• আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কুড়িগ্রামে ব্রম্মপুত্র নদের পেটে নুনখাওয়া ইউনিয়নের দুটি গ্রাম

❏ সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: সম্প্রতি বন্যার পর ব্রম্মপুত্র নদের পানি কমলেও ভাঙ্গন অব্যাহত আছে। নুনখাওয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহাবুল হক সরকার জানান, গত ২০-২৫ দিন ধরে ব্রম্মপুত্র নদের অব্যাহত ভাঙ্গনে আমার ইউনিয়নের কাপনা ও সাহেবগঞ্জ গ্রাম দুটির প্রায় ৪০টি পরিবার ভিটামাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছে। ওই পরিবারগুলো ওয়াপদা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। আমি উপজেলায় প্রতিবেদন দিয়েছি। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিটি পরিবারকে ৩০ কেজি করে জিআর এর চাউল দেয়া হয়েছে।

nodi

সাহেবগঞ্জ গ্রামের বৃদ্ধ আবেদ আলী (৮০) ও হুরমুজ শেখ (৭৫) জানান, আমরা ছোট বেলায় দেখছি সাহেবগঞ্জ থেকে ব্রম্মপুত্র নদির দুরত্ব ছিল ৪-৫ মাইল দুরে। সেই নদী ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে শেষ মেষ আমার বাপ দাদার ভিটাবাড়ী পর্যন্ত গিলে খাইল। শেষ বয়সে বাপ দাদার কবরগুলো ও ভিটাছালা হারিয়ে মনটা খুব খারাপ। কাপনার কছিরন বেগম (৬৫) জানান, তার বাড়ীর ঘড় সরায়ে নিলেও তার স্বামীর কবর নদী গর্ভে যাওয়ায় তিনি খুব ব্যতিত। নাগেশ্বরী উপজেলা প্রকল্প বাস্থবায়ন কর্মকর্তা আকরাম হোসেন জানান, নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর জন্য টিন চেয়ে প্রতিবেদন দিয়েছি। বরাদ্ধ পেলে পুর্নবাসন করা হবে।