দক্ষিণ আফ্রিকার জঙ্গলে মৃত্যুর প্রহর গুনছে ফরিদপুরের দুই ব্যক্তি


❏ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৬ ঢাকা, দেশের খবর

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: কানাডায় পাঠানোর কথা বলে দালালের খপ্পড়ে পড়ে ফরিদপুরের দুই ব্যক্তি এখন দক্ষিণ আফ্রিকার জঙ্গলে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। তাদেরকে যেকোন উপায়ে দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য জোর অনুরোধ জানিয়েছে পরিবারের সদস্যরা।

jongol

জেলার নগরকান্দার লস্করদিয়া ইউনিয়নের লস্করপুর গ্রামের বাসিন্দা মাহফুজুর রহমান মোল্যা অভিযোগ করেন, তার ভাই তৈয়ব মোল্যা (২০) ও ভগ্নিপতি আজিজুর রহমান মোল্যাকে (৪৮) কানাডায় পাঠানোর জন্য আলফাডাঙ্গার জনৈক হাবিবুর রহমান হাবিবকে তার পরিবার ১৮ লাখ টাকা দেন। গত ৬ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর হতে কানাডার উদ্দেশে রওনা করা হয়। তিন দিন পর তাদেরকে দক্ষিণ আফ্রিকা নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর তাদেরকে দক্ষিণ আফ্রিকার জঙ্গলে একটি ঘরে আবদ্ধ করে রাখা হয়েছে।

মাহফুজুর রহমান মোল্যা জানান, তার ভাই ও ভগ্নিপতি তাদেরকে দক্ষিণ আফ্রিকার সেই জঙ্গলের ঘর থেকে ফোন করে দুর্দশার কথা জানায়। এরপর তাদের মুক্তির জন্য আরো টাকা দেয়ার অনুরোধ জানায়। সে অনুযায়ী দালালকে পরবর্তীতে আরো ১০ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়। সব মিলিয়ে ফরিদপুরের সিটি ব্যাংকের শাখা হতে এ পর্যন্ত ২৮ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

আজিজুর রহমানের স্ত্রী মাহমুদা জামান কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, গত ২০ দিনেরও বেশি আমার স্বামী ও ভাইকে ওরা আটকে রেখেছে। একটি বাচ্চা নিয়ে আমি এখন এতিম হওয়ার পথে। আমরা এখন রাস্তায় পড়ে গেছি। ভাই অনুরোধ আমার ভাই ও স্বামীকে উদ্ধারের জন্য কিছু করেন।

মাহফুজুর রহমান জানান, সোমবার দুপুরেও তার ভাই ও ভগ্নিপতির সাথে মোবাইলে কথা হয়েছে। এ সময় তারা জানতে পেরেছেন, তার ভাই তৈয়ব ও ভগ্নিপতি আজিজুরকে মারপিট করা হয়েছে। এ সময় তারা জানিয়েছে, সংঘবদ্ধ ওই চক্র আরো দেড় থেকে দুই লাখ টাকা দাবি করেছে। অন্যথায় তাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়েছে। আজিজুর ও তৈয়বকে এখন দক্ষিণ অফ্রিকার জঙ্গলের কোথায় আটকে রাখা হয়েছে তাও নিশ্চিত হতে পারেনি তারা।

এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার আজিজুরের দেশের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী থানায় গত ২২ সেপ্টেম্বর তার স্ত্রী ও মাহফুজুরের বোন মাহমুদা জামান বাদি হয়ে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হাবিবুর রহমানের মোবাইলে নম্বরে ফোন করলে তিনি সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, সরি ভাই সরি, আপনার অভিযোগটি সঠিক নয়।