ফারুক হত্যাকান্ড: সাংসদ রানার ঘনিষ্ঠ সহযোগী নুরুকে আরেক মামলায় গ্রেপ্তারের আবেদন

⏱ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৬ 📁 Uncategorized

অন্তু দাস হৃদয়, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারী, টাঙ্গাইল আওয়ামী লীগ নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যা মামলার আসামি নাসির উদ্দিন নুরুকে একটি জোড়া খুনের মামলায় গ্রেপ্তারের আবেদন করেছে গোয়েন্দা(ডিবি) পুলিশ ।

আবেদনটি গত রোববার করা হলেও বিষয়টি আজ (২৭ সেপ্টেম্বর) মঙ্গলবার জানা যায়। সাংসদ আমানুর রহমান খান (রানা’র) ঘনিষ্ঠ সহযোগী নুরু গত শনিবার ফারুক হত্যা মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে, আদালত নুরুর জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাঁকে জেল হাজতে পাঠান।

টাঙ্গাইল শহরের চাঞ্চল্যকর মামুন ও শামীম হত্যা মামলায় নাসির উদ্দিন নুরুকে গ্রেপ্তার দেখানোর জন্য গত রোববার টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার সিংহ টাঙ্গাইলের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম অঞ্জন কান্তি দাসের আদালতে আবেদন জানান। বিচারক এ বিষয়ে আদেশের জন্যঅাগামী ( ২৯ সেপ্টেম্বর) তারিখ ধার্য করেন।

এ ব্যাপারে, টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা অশোক কুমার সিংহ সময়ের কন্ঠস্বর’কে জানান, মামুন ও শামীম হত্যা মামলাটির তদন্ত করতে গিয়ে ঘটনার সঙ্গে নুরুসহ বেশ কয়েক জনের জড়িত থাকার কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তাই তাঁকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন জানানো হয়েছে। আবেদন মঞ্জুর হলে তাঁর রিমান্ড চাওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১৬ জুলাই টাঙ্গাইল সদর উপজেলার পিচুরিয়া গ্রামের যুবলীগ কর্মী মামুন ও শামীমকে টাঙ্গাইল-৩ ঘাটাইল অাসনের সাংসদ রানার ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী মোর্শেদ ফোন করেন ডেকে নিয়ে যায়। তার পর থেকে মামুন ও শামীম নিখোঁজ রয়েছে। নিহত মামুনের বাবা হাতেম আলী পরের বছরের ২১ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল সদর থানায় মামুন ও শামীমকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ এনে মামলা করেন।