• আজ বৃহস্পতিবার। ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৬:৪০

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন মহাসড়ক পারহতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের

⏱ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৬ 📁 ঢাকা, দেশের খবর

অন্তু দাস হৃদয়, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা  নিজ নিজ  জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে। এতে করে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

tangail

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় ছয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হচ্ছে,  মির্জাপুর গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয়, গোড়াই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দেওহাটা এ জে উচ্চ বিদ্যালয়, দেওহাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুর্নী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও কুর্নী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়গুলো ব্যস্ততম ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের উত্তরপাশে অবস্থিত। ক্লাস শুরুর আগে এবং ক্লাস ছুটির শেষে নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারে কোনো সু-ব্যবস্থা নেই। ফলে  এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অধ্যয়নরত শত শত শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন নিজ-নিজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য,  ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মির্জাপুর  কুর্নী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র শহীদুর রহমান মহাসড়ক পারাপারের সময় গোপালপুর (দ্রুতগামী) বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহত হয় বলে জানিয়েছেন ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু তাহের। এছাড়া গত এক মাস আগে মির্জাপুর দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র শিফাত ও ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র সজিব  মহাসড়ক পারাপার হওয়ার সময় দ্রুতগতির মোটর সাইকেলের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়। মির্জাপুর গোড়াই ও দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে প্রায়ই এ ধরনের  দুর্ঘটনাগুলো হচ্ছে।

সূত্র জানান, দুর্ঘটনা রোধ এবং নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারের জন্য ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর সামনের মহাসড়কে গতিরোধক (স্প্রিট বেকার)  নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু মহাসড়কে যানজট বিশেষ করে ঈদ-পূজোর  মৌসুমে যানজট এড়ানোর জন্য সে গতিরোধক গুলো অনেক আগেই ভেঙে ফেলা হয়েছে। ফলে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শত শত শিক্ষার্থীরা  গত দুই বছর ধরে নিজ-নিজ  জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে।

এ বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলার  দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র সেতু, স্বর্ণালী ও সঞ্চিতাদের সাথে কথা বললে তারা  সময়ের কন্ঠস্বরকে জানায়, নিজ-নিজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাদের প্রতিদিন মহাসড়ক পারাপার হতে হয়।

পরে, মির্জাপুর উপজেলায় দেওহাটা এ জে উচ্চ বিদ্যালয়, গোড়াই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ খোরশেদ আলম ও লুৎফর রহমান সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, তাদের শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে।

একই বিষয়ে,  মির্জাপুর গোড়াই ইউপি সদস্য দেওহাটা এলাকার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারের ব্যবস্থা না থাকায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা সব সময় উদ্বিগ্ন থাকেন।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর গোড়াই হাইওয়ে থানার (ওসি) মোঃ খলিলুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সময়ের কন্ঠস্বরকে জানান, মহাসড়কের ওই স্থানগুলোতে নিরাপদে পারাপারের ব্যবস্থা না থাকার কারনে  যে কোনো সময় দুর্ঘটনার শিকার হতে হয় শিক্ষার্থীদের। তিনি আরো জানান,  এ ব্যাপারে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। যাতে করে আর কোন শিক্ষার্থীদের দুর্ঘটনার শিকার না হতে হয়।