🕓 সংবাদ শিরোনাম

রোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফআর এমন ভুল হবে না: নোবেলস্বেচ্ছায় কারাবরণের আবেদন নিয়ে থানায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরাইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে রাস্তায় ঢাবি শিক্ষক সমিতিযমুনা নদীতে ডুবে তিন কলেজ ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু‘বাংলাদেশে সাংবাদিকতাকে তথ্য চুরি বলা হচ্ছে, এর চেয়ে দুঃখ আর নেই’

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

সীমান্ত যখন উত্তাল, তখন পাক প্রধানমন্ত্রী ব্যস্ত শপিং নিয়ে


❏ বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

%e0%a6%a4%e0%a6%b9%e0%a6%9cআন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- উরি হামলায় ঘটনায় পাকিস্তান ও ভারতের যখন সম্পর্কের ভাটা পড়ছে, সীমান্ত যখন উত্তাল। বাতাসে যখন যুদ্ধের আভাস তখন দুই দেশের প্রধান মন্ত্রীরই উচিত (পাকিস্তান-ভারত) সামনে থেকে দেশকে নেতৃত্ব দেয়া। তবে তা নিয়ে দিন রাত ভারতের প্রধানমন্ত্রী বৈঠক করলেও, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ কী করছেন জানেন? ভারতীয় গণমাধ্যমে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়েছে গত সোমবার লন্ডন নিবাসী শোয়েব তইমুর নামে পাকিস্তানের এক ডেটা-সায়েন্টিস্টের করা একটি টুইটের পর থেকেই জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। টুইটে তিনি দাবি করেন, লন্ডনের বিখ্যাত শপিং মল হ্যারোডস-এ কেনাকাটা করছেন নওয়াজ শরিফ।  

শুধু তাই নয়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী যখন একটি নামী ব্র্যান্ডের জুতো কিনতে ব্যস্ত ছিলেন, সেই সময়ে পাকিস্তানি এক মহিলা নওয়াজ শরিফের ছবি তুলতে গেলে পাক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে থাকা নিরাপত্তাকর্মীরা তাঁর সঙ্গে অসভ্য আচরণ করেন বলেও অভিযোগ করেন তইমুর।

ওই ডেটা সায়েন্টিসের দাবি, একটি হোয়্যাটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে তিনি জানতে পারেন, নওয়াজ শরিফের ছবি তোলার চেষ্টা করলে প্রথমে ওই পাকিস্তানি মহিলাকে বাধা দেওয়া হয়। তার পরে ওই মহিলার সঙ্গে অসভ্য আচরণও করে পাক প্রধানমন্ত্রীর দেহরক্ষীরা।

শুধু তাই নয়, মহিলার থেকে তাঁর মোবাইল ফোনটিও কেড়ে নেওয়া হয়। এমনকী, তাঁকে পাক হাইকমিশনে ডেকে পাঠিয়ে জিঞ্জাসাবাদও করা হয়। কিন্তু তাঁর ফোনটি ফেরত দেওয়া হয়নি।

দেশ যখন সঙ্কটে, তখন শরিফ কীভাবে লন্ডনে কেনাকাটা করেন, তা নিয়ে পাকিস্তানের বিরোধী পক্ষও সরব হয়েছে। প্রাক্তন ক্রিকেটার এবং তহরিক-এ-ইনসাফ দলের চেয়ারম্যান ইমরান খান কটাক্ষ করে বলেছেন, ‘দেশ যখন বিপদে তখন নওয়াজ শরিফ বিদেশে ছুটি উপভোগ করছেন।’

ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা যখন চরমে পৌঁছেছে, যে কোনও মুহূর্তে যুদ্ধের আশঙ্কায় প্রহর গুণছে দুই দেশ, তখন কীভাবে শরিফ বিদেশে কেনাকাটায় ব্যস্ত থাকেন তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতেও অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। অনেকেই মজা করে বলছেন, দেশের প্রধানমন্ত্রীই যদি পরিস্থিতির বিচার করতে না পারেন, তাহলে আর পাকিস্তানের থেকে কীভাবে দায়িত্বশীল রাষ্ট্রের মতো ব্যবহার আশা করা যায়?