• আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আবারও বিতর্কে হিলারির কাছে হেরে গেল ট্রাম্প

২:০৬ পূর্বাহ্ন | শুক্রবার, অক্টোবর ২১, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক – তৃতীয় ও শেষ বিতর্কেও সুস্পষ্ট জয় পেলেন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ডেমোক্রেটিক দলীয় প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। মার্কিন ভোটারদের মনোযোগের কেন্দ্রে থাকা প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্কে হিলারির এই হ্যাটট্রিক জয় তার হোয়াইট হাউসে যাওয়ার পথ আরও সুগম করবে বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে, বিতর্কে জয় তো দূরের কথা, হিলারির কাছাকাছিও যেতে না পারায় প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ধনকুবের ডোনাল্ড ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা সামনের দিনগুলোতে হ্রাস পাবে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। ৮ নভেম্বরের নির্বাচনের আগে দুই প্রার্থীর হাতে আছে আর মাত্র ১৮ দিন। খবর বিবিসি, সিএনএন, এএফপি ও রয়টার্সের।

hilari-tramp

স্থানীয় সময় বুধবার রাত ৯টায় (বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা) লাস ভেগাসের নেভাদা বিশ্ববিদ্যালয়ে তৃতীয় ও শেষ দফার বিতর্কে মুখোমুখি হন দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফক্স নিউজের সাংবাদিক ক্রিস ওয়ালেসের সঞ্চালনায় বিতর্কটির স্থায়িত্ব ছিল ৯০ মিনিট। বিতর্ক শেষে সিএনএন/ওআরসির দর্শক জরিপ বলছে, ৫২ শতাংশ মার্কিনি মনে করেন, বিতর্কে হিলারিই জয়ী হয়েছেন। আর ৩৯ শতাংশের বিশ্বাস, ট্রাম্পই আসল বিজয়ী। তাৎক্ষণিক এ জরিপে ৫৪৭ জন নিবন্ধিত ভোটার তাদের মতামত প্রকাশ করেন। প্রতিযোগীদের আচরণ, বলার ভঙ্গিমা, ভাষার ব্যবহার, বিষয়বস্তু নির্ধারণ, প্রতিপক্ষকে ঘায়েল ও নিজেকে সুরক্ষার কৌশল, কে বেশি সময় নিচ্ছেন_ এসব খুঁটিনাটি বিষয় বিশ্লেষণ করেই ভোটাররা তাদের রায় দিয়েছেন। প্রার্থীদের যোগ্যতা যাচাই-বাছাই ও তাদের দেশনীতি-বিশ্বনীতি ভোটারদের মধ্যে মেলে ধরার এ ‘প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট’ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সাধারণত, এ বিতর্কে হারজিতের ওপরই প্রার্থীদের ‘নির্বাচনী ভাগ্য’ অনেকাংশে নির্ধারিত হয়ে যায়। সে হিসেবে মার্কিন মসনদে হিলারির ভাগ্যই সুপ্রসন্ন।

তৃতীয় দফা বিতর্কে বিচার ব্যবস্থা, অস্ত্র আইন, গর্ভপাত, সামাজিক নিরাপত্তা, অর্থনীতি ও করছাড়, অভিবাসনের পাশাপাশি পররাষ্ট্রনীতি এবং সিরিয়া ইস্যু নিয়ে তুমুল বাগযুদ্ধ হয় দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে। প্রতিটি ইস্যুতে হিলারির চেয়ে ম্লান ছিলেন ট্রাম্প। এবারের বিতর্কের যে দুটি বিষয় সবচেয়ে সমালোচিত হয়েছে তাহলো, এবারও প্রার্থীরা করমর্দন করেননি_ না শুরুতে, না শেষে। প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, যেন মুখোমুখি হয়েছেন দুই চিরশত্রু। অন্য বিষয়টি হলো, ৮ নভেম্বরের নির্বাচনের ফল বিপক্ষে গেলে তা না মানার ইঙ্গিত দিয়েছেন ট্রাম্প। স্বস্তির বিষয় ছিল এটাই যে, এবার দু’জনের কেউই আগের মতো অতি আক্রমণাত্মক ছিলেন না।

বিতর্কের একপর্যায়ে নির্বাচনের ফল মানবেন কি-না সঞ্চালকের এ প্রশ্নের উত্তরে বিপক্ষে গেলে তা না মানার ইঙ্গিত দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, নির্বাচনের ফল যথাযথ হয় কি-না, তা দেখেই সিদ্ধান্ত নেবেন। সরাসরি নির্বাচনের ফল গ্রহণ বা বর্জনের কথা উল্লেখ না করে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি আপনাদের উৎকণ্ঠার মধ্যেই রাখছি।’ এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় হিলারি বলেন, ‘ট্রাম্প আমাদের গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করছেন, অবমাননা করছেন। আমাদের দুটি বড় দলের কোনো প্রার্থীর এমন অবস্থান জেনে আমি হতভম্ব হয়ে পড়েছি।’ তর্কের একপর্যায়ে ট্রাম্পের যৌন হয়রানির প্রসঙ্গও আসে। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করে ট্রাম্প বলেন, যেসব নারী তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন, তাদের সঙ্গে হিলারি জড়িত। এসব অভিযোগ তারই তৈরি করা। এক পর্যায়ে মরিয়া ট্রাম্প বলে ওঠেন, আমার মতো কেউই নারীদের সম্মান করে না। তার কথা শুনে দর্শক সারিতে হাসির রোল ওঠে। সঞ্চালক ওয়ালেসের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে নিয়েও দুই প্রার্থীর মধ্যে তুমুল বিতর্ক হয়। এ সময় ট্রাম্পকে পুতিনের ‘হাতের পুতুল’ আখ্যা দিয়ে হিলারি বলেন, সাম্প্রতিক সাইবার হামলার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করতে চান না ট্রাম্প। মার্কিন সেনাবাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার চেয়ে ট্রাম্প পুতিনকে বেশি বিশ্বাস করেন। জবাবে ট্রাম্প বলেন, তিনি নন, বরং হিলারিই পুতিনের হাতের পুতুল। লিবিয়া ও ইরাক ইস্যুতে ভ্লাদিমির পুতিন এবং সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে হিলারি-ওবামার তুলনায় বেশি শক্তিশালী ও স্মার্ট বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প।

বিতর্কে সুপ্রিম কোর্টকে জনগণের পাশে থাকার কথা বলেন হিলারি ক্লিনটন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্ট একটি কেন্দ্রীয় বিষয় এবং আদালতকে সাধারণ মানুষের পাশে থাকতে হবে, ক্ষমতাধর করপোরেটদের স্বার্থ রক্ষা করতে আদালত নয়। অস্ত্র আইনের পক্ষে নিজের মত তুলে ধরে হিলারি বলেন, তিনি নাগরিকদের হাত থেকে আগ্নেয়াস্ত্র কেড়ে নিতে চান না। তবে এর যুক্তিযুক্ত নিয়ন্ত্রণ অবশ্যই চান। বিপরীতে ট্রাম্প বরাবরের মতো আগ্নেয়াস্ত্র আইনের বিপক্ষেই অবস্থান নেন। গর্ভপাত নারীর একান্ত ব্যক্তিগত অধিকার মন্তব্য করে হিলারি বলেন, ‘আমি মনে করি, প্রত্যেক নারীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও আবেগপূর্ণ সিদ্ধান্ত এটি। আর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার কেবল নারীদেরই।’ পাল্টা জবাবে ট্রাম্প বলেন, তিনি প্রেসিডেন্ট হলে গর্ভপাতের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবেন। উইকিলিকসে ফাঁস হওয়া ই-মেইল প্রসঙ্গে হিলারি বলেন, এটা রাশিয়ার সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে এসেছে। এটা মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের শামিল।