• আজ বৃহস্পতিবার, ১২ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৮ অক্টোবর, ২০২১ ৷

ভিডিও দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে ছাত্রীর সঙ্গে আরও বহুবার মিলিত হন শিক্ষক !


❏ বুধবার, অক্টোবর ১২, ২০১৬ দেশের খবর, রাজশাহী

রাজশাহী প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর~  রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের অশ্লীল ভিডিও ছড়িয়ে পড়ায় উত্তাল হয়ে ক্ষোভে ফেঁটে পড়েছে স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বালিয়াঘাট্টা গ্রামের ওই শিক্ষক ছাত্রীদের প্রাইভেট পড়ান। এসএসসি পরীক্ষার আগেও ওই ছাত্রী তার কাছে প্রাইভেট পড়তেন। ভিডিওটি সে সময় ধারণ করা। পরে ওই ভিডিও দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে ওই ছাত্রীর সঙ্গে আরও বহুবার মিলিত হন ওই শিক্ষক। ওই ছাত্রীর বিয়ের পর সম্প্রতি ভিডিওটি বাইরে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যর সৃষ্টি হয়।

ময়েন উদ্দিন নামে ওই লম্পট শিক্ষকের বিচার দাবিতে মানবন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। তারা ওই শিক্ষকের বরখাস্তের দাবিতে প্রতিবাদ-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছেন।

ময়েন উদ্দিন উপজেলার গুলগোফুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক। ভিডিও ফুটেজে তার সঙ্গে যে কলেজছাত্রীকে দেখা যাচ্ছে, তিনিও ওই কলেজের একাদশ প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার সকালে গোদাগাড়ীর বালিয়াঘাট্টা গ্রামে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের পাশে অনুষ্ঠিত ওই মানববন্ধনে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আকতারুল হক, বাসুদেবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, স্থানীয় ইউপি সদস্য মোখলেসুর রহমান, সমাজসেবক শামশুল করিম প্রমূখ। এ সময় তারা লম্পট ওই শিক্ষকের কঠোর শাস্তি দাবি করেন। পাশাপাশি তাকে চাকরি থেকে বরখাস্তেরও দাবি তোলেন।

সম্প্রতি শিক্ষক ময়েনের ল্যাপটপ থেকে অশ্লীল ওই ভিডিওটি বাইরে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর তা ইন্টারনেটে যায়। এখন তা স্থানীয়দের হাতে হাতে।

স্থানীয়রা আরও জানান, ওই ছাত্রী তার স্বামীর সঙ্গে ঢাকায় থাকতেন। ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে কয়েকদিন আগে তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। এরপর ওই দিনই তার স্বামী তাকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেন। এরই মধ্যে স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদও হয়ে গেছে ওই ছাত্রীর। বর্তমানে ওই ছাত্রী তার বাবার বাড়িতেই আছেন।
এদিকে শিক্ষক ময়েনকে চাকরিচ্যুত করার জন্য স্থানীয়রা কয়েকদিন আগে স্কুল কর্তৃপক্ষকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এরপর স্কুল পরিচালনা পর্ষদের একটি সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই সভা শেষ হওয়ায় স্থানীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে তারা আন্দোলন শুরু করেছেন।

স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, ঘটনার পর থেকেই শিক্ষক ময়েন গা-ঢাকা দিয়েছেন। স্থানীয় একটি প্রভাবশালীমহল তাকে রক্ষারও চেষ্টা চালাচ্ছেন। তবে ওই শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা না হলে অভিভাবকেরা ওই স্কুল থেকে তাদের মেয়েদের প্রত্যাহারের হুমকি দিচ্ছেন।

ভুক্তভোগি ওই ছাত্রীর বাবা বলেন, লোকলজ্জায় তিনি এখন বাইরে বের হতে পারছেন না। তিনি ওই শিক্ষকের শাস্তি দাবি করেন।

শিক্ষক ময়েন উদ্দিনের সঙ্গে কথা বলতে মঙ্গলবার দুপুরে বালিয়াঘাট্টা গ্রামে ওই শিক্ষকের বাড়িতে যাওয়া হয়। তবে তাকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। তার বাবা আশরাফুল ইসলাম মাস্টার বলেন, ‘বিষয়টি একটি ‘দুর্ঘটনা’। আমরা ওই ছাত্রীর সঙ্গে ময়েনের বিয়ে দিতে চাই। তাহলেই বিষয়টির মীমাংসা হয়ে যাবে।’

গুলগোফুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জার্জিস বলেন, শিক্ষক ময়েন গা-ঢাকা দিয়েছেন। তাই এ ব্যাপারে কথা বলতে তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। তবে তার অশ্লীল ভিডিও প্রকাশের বিষয়টি সত্য। আগামি বৃহস্পতিবার স্কুল পরিচালনা পর্ষদের সভায় তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।