শেখ হাসিনাকে জন্মদিনে মোদির শুভেচ্ছা

❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৬ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ সন্তান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭০তম জন্মদিন আজ বুধবার। তার ৭০তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ef93bf56b3fa940444d68323399b3eac-pmচিঠিতে মোদি জন্মদিনে শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন ও শুভ কামনা জানান। তিনি বলেন, ‘আপনার দৃঢ় নেতৃত্ব কঠিন সময়ে বাংলাদেশকে আলোর পথ দেখিয়েছে। আপনার দক্ষ নেতৃত্বে উন্নয়ন থেকে নিরাপত্তা—সবক্ষেত্রে বাংলাদেশ শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামী মাসে ভারতের গোয়ায় অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে এবং আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনার জন্য তিনি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।

১৯৪৭ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের মধুমতি নদী তীরের প্রত্যন্ত পাড়াগাঁ টুঙ্গিপাড়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ, বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীদের বিচার, পার্বত্য চট্টগ্রমের ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি সম্পাদন, একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি, ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের কান্ডারিসহ জাতীয় জীবনের বহুক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বর্তমানে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনে যোগদান উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তর আমেরিকার দু’টি দেশ কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি সফরে তিনি ঢাকা ত্যাগ করেন। গত ২২ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের এই অধিবেশনে তিনি নারীর ক্ষমতায়নে তাঁর অসাধারন অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে ‘প্লানেট ৫০- ৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ’ অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন। এ অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তির মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন হিসাবে জাতিসংঘ উইমেন স্বীকৃতি অর্জন করেন।

গত বছর জাতিসংঘের ৭০তম অধিবেশনেও তিনি দুটি পুরস্ক‹ারে ভূষিত হন। জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় জাতীয় ও আর্ন্তর্জাতিক পর্যায়ে সক্রিয় ও দৃশ্যমান ভূমিকা এবং বলিষ্ঠ নেতৃত্বের স্বীকৃতি হিসেবে ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে যুগান্তকারী উদ্যোগের জন্য ‘ আইসিটি টেকসই’ উন্নয়ন পুরষ্কার লাভ করেন শেখ হাসিনা।

এর আগে রাষ্ট্র পরিচালনায় দক্ষতা, সৃজনশীলতা এবং সাফল্যের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে তিনি ‘সাউথ সাউথ’ ও ‘সেরেস’ পদকসহ অন্যান্য পুরস্কারে ভূষিত হন। বাংলাদেশে নারী ও শিশুর উন্নয়নে ভ’মিকা রাখার জন্য ইউনেস্কো থেকে ‘ শান্তির বৃক্ষ (ট্রি অব পিস) অভিধায়ও সিক্ত হন।

পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার প্রথম সন্তান শেখ হাসিনার ডাক নাম হাসু। দাদা শেখ লুৎফর রহমান ও দাদি সাহেরা খাতুনের অতি আদরের নাতনি শেখ হাসিনার শৈশব-কৈশোর কেটেছে দাদা-দাদির কোলে-পিঠে মধুমতি নদীর তীরে টুঙ্গিপাড়ায়। তাঁরা পাঁচ ভাই-বোন। অপর চারজন হচ্ছেন শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রেহানা এবং শেখ রাসেল।

ভাই-বোনদের মধ্যে শেখ হাসিনা ও রেহানা ছাড়া কেউই জীবিত নেই। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে পিতা বঙ্গবন্ধু এবং মাতা ফজিলাতুন্নেছাসহ সবাই ঘাতকদের হাতে নিহত হন। পিতাকে খুব একটা কাছে না পেলেও শৈশব-কৈশোর আনন্দেই কেটেছে শেখ হাসিনার।