🕓 সংবাদ শিরোনাম

রোজিনা ইসলামের ঘটনা স্বাধীন সাংবাদিকতার টুঁটি চেপে ধরার শামিল: টিআইবিসাংবাদিক রোজিনা কারাগারেদুর্নীতি তুলে ধরাই কাল হয়েছে রোজিনার: মির্জা ফখরুলস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনলাইন ব্রিফিংও বয়কটচট্টগ্রামে আরও ৭০ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৫কারাগারে বাড়তি নিরাপত্তায় বাবুল আক্তারসাংবাদিক রোজিনাকে হয়রানি ও হেনস্থার প্রতিবাদে রাঙামাটি প্রেসক্লাবের মানববন্ধনসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নির্যাতনের প্রতিবাদে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের মানববন্ধনঝালকাঠিতে জমি নিয়ে বিরোধে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা,আটক-২মাত্র ২০ ঘন্টায় ১০ লক্ষ দর্শক পেল“ তাকে ভালোবাসা বলে” নাটকটি

  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

চার দিনের সফরে ইরান যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী


❏ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর - শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু আগামীকাল চার দিনের সরকারি সফরে ইরান যাচ্ছেন। ইরানের শিল্প, খনি ও বাণিজ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ রেজা নেমাতজাদেহের আমন্ত্রণে সে দেশে যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী।

আজ শুক্রবার শিল্প মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল জলিল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

আবদুল জলিল জানান, শিল্প খাতে উন্নয়নের লক্ষ্যে ইরানের সঙ্গে অভিজ্ঞতা ও কারিগরি দক্ষতা বিনিময়ের ক্ষেত্র চিহ্নিত করার জন্য এ সফর করছেন মন্ত্রী।

সফরকালে তিনি চার সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি)চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবাল, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) পরিচালক মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এবং শিল্পমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব এফ এম মাহমুদ প্রতিনিধিদলে রয়েছেন।

amu

চার দিনের এ সফরে শিল্পমন্ত্রী ইরানের উপরাষ্ট্রপতি; শিল্প, খনি ও বাণিজ্যমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী এবং ইস্পাহান প্রদেশের গভর্নর জেনারেলের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন। এ ছাড়া, তিনি ইরান চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট এবং ইস্পাহানের স্থানীয় শিল্প উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন।

বাংলাদেশ এবং ইরানের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য ও সাংস্কৃতিক বন্ধন রয়েছে। এটি কাজে লাগিয়ে দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সহযোগিতা জোরদারের লক্ষ্যে ইরান সরকার শিল্পমন্ত্রীকে সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। এ সফরের মাধ্যমে ম্যানুফ্যাকচারিং ও সেবা শিল্প খাত এবং অর্থনৈতিক অবকাঠামো উন্নয়নে ইরানের সক্ষমতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। এর ফলে দুই দেশের শিল্প খাতে কারিগরি জ্ঞান, প্রযুক্তি হস্তান্তর ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বিনিময়ের পথ সুগম হবে বলে আশা করা হচ্ছে।