ৮৩ রান সংগ্রহ করে আউট হন ইমরুল কায়েস (৩৭)। মোহাম্মদ নবীর বলে বোল্ড হয়ে যান তিনি।

দলীয় ১৬৩ রানের মাথায় মিরওয়েজ আশরাফের বলে লং অফে নাভীন-উল-হকের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন তামিম ইকবাল (৮০)। সেঞ্চুরি থেকে ২০ রান দূরে থেকে ফিরে যান তিনি। ৯৮ বলে খেলা তার ইনিংসে ৯টি চারের মার থাকলেও কোনো ছক্কার মার ছিল না।

দলীয় ২০৩ রানের মাথায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৫তম হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে সাজঘরে ফেরেন। মোহাম্মদ নবীর বলে ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মিরওয়েজ আশরাফের তালুবন্দি হন মাহমুদউল্লাহ (৬২)। তার ৭৩ বলে করা ৬২ রানের ইনিংসে ৫টি চারের মারের পাশাপাশি ২টি ছক্কার মার ছিল।

২১৫ রানের মাথায় রশিদ খানের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে যান মুশফিকুর রহিম (৬)। আর ২২৭ রানের মাথায় ওই রশিদ খানে বলেই এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাব্বির রহমান (২)। এরপর ২৪৬ রানে ব্যক্তিগত ৪৮ রান করে আউট হন সাকিব। তার ইনিংসে ৩টি চারের মার ছিল। ২৫৪ রানে মাশরাফি, ২৬০ রানে তাসকিন ও ২৬৫ রানে তাইজুল ইসলাম আউট হলে বাংলাদেশের ইনিংসের ইতি ঘটে।