🕓 সংবাদ শিরোনাম

রোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফআর এমন ভুল হবে না: নোবেলস্বেচ্ছায় কারাবরণের আবেদন নিয়ে থানায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরাইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে রাস্তায় ঢাবি শিক্ষক সমিতিযমুনা নদীতে ডুবে তিন কলেজ ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু‘বাংলাদেশে সাংবাদিকতাকে তথ্য চুরি বলা হচ্ছে, এর চেয়ে দুঃখ আর নেই’

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

পুরান ঢাকার সেই কারাগার পরিদর্শন করতে চান প্রধানমন্ত্রী


❏ মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর - পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ছোট বোন শেখ রেহানাকে সঙ্গে নিয়ে তিনি এই কারাগার পরিদর্শন করতে চান। পরিদর্শনকালে ঐতিহাসিক এ কারাগারের কোথায় কি হবে সে সম্পর্কে দিক নির্দেশনা প্রদান করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

কারা অধিদফতরের একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, এপ্রিল মাসে কেরাণীগঞ্জের নতুন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শনকালে তিনি কারা মহাপরিদর্শককে এ ইচ্ছার কথা জানান। পরবর্তীতে কারা মহাপরিদর্শক প্রধানমন্ত্রীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করতে গেলে তিনি ছোটবোন শেখ রেহানাকে সঙ্গে নিয়ে কারাগার পরিদর্শন করতে চান বলেন তাকে জানান।

pm-hasina

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কারা মহাপরিদর্শকের নির্দেশে অধিদফতর থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কবে নাগাদ প্রধানমন্ত্রী হাসিনা ও শেখ রেহানা সময় দিতে পারবেন তা জানতে চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

কারা অধিদফতরের এআইজি প্রিজনস (প্রশাসন) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, খুব শিগগিরই তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে প্রধানমন্ত্রী ও তার ছোট বোনের পুরোনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শনের সময় পাবেন।

ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগার কেরাণীগঞ্জে স্থানান্তরের পর বর্তমান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ১৭ একর জায়গায় কি হবে? কারা অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের রাজনীতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও প্রত্মতত্ত্বের স্মৃতি ধরে রেখে কিভাবে জমির সঠিক ব্যবহার করা যায় সে সম্পর্কে একটি পরিকল্পনা ও নকশা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা পড়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবকে আহ্বায়ক ও কারা অধিদফতরের আইজিকে (প্রিজন) সদস্য সচিবসহ একজন ইতিহাসবিদ, একজন স্থাপত্যবিদ ও একজন প্রত্মতত্ত্ববিদ সমন্বয়ে গঠিত পাঁচ সদস্যের এ কমিটি এ নকশা প্রণয়ন করে জমা দিয়েছেন বলে জানা যায়।

কারা অধিদফতরের একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, এককালের মোগল দুর্গ ও পরবর্তীতে ১৯শ’ শতকের শুরুর দিকে সংস্কারের মাধ্যমে জেলখানায় রূপান্তরিত নাজিমউদ্দিন রোডের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারটি অনেক স্মৃতি বিজড়িত।

রাজনীতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও প্রত্মতত্ত্বসমূহকে ধরে রেখে কিভাবে জমির সঠিক ব্যবহার করা যায় প্রণীত নকশায় সে চেষ্টা করা হয়েছে।

জানা গেছে , বিভিন্ন পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে বৃটিশ আমলে নির্মিত দুটি ভবন স্মৃতি হিসেবে সংরক্ষণ, বঙ্গবন্ধু, চার নেতা ও কারা স্মৃতি জাদুঘর জনগণের জন্য উন্মুক্ত, সুন্দর একটি বিনোদন পার্ক নির্মাণ, কারা অধিদফতরাধীন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের জন্য একটি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট নির্মাণ। এছাড়া কারা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কল্যাণ ফান্ড থেকে অর্থ ব্যয়ে বহুতল বিশিষ্ট শপিং কমপ্লেক্স নির্মিত হবে। যেখানে সুইমিং পুল, কনভেনশন সেন্টার ও জিমনেশিয়ামের সুযোগ-সুবিধা থাকবে। এছাড়া কারাগারের সঙ্গে থাকা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের পাশে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ করা হবে। বাকি জমিতে নির্মাণ করা হবে কারা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮৩৬ সালের আগ পর্যন্ত এটি কোতোয়ালী পুলিশ স্টেশন হিসেবে ব্যবহৃত হতো। বৃটিশ শাসনের আগে এটি মোগলদের দুর্গ ছিল এবং পরবর্তীতে ১৯শ’ শতকের শুরুর দিকে দুর্গ সংস্কার করে জেলখানায় রূপান্তরিত করা হয়।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এক সময় রাজনৈতিক বন্দিদের আটক রাখার জেল হিসেবে সর্বমহলে সুপরিচিত ছিল। বিশেষ করে ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন ও পরবর্তীতে ১৯৭১ এ রাজনৈতিক বন্দিদের এখানে রাখা হয়। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয় এই জেলখানাতেই।